বুধবার, ১৫ অগাস্ট ২০১৮, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন

English Version
মেহেদী হাসান তামিম – এর একগুচ্ছ অসময়ের কবিতা

মেহেদী হাসান তামিম – এর একগুচ্ছ অসময়ের কবিতা

Mehedi Hassan Tamim



অভিমান বনবাসী

ইদানীং মাঝমাঝেই ‘ইচ্ছে’ করে ভীষণাকার ভর-
কখনই কোন ইচ্ছে, আর না যেন জাগুক;
মোরা কি নই প্রবঞ্চক! শঠ, তাতারি, তঞ্চক
আসছে ধেয়ে অসুর ভবিষ্য, আছে কারো সে খবর!

প্রহসন ধ্বজাধারী, রঙমাখা সঙ এখানে-
সংঘ, সংসারলীলা, সংহতি ও সমাজপতি
বিস্তৃত জনপদ- জেলে কুমার কামার তাতার তাঁতি।

অস্থির, মিছে হাসি উদরভর; বড্ড ক্লান্ত শহর-
রোগাক্রান্ত, শোকগ্রস্তা, জরাজীর্ণ, মিথ্যেবাদী এ শহর।
এমনকি গ্রাম-গঞ্জ-উপশহরগুলো; ঠোঁটের কোণে বাসি হাসি
পথ-বিপথ-পশ্চাতপদ তীব্র বন্ধুর, স্বাপদসংকুল
অনিরাপদ, রঙ্গমঞ্চে দাঁড়িয়ে চরম তাচ্ছিল্যে উদাসী।

সত্যধাম অপাংক্তেয়, বিবর্জিত, বহিস্কৃত, মলিন
দুব্বাঘাসের শিশিরসিক্ত কাঁধে বুঝি সওয়ার দুর্দিন!

‘অভিমান’ প্রতিপদে মূল্যহীন,
মুখ ফিরিয়ে আরো অভিমানী এখন
যাবে বনবাসে!
এসে দাঁড়াল কি তোমার উঠোন।

১৫ জুলাই ১৮

কষ্টের চতুর্দশপদী

কষ্টের থাকে ভবিষ্যত বর্তমান অতীত অতি
হৃদপকেটে জমা হয় তার আহরিত সঞ্চিতি
থৈথৈ কানায়কানায় সে তিতকুটে নোনাজল
ঘনীভূত হলে বরফজমাট; কষ্ট মৃত্যুশীতল
বিরহী সঙ্গীতজ্ঞ অভিজ্ঞ বাদ্যবাজনাদল
তীক্ষ্ণতর বিঁধে করে ছিন্নবিচ্ছিন্ন নিশ্চল
ফিনকি ঠিকরে বেরোয় অদৃশ্য অশ্রুহিল্লোল
শ্বাসপ্রশ্বাস বিচলিত যেন বজ্রনিনাদী অনল

ইদানীং বাজারে বিকোয় কষ্ট তুমুল সস্তায়
মূল্যহীন ঠুনকো অযথা নষ্ট পুরোটা সময়
ব্যথা অভিলাষী মনে যদি হয় কষ্ট প্রয়োজন
খুঁজো তা বিশুদ্ধই শুধু, না পাবে যতক্ষণ।
ভুগো এতটা এমন, প্রমিত বাংলা অভিধানে
কষ্ট সংজ্ঞা যেন নবরুপে হয় পুনঃ নবায়ন।

৩০ জুন ১৮

ব্রেকিং খবর

আজও খবর এলো
মরেছে দুজন
দুজন’ই তো, নাকি!
কালও আবার হবে
নতুন দুজন, সে কি!
খবর হবে খবর যাবে
কার তাতে কি?

নতুন খবর, এখন খবর
এখুনি হবে যাবে বাসি খবর
আসছে খবর ভীষণ চমক
নীহারিকা হতে দিয়েছে রওনা
পারি দিল সপ্তর্ষিমণ্ডল
পৌঁছাবে এক্ষুনি বুঝি আকাশগঙ্গায়;
আগুন খবর, ব্রেকিং, দারুন খবর
খবর বটেই ব্রেকিং আসছে এবার
করিতে রচনা তোমারআমার কবর!

২৯ জুলাই ১৮

অনাহারী মরিচা খসে পড়ুক

পিঠ পেতে দেব
দানবজোর করো আঘাত ফের
অনাহারী মরিচা খসে পড়ুক।

হাত পেতে দেব
হাতকড়িতে সাজাও এ অক্ষম হাত
অনাহারী মরিচা খসে পড়ুক।

মাথা পেতে দেব
কিলিমাঞ্জারো নীচে থেতলে পিষে দাও
অনাহারী মরিচা খসে পড়ুক।

বিবস্ত্র শরীর দেব
কামড়ে ছিঁড়েই মেটাও কামুক ভুখ
অনাহারী মরিচা খসে পড়ুক।

প্রতিবাদ দিয়ে দেব
পাঁজাকোলায় করো নিক্ষেপ সূর্যে
অনাহারী মরিচা খসে পড়ুক।

আমার আমিকে দিয়ে দেব; নাও
ফুটন্ত তেলে ভেজে আরো জাগাও ক্রোধ
অনাহারী মরিচা খসে পড়ুক।

৩১ জুলাই ১৮

মুখোমুখি

বলো ও মন কে তোমার পরম অমূল্য ধন
কোন পক্ষে তুমি?
কার তরে হৃদি দিবানিশি আকুলিবিকুলি
ছাত্র অথবা যারা দাঁড়ায়ে ওপার ভূমি!

কেমনে আমি চিনিব কাকে
কে আপন বিরুধ কে, ধরিব কার হাত এ বাঁকে
যেদিক তাকাই সবি
খবু জানাশোনা বেয়ে চলা আমারি প্রিয় ভূমি।

চারিদিক দেখি ভাইচেহারা; তুমি ও তুমি
ওপার এপার সব্বাই একই রুপী
সময় দাঁড় করাল কোথা আজ
দাঁড়িয়ে হেথায় আমি কার মুখোমুখি!

০৮ আগস্ট ১৮

কুঁকড়ে উঠি প্রভু

কুঁকড়ে উঠি প্রভু। কুঁকড়ে উঠি।।

তারপর ধরে চেপে দিনে দিনে ক্রমশ
বলতে না পারা কিছু বোধ, কিছু অব্যক্ত চিন্তন
কিছু কিছু নীরব থাকার অক্ষমতা;
অসহ্য ভীষণ। ভীষণ।।

নিশ্চুপতা অমার্জনীয় বিষাক্ত জ্বালাময়ী
তুলনায় অকথ্য নির্যাতন, পাশবিক ধর্ষণ
বিদ্ধকারী হুহু যন্ত্রনা নপুংসক
ব্যথামায়াবিষ, কুঁকড়ে ফেলা হন্তারক।

কিছু কিছু কান্না, কিছু বেঁচে থাকা মৃত্যৌধিক হাহাকার
কিছু উচ্চারণ উৎপত্তিস্থল অস্পর্শী গহীনের গভীরতর খাদ;
কিছু কিছু হাসি বিশ্রী তুমুল অমার্জনীয়
অনপনেয় বিকৃত ঘনপঙ্কিল ক্রুর।

জীবীত থাকা কিছু, কিছু বিচরণ- শুধুই ইর্ষা মৃতদের পানে
কিছু জেগে ওঠা শতবর্ষ পরে জন্মানো আরেক চে, অদ্ব্যর্থ স্লোগানে

কিছু ঔদ্ধত্য চির আরাধ্য অন্তরবাসনা
জাদুবাস্তব এক মিষ্টিসিজম
লুকোচুরি খেলা। যেন সুবাসিত অধরা হাস্নুহেনা
কালমেঘ কিছু কিছু সূর্যাপেক্ষা অধিক আশ্বাস জাগানিয়া
কিছু কিছু হত্যা, কিছু চলে যাওয়া, কিছু অভিমান
শূণ্যে উদ্যত, উড়ন্ত কিছু মুষ্টিবদ্ধ হাত

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

Please Share This Post in Your Social Media




Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com