আজ সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ০৫:৩৬ অপরাহ্ন

রূপসা উপজেলায় জাপার মনোনয়ন পেলেন ডাঃ ফিরোজ মামুন

রূপসা উপজেলায় জাপার মনোনয়ন পেলেন ডাঃ ফিরোজ মামুন

  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
    2
    Shares

মো: এনায়েত হোসেন লীন : আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে খুলনা জেলার রূপসা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জাতীয়পার্টির চুড়ান্ত মনোনয়ন পেয়ে চায়ের দোকান থেকে শুরু করে মাঠে ঘাঠে জনে জনে আলোচনায় রয়েছেন জাতীয় পার্টির নিবেদিত প্রাণ, বিশিষ্ট সমাজ সেবক, শিক্ষানুরাগী ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ডাঃ ফিরোজ মামুন।

রুপসা উপজেলার সাধারন মানুষের নেতা ডাঃ ফিরোজ মামুন ছাত্রজীবনে জাতীয় ছাত্রসমাজের কর্মী হয়ে ১৯৯১ সালে এরশাদ মুক্তি আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। এর পরে রুপসা উপজেলা জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি এবং শ্রীফলতলা ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। বর্তমানে তিনি রুপসা উপজেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহবায়ক।

২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী হিসাবে শ্রীফলতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন। ডাঃ ফিরোজ মামুন একাদশ জাতীয় সংসদ র্নিবাচনে জাতীয়পার্টির প্রার্থী হতে চেয়ে ছিলেন। কিন্তু কেন্দ্র তাকে দলীয় মনোনয়ন না দিয়ে জেলা জাপার সাধারণ সম্পাদক এম হাদিউজ্জামান কে নমিনেশন দিলে তিনি দলের সিদ্ধান্ত মেনে নেন।

বর্তমানে জাতীয় পার্টির তৃনমূলের শত শত নেতাকর্মীরা মনে করেন আসন্ন উপজেলা পরিষদ র্নিবাচনে রূপসা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসাবে ডাঃ ফিরোজ মামুন একজন ক্লিন ইমেজের মানুষ এবং যোগ্য প্রার্থী ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ.এম এরশাদের আস্থাভাজন ব্যক্তি। তাই ডাঃ ফিরোজ মামুন’কে নিয়ে রুপসা উপজেলার জাতীয় পার্টির নেতাকর্মী সহ সাধারণ জনগণ স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন। বিভিন্ন ইতিবাচক কর্ম আর বিচক্ষণ নেতৃত্বগুণে ইতিমধ্যে এই উপজেলা বাসীর আস্থা ও ভালোবাসা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। ফলে রুপসা এলাকার জনগন তাকে’ই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায়।

নির্বাচনে জনসমর্থন এবং জয় পরাজয় নিয়ে জানতে চাইলে রুপসা উপজেলার অনেকেই বলেন, ডাঃ ফিরোজ মামুন জনসাধারণকে যেভাবে বুকে জড়িয়ে নিয়ে, তাদের সুখে-দুঃখে পাশে থাকেন, তাতে দলমত নির্বিশেষে সকলেই তাকে ভোট দিবেন।

উপজেলা পরিষদ নির্বচনের ব্যপারে ডাঃ ফিরোজ মামুন বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকার মানুষের পাশে থেকে তাদের আশা-আকাঙ্খার কথা জেনেছি। স্বাধ্যমত তাদের সেবা করেছি। ফলে জাতীয় পার্টির নীতিনির্ধারকগন এবং পার্টির মহাসচিব মহোদয় সবকিছু জেনে শুনে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন।

সুষ্ঠ নির্বাচন হলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জনগন আমাকে ভোট দিবে এবং বিজয়ে ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী। তিনি আরো বলেন বিগত দিনে দলীয় কর্মকান্ড ও আন্দোলনে সাহসী ভূমিকা পালন করেছি। তাই দল আমাকে যথার্থ মূল্যায়ন করেছেন। তিনি আরও বলেন উপজেলা পরিষদ, গুচ্ছগ্রাম এবং জেলা পরিষদ এরশাদের সৃষ্টি। এরশাদের শাসনামল ছিল দেশের স্বর্ণ যুগ, তাই এরশাদের উন্নয় এবং উপজেলা পরিষদ সহ বিভিন্ন প্রশাসনিক সংস্কার সমূহ জনগনের কাছে তুলে ধরে আমি সহজে তাদের ভোট জয় করতে পারব।
ব্যক্তিগত ভাবে আমি সারা জীবন মানুষের কল্যাণে ও এলাকার উন্নয়নে কাজ করতে চাই। এ জন্য সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করি। ডাঃ ফিরোজ মামুন এলাকায় নিয়মিত দলীয় কর্মসূচি সহ পথসভা, মতবিনিময় ও গণসংযোগ এবং সামাজিক অনুষ্ঠানেও যোগ দিচ্ছেন। এছাড়া তার নেতৃত্বে দলীয় বিভিন্ন কর্মকান্ড চলছে। আর তিনিই দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় সাধারণ মানুষের পাশে রয়েছেন। ফলে রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগত ক্লিন ইমেজের কারণে এবং সুষ্ঠ ভোট হলে সাধারণ জনগন তাকে ভোট দিয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করবেন।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন




Leave a Reply

কে এই যুবক? টিস্যু দিয়ে বঙ্গবন্ধুর বিকৃত ছবি পরিস্কার করছে



Nobobarta on Twitter

© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com