রাজারহাটে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে গ্রেফতার-১ | Nobobarta

আজ বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ০৩:০৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
প্রথম রাতে ৩৭শ পরিবার পেলো খাদ্যসামগ্রী : সিসিক বস্তিতে ভরা দুপুরে কন্ঠশিল্পী নয়ন দয়া ও হাজী আরমান ৬৫ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেবে সিসিক ভালুকায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেন সাদিকুর রহমান ঝালকাঠি করোনা প্রতিরোধে রক্ত কণিকা ফাউন্ডেশন জীবাণুনাশক স্প্রে করোনাঃ দুস্থদের খাদ্য দিলো কুড়িগ্রাম জেলা ছাত্রলীগ সিরাজদিখানে দেড় হাজার পরিবারের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ রাজাপুরে সাইদুর রহমান এডুকেশন ওয়েল ফেয়ার ট্রাষ্ট’র হতদারিদ্রদের মাঝে ত্রান বিতরণ রাজাপুরে পল্লী বিদ্যুত সমিতির গরীব মানুষদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ রাজাপুরে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করলেন ইউপি সদস্য
রাজারহাটে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে গ্রেফতার-১

রাজারহাটে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে গ্রেফতার-১

Rudra Amin Books

এ.এস. লিমন, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের রাজারহাটে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দায়েরকৃত মামলায় এক রাজাকারকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

গতকাল শনিবার রাতভর অভিযান চালিয়ে উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নের বালাকান্দি নলকাটা গ্রামের বাড়ী থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বিগত এক বছর পূর্বে আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের একটি তদন্তকারীদল বহুল আলোচিত হাতিয়া গণহত্যাসহ মুক্তিযুদ্ধকালে এ এলাকার সকল নারকীয় হত্যাকান্ডের তদন্ত শুরু করে।

তদন্তকারী দল কয়েক দফা তদন্ত শেষে আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-০১/২০২০ইং। মামলা দায়েরের পর আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল যুদ্ধাপরাধী মকবুল হোসেন(৭০) এর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি করেন। পরোয়ানার প্রেক্ষিতে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার সরকারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ গতকাল শনিবার রাতভর অভিযান চালিয়ে উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নের বালাকান্দি নলকাটা গ্রামের বাড়ী থেকে তাকে গ্রেফতার করে রবিবার দুপুরে আটক রাজাকার মকবুল হোসেনকে কুড়িগ্রাম জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ১৩ নভেম্বর কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের দাগারকুটি, রামখানা, নীলকন্ঠসহ আশপাশের গ্রামে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী, রাজাকার-আলবদর ও স্থানীয় দালালরা মিলে প্রায় সাতশত নিরীহ-নিরস্ত্র ঘুমন্ত মানুষকে গুলি করে হত্যা করে। এ সময় ওই গ্রামগুলো জ্বালিয়ে শ্মশানভূমিতে পরিণত করেছিল। রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.






Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta