বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ০৮:৫৭ পূর্বাহ্ন

English Version
বাপ্পি সাহা’র নির্বাচিত কবিতা

বাপ্পি সাহা’র নির্বাচিত কবিতা

Bappy Saha



  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অপরূপা

তুমি আমার সেই কৃষ্ণচূড়া
মন আঙিনায়
রাঙানো পূর্ণিমার চাঁদ
মাঝে মাঝে লোকচুরি খেলা শেষ বিকেলে
ভালবাসার সংস্পর্শে হৃদয়টা হয়
এলোমেলো অগোছালো।

তুমি আমার সেই ফুটন্ত লাল গোলাপ
যার সুরভীতে মন হতো উতলা
তোমার স্নিগ্ধতায় কল্পনার আকাশে
উড়াতাম ভালবাসার নীল ঘুড়ি ।

তুমি আমার সেই অপরূপা
যার আলতো পরশে মনের বাগানে
কথা বলে ছবি।
প্রতিটি শব্দের ভাঁজে ভাঁজে নাড়া দেয়
তোমার সাজানো চাঁদমুখ
শুধু ভালবাসি, ইচ্ছে হয় আরো
ভালবাসতে। তুমি! তুমি!! তুমি!!

শ্রেষ্ঠ ছোঁয়া কাব্যে লিখেছি

ভালোবাসার শ্রেষ্ঠ ছোঁয়া কাব্যে লিখেছি তোমারই নাম
তুমি হবে নীল প্রজাপতি,আমি হবো লাল
দুজনে উড়ে যাবো ঠিক সাত আসমান গায়।
কখনো মেঘের ভেলায়
কখনো বা রংধনুর সাত রঙে আবীর হবো
ঐশ্বরিক আলোর লুকোচুরি খেলায়।

মন না ভিজলে কি চোখ ভিজে…
ভালোবাসা শুধু তোমাকেই খোঁজে।

যতবার দূরে থাকতে চাই
বার বার তোমার অস্তিত্ব আমাকে তাড়িত করে
বড্ড ভালোবাসা যা ছিল ঐশ্বরিক দান
যা নিতান্তই তোমার জন্য কাল্পনিক।
সত্যি যদি ভালোবাসো এসো কাছে
ঠিক আগের মত করে
যতবার তুমি এসেছিলে…
ঠিক ততবার।

বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন

আমি দেখিনি বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন
দেখিনি একাত্তরের রণ
সব কিছুরই মূলে
স্বাধীনতার সার্বভৌমত্ব।
যারা বাংলা ভাষার জন্য দিয়েছিল প্রাণ
তারা আজ স্মৃতি শহীদ মিনারে
একুশে ফেব্রুয়ারির
রক্তমাখা প্রভাত ফেরী।
একাত্তরের রণ,
ধরার বুকে নতুনভাবে জন্ম নিয়েছিল দেশ
লাখো সন্তানের রক্তে অর্জিত বিজয়ের পতাকা
শত মায়ের নির্যাতিত বনবাস
রের্কড গড়া ইতিহাস।
অমর একুশে শহীদ দিবসে জাতি করে শোক
সব শহীদের জননী অশ্রুভরা চোখ
ভাষার জন্য জাতির জন্যে যারা প্রাণ দিল
তাদের স্মরণে অমর স্মৃতি ফেব্রুয়ারির মান।

চাইনি আমি

জীবনটা এক অসম মাটি
কখনো হাসি আবার কাঁদি
তিলে তিলে গড়ে ওঠা বিশাল এই পৃথিবী
আমি যে ক্ষণিকের
ভাবতে কি ভয় হয় না
কিসের অবলোকনে এই মহাক্ষেত্র?
আমি চলতে এসেছি
ভাবতে এসেছি
ভালোবাসতে এসেছি
অহংকারের আগুনে কাউকে পোড়াতে আসিনি।

কিসের হুংকারে চলে এই জগৎ সংসার
আমিতো শিখতে এসেছি
মানবতা নামে যে বাণী
এটা কি হারিয়ে গেল এই মায়া থেকে,
আমি ধ্বংসলীলা দেখতে আসিনি
আমি স্রষ্টার সৃষ্টিকে ভালোবাসতে এসেছি।
আমি নষ্টামি করতে আসিনি
ভণ্ডামি করে করে কারোর কাছে জীবনটাকে
ভোগের পণ্য বানাতে আসিনি
কোন অসহায় মায়ের কান্নার অজুহাত শুনতে আসিনি
মিথ্যেকে পুঁজি করে কারোর জন্য বাহ্বা নিতে আসিনি।
আমি চাইনি
আমি চাইনি
হাহাকার আর অসত্যের বাণীর জয়।

কেউ কি ভেবেছে কেন দু’চোখে জল জমে
দেখেছে কখনো কেন মায়ের আর্তনাদ হয়
এই অভিশপ্ত জীবন কেন
আমিতো চাইনি।
নতুন আলোয় নতুন দিনের
বাংলার নবসূর্যোদয় চেয়েছি
চাই না কোন হিংসা
এই বিজয়ের পতাকায়।
কে দেবে সত্যের আশা

নেবে কে এই দায়ভার
কে নেবে কে নেবে?

ভালোবাসা তুমি

ভালোবাসা তুমি
ওপেন হার্ট সার্জারি
হাইড্রোজেন বোমার নিউক্লিয়াস বিক্রিয়া

ভালোবাসা তুমি
জৈব রসায়নের ম্যাকানিজম
দুঃখের স্মৃতিতে রোমন্থন

ভালোবাসা তুমি
কাঁচা মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ
এক পিঠে দুখ অন্য পিঠে সুখ।

ভালোবাসা তুমি
তালপাতার এক পোড়া বাঁশি
যে বাঁশির সুর হয় সুমধুর ।

ভালোবাসা তুমি
এক কাগজে লিখা
সব ভুলে ভরা এক কবিতা

ভালোবাসা তুমি
হরেক রকমের রঙ
যে রঙ এখনো বুঝতে পারিনি।

মৃত্যুর পথে

আমি চিরকাল ভেবেছি,
দেখেছি বহুবার-
অতৃপ্ত রয়েই গেল মনে
সাধ পাইনি কখনো,
জীবনের শৃঙ্খল ভেঙে
আজ আমি মৃত্যুর পথযাত্রী।
বিস্মিত হয়ে তাকিয়ে ভাবি
কত যে স্বপ্ন ছিল
অথচ আজ অমি এই পথে,
অনেক স্বপ্ন দেখেছি জীবনে
আনন্দে আত্মহারা হয়েছি,
মনকে ভালোবাসতে চেয়েছি,
আবার দুঃখও এসেছে বারবার
সাধ ছিল মনে
শুধু মৃত্যুকে দেখার
হাহাকারে চিৎকার করতে ইচ্ছে করে,
হাসতে ইচ্ছে করে
জানতে ইচ্ছে করে,
কেউ কি আছো
সেপথে যাবে আমার সাথে
আজ যে আমি হাঁটছি
কেবল মৃত্যুর-ই পথে।

শব্দের মিছিলে

আমি মাটির পিঞ্জর ভেঙে ভেঙে
কুড়িয়ে এনেছি দুঃখ
কি মায়ায় ভাবাচ্ছন্ন একা পথিকের মত!

আমি তো স্বপ্নের গতিময়
ভালোবাসার আর্তনাদ।

তবে কি মায়া এই পৃথিবীতে
দুঃখের সাগরে উত্তাল হয়?

হিংসার আগুনে পুড়ে পুড়ে
হই ছারখার,
ক্ষণে ক্ষণে হয় অভিশপ্ত
জীবনের অপমৃত্যু

প্রতিহিংসা আর স্বার্থের লোভ,
বাঁচতে ইচ্ছে হয়
নিরস পৃথিবীর কাছে জানতে ইচ্ছে হয়
কি মায়া, কিসের মায়া?

তবুও নিরুত্তর হেঁটে চলি
শব্দের মিছিলে।

স্বাধীনতার মুকুল

একুশে ফেব্রুয়ারি তুমি স্বাধীনতার মুকুল
ভাষা আন্দোলনে, শহীদের নামে ঝরা ফুল।
বায়ান্নর আন্দোলন, একাত্তরের রণ
সবকিছুর মূলে স্বাধীনতার সার্বভৌমত্ব ।

একুশ আমার অহংকার
একুশ আমার গর্ব
ভাষার জন্য দিয়েছিল প্রাণ শত মায়ের সন্তানেরা
রক্তে অর্জিত হয়েছিল বাংলাভাষার অধিকার
পেয়েছে পরিপূর্ণতা হলো ইতিহাস
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার।

একুশে ফেব্রুয়ারি তুমি স্বাধীনতার মুকুল
ধরার বুকে নতুনভাবে জন্ম নিয়েছিল দেশ
রক্ত দিয়েছে লাখো মানুষ, হয়েছে বিলীন স্মৃতি
রক্ত মাখা রবি হয়েছে উদয়, বিজয়ের পতাকায়।

ভাষার জন্য জাতির জন্য দিয়েছিল যারা প্রাণ
তাদের স্মরণে শহীদ স্মৃতি ফেব্রুয়ারি মান
পেয়েছি আমরা জয় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার
অমর একুশে শহীদ দিবস জাতি করে শোক
সব শহীদের জননীর আজ অশ্রুভরা চোখ
গড়েছি আমরা সোনার বাংলা
বাংলার মাতৃভাষা বাংলায়।

নব রূপে নতুন লগ্নে

নব রূপে নতুন লগ্নে
খুলি যে নতুন দুয়ার,
দুঃখে বিধুর দিন গুলোকে
দেব এনে সুখের জোয়ার।

হিংসা আর অহংকারে
হব না কেউ দোষী,
ভালবেসে কাছে টেনে
আমরা হব খুশী।

শত্রুকে আমি করবো জয়
হবে ভালবাসা,
মিলে মিশে থাকবো আমরা
এটাই মোদের আশা।

আর ঘটবে না রক্তপাত
হৃদয়ে দিব চুমি,
সবার সেরা আমার এই দেশ
প্রিয় মাতৃভূমি।

রঙিন বসন্তের বনানী

ছয়টি ঋতুর বসুন্ধরায়
একটি ঋতু বসন্ত
নতুন ফুলের কুঁড়ি মেলে
খবর পাঠায় দিগন্ত।

ডালে ডালে নানান ফুল
গন্ধে হয় মন আকুল,
দিকে দিকে সবুজের সমারোহ
লালে লাল শতকোটি ফুটছে অহোরহ।

বসন্ত কালের ঐ লাবনী
কোকিলের কুহু ডাকে
ভ্রমরের গুনগুনানী
চারদিকে ধরণীতে স্বপ্নীল বনানী।

আঙ্গুলের ইশারায়

কে তুমি বীর করলে জয় একাঙ্গুলের ইশারায়
সাড়ে সাত কোটি মানুষ সে দিন ঘুরিয়া দাঁড়ায়,
হাতে লাঠি গামছা কাঁধে রনাঙ্গণে যায়
বিশ্ববাসী অবাক চোখে ফিরে ফিরে চায়।

কি মন্ত্রণা দিলে সে দিন তোমায় শুধু যাঁচে
জয় বাংলা শ্লোগান মুখে দাঁড়ায় তোমার কাছে,
জাতির পিতা আখ্যায়িত হলে তুমি যে দিন
জাতি ধর্মের কোন ভেদাভেদ রইল না সেদিন।

ততদিন তুমি রইবে বেঁচে বাঙ্গালির বুকে
জয় বাংলা থাকবে বেঁচে দেশবাসীর মুখে,
বিশ্বজয় করলে তুমি আঙ্গুলের ইশারায়
তুমি ছাড়া দেশবাসী আজ কাঁদিয়া বেড়ায়।

বৈশাখে নতুনের উন্মাদনা

বৈশাখ নতুনের উন্মাদনা
জাগরণের বাণী
বৈশাখ এলে মন যেন হয়
তোমায় ধরে রাখি।

পান্তা ভাতে গরম ইলিশ
খেতে লাগে মজা
গরিব ধনীর নাই ভেদাভেদ
হবো না কারোর বোঝা।

কাল বৈশাখের ঝড়ে
আম কাঁঠালের ঘ্রাণ
এটা হল মহান স্রষ্টার
মহান প্রতিদান।

হাতে রেখ হাত
করো যে প্রতিজ্ঞা
নতুন দিনে নতুন প্রাণে
সাজাবো নতুনের বৈশাখ।

লাইক দিন

Please Share This Post in Your Social Media




Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com