দিনাজপুর-৫ আসনে জাপার এমপি মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক ছাত্রনেতা সোলায়মান সামি | Nobobarta

আজ বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ০৮:৩৪ পূর্বাহ্ন

দিনাজপুর-৫ আসনে জাপার এমপি মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক ছাত্রনেতা সোলায়মান সামি

দিনাজপুর-৫ আসনে জাপার এমপি মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক ছাত্রনেতা সোলায়মান সামি

Rudra Amin Books

মো: এনায়েত হোসেন লীন, স্টাফ রিপোর্টার: সাবেক সফল রাষ্ট্রনায়ক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহন করার পর তিনি একজন দক্ষ যাদুকরের মতো সব রাজনৈতিক দল থেকে অভিজ্ঞ রাজনীতিবীদদেরকে নিজের দলে আনতে সক্ষম হন এবং সরকার গঠন করে ৯ বছর রাষ্ট্র পরিচালনা করেন।

এই সরকারের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ছিল সুদূরপ্রসারী। এরশাদ সরকারের ৯ বছরের শাসনামলের অভূতপূর্ব উন্নয়র ও সুশাসনের কথা মানুষ আজও মনে করে। আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থীর তালিকায় চমক হিসাবে রয়েছে ছাত্রনেতা, যুবনেতা সহ নতুন পুরাতন এবং বর্ষীয়ান রাজনীতিবীদদের নাম।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে দিনাজপুর ৫ আসনের জাতীয পার্টির সম্ভাব্য সংসদ সদস্য প্রার্থী এরশাদ আদর্শে অনুপ্রানীত ও এরশাদ সরকারের উন্নয়ন এবং সুশাসনে বিশ্বাসী একজন নেতা মো; সোলায়মান সামি। এই নেতা ১৯৭৮ সালে দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন।তার পিতা মরহুম মাহাতাব শাহ ছিলেন একজন স্বনামধন্য ব্যাবসায়ী এবং মাতা রশিদা বেগম আদর্শ গৃহিনী।

রাজনৈতি ও সামাজিক অঙ্গনে মো: সোলায়মান সামির ব্যাপক পরিচিতি :
ছাত্র জীবনে সোলায়মান সামি ফুলবাড়ি সরকারী কলেজে জাতীয় ছাত্রসমাজের সদস্য ও প্রচার সম্পাদকের পদ লাভ করে জাতীয় পার্টিতে তার রাজনৈতিক কর্মকান্ড শুরু করেন। ১৯৮৮ সালের দেশের ভয়াবহ বন্যায় পল্লীবন্ধুর ঐতিহাসিক ত্রান বিতরন কর্মসূচি এবং পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ গলা পানিতে নেমে বন্যার্ত অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়ে ত্রান বিতরনের দৃশ্য টিলিভিশনে দেখে তিনি অনুপ্রানীত হন। ১৯৯৫ সালে সোলায়মান সামি ফুলবাড়ীয়া কলেজ শাখা জাতীয় ছাত্রসমাজের প্রচার সম্পাদকের পদ লাভ করে এবং অষ্ট্রিন জুয়েল পরিষদ গঠন করে এরশাদ মুক্তি আন্দোলনে সম্পৃক্ত হন।১৯৯৯ সালে তিনি ওই কলেজ থেকে প্রথম বিভাগে বিএ পাস করেন।

২০০২ সালে পার্বতীপুর উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্যপদ লাভ এবং ২০০৮ সালে পার্বতীপুর উপজেলা জাতীয় পার্টির কাউন্সিলে তিনি যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন। একই বছর তিনি জেলা জাতীয় পার্টির সদস্যপদ লাভ করেন। ২০০৯ সালে পার্বতীপুর উপজেলার অধীনে ৯ নং হাবিবপুর ইউনিয়নে দেশের একমাত্র বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি সংলগ্ন এলাকাবাসীর বাড়ীঘর, ভূকম্পন ও ফাটল সৃষ্টি হলে সোলায়মান সামি তার নেতৃত্বে গ্রামবাসীদের সাথে নিয়ে একটি সামাজিক আন্দোলনের জন্য ভূমি সম্পদ রক্ষা কমিটি গঠন করেন। উক্ত কমিটিতে তিনি সাংগঠনিক সম্পাদক পদ লাভ করেন। ২০০৯-১০ সাল পর্যন্ত এই কমিটির পক্ষ থেকে অলোচনা সভা, প্রতিবাদ সমাবেশ,মিছিল মিটিং সহ মানববন্ধন করলে সরকার বাহাদুর এলাকাবসীর দাবী মেনে নিয়ে ৬৪৬ একর জমি অধিগ্রহণ করে এবং ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসীদেরকে জমির জায়গা মোতাবেক ক্ষতিপূরন প্রদান করেন।

২০১০সালে সোলায়মান সামি জেলা কাউন্সিলে জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্যপদ লাভ করেন।২০১১ সালে জাতীয় কৃষক পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যপদ লাভ করেন। ২০১২-১৩ সালে এই নেতা জাতীয় পার্টির সংগ্রামী মহাসচিব এবং জাতীয় পার্টির মাননীয় চেয়ারম্যান স্যার এরশাদ এর সফর সঙ্গী হয়ে ২৬টি জেলা সফর করে এক রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা ও গৌরব অর্জন করেন। সঙ্গত কারণেই দলের মাননীয় চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ তাকে সামি নামেই ভাল চেনেন।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী দশম সংসদ নির্বাচনে মো: সামি দিনাজপুর ৫ আসনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেন। ২০১৬ সালের ফ্রেব্রুয়ারী মাসে দিনাজপুর জেলা সমাজকল্যান সম্পাদক পদ এবং জাতীয় পার্টির ৮ম কাউন্সিলের পর জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যপদ লাভ করেন।
আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনে দিনাজপুর ৫ (ফুলবাড়ীও পার্বতীপুর) আসন থেকে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন পেয়ে সোলাযমান সামি জনগনের ভোটে নির্বাচিত হলে কি করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন “আমি জনগনের ভোটে নির্বাচিত হলে, শাসক নয় সেবক হয়ে জনগনের পাশে থাকব”। তিনি আরো বলেন জাতীয় পার্টি সরকার গঠন করার সুযোগ পেলে দেশে সুশাসন, উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের পরিবেশ সৃষ্টি হবে। মো: সোলায়মান সামির নির্বাচনী এলাকায় রাজনৈতিক কর্মকান্ড ছাড়াও সামাজিক এবং ধর্মীয় কাজে রয়েছে ব্যাপক সম্পৃক্ততা।তিনি এলাকার মানুষের সুখ দু:খের সংগী হয়ে পাশে থাকতে চান।

দিনাজপুর ৫ অসনে আওয়ামীলীগের শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে চরম কোন্দল :
দিনাজপুর ৫ আসনে জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী থাকলেও আওয়ামীলীগে রয়েছেন এক ডজন প্রার্থী। এই আসনে রয়েছে সরকারী দলের প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী জনাব মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। ফুলবাড়ী উপজেলায় নির্বাচনী প্রচারনায় এগিয়ে রয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার কারণ তার বাড়ী এই এলাকায়। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী নির্বাচন সহ এই এলাকার ৬ বারের এমপি মোস্তাফিজুর রহমান। আগামী নির্বাচনে এই এলাকার বর্তমান এমপি’র জনসমর্থনের বিষয় জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তি বলেন বর্তমান এমপির একপরিবারে রয়েছেন ৪ জন এমপি। এক পরিবারে ৪ জন এমপি’র বিষয়টা একটু পরিষ্কার ভাবে জানতে চাইলে তারা বলেন মোস্তাফিজুর রহমান সাহেব নিজে একজন এমপি তার স্ত্রী একজন এমপি তার মেয়ে একজন এমপি এবং মেযের জামাই এবং তার আপন ভাই এমপির প্রভাব খাটিয়ে এলাকায় তাদের অবৈধ সাম্রাজ্য বিস্তার করে চলেছেন। এমপি পরিবারের এই একাধিক ব্যাক্তিদের অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় ফুলবাড়ী ও পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের ভিতরে বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে।

ফলে এই দুই উপজেলায় আলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশায় কয়েকজন তরুন নেতাও সভা সমাবেশ মিছিল মিটিং ও গনসংযোগ করে চলেছেন।এদের মধ্যে রয়েছেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য সাফেদ আশফাক তুহীন, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক জাকারিয়া জাকির, পার্বতীপুর পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ডা: এইচএম সাজ্জাদ। পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক এবং বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর সাবেক এমপি ক্ষতিবর রহমানের ছেলে এ্যাডভোকেট সৈয়দ শামছুল আলম শান্তু এবং আওয়ামীলীগের উপকমিটির নেতা মাহাম্মুদুন নবী চৌধুরী সহ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল(অব)তোজাম্মেল হক প্রমুখ। অপরদিকে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে রয়েছেন জেলার আহ্বায়ক সাবেক এমপি শিল্পপতি এ জেড রেজওয়ানুল হকের নাম। তিনিও নিয়মিতভাবে নির্বাচনকে সামনে রেখে সভাসমাবেশ ও মিছিল মিটিং করে যাচ্ছেন।

ফুলবাড়ী ও পার্বতীপুরের মানুষ আগামী নির্বাচনে নতুন মুখ দেখতে চায়:
জাপার প্রার্থী সোলায়মান সামি’র জনসমর্থন জানতে চাইলে পার্বতীপুর সদরের কয়েকজনে বলেন সামি ভাই তরুন নেতা যুবকদের বন্ধু মুরব্বীদের সম্মান করেন। ফুলবাড়ী ও পাবর্তীপুর এলাকায় জাতীয়পার্টির অনেক জন সমর্থন রয়েছে। এই এলাকার তৃনমূলের মানুষ এরশাদ সাহেব কে অনেক ভালোবাসেন। কারণ তার শাসনামলে এ এলাকায় অনেক উন্নয়ন হয়েছে, যেমন ১৯৮৯ সালে ফুলবাড়ি সরকারী কলেজ, সরকারী বালিকা বিদ্যালয় সহ অসখ্য রাস্তাঘাট ব্রিজ কালভার্ট নির্মান করেছেন।তাদেরকে বর্তমান শেখহাসিনা সরকারের উন্নয়নের কথা বললে তারা বলেন এই আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে উন্নয়ন হয়েছে সত্য কিন্তু ফুলবাড়ি ও পার্বতীপুরের অনেক রাস্তা এখনও কাঁচা, এলাকার লোকজন বেকার যা হয়েছে বাইরে হয়েছে। তাই আমরা আগামী সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে নতুন মুখ দেখতে চাই।


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.






Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta