নির্দেশনা মানছেনা লক্ষ্মীপুরের কোচিংবাজ শিক্ষকরা | Nobobarta

আজ বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ০২:৫০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
প্রথম রাতে ৩৭শ পরিবার পেলো খাদ্যসামগ্রী : সিসিক বস্তিতে ভরা দুপুরে কন্ঠশিল্পী নয়ন দয়া ও হাজী আরমান ৬৫ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেবে সিসিক ভালুকায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেন সাদিকুর রহমান ঝালকাঠি করোনা প্রতিরোধে রক্ত কণিকা ফাউন্ডেশন জীবাণুনাশক স্প্রে করোনাঃ দুস্থদের খাদ্য দিলো কুড়িগ্রাম জেলা ছাত্রলীগ সিরাজদিখানে দেড় হাজার পরিবারের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ রাজাপুরে সাইদুর রহমান এডুকেশন ওয়েল ফেয়ার ট্রাষ্ট’র হতদারিদ্রদের মাঝে ত্রান বিতরণ রাজাপুরে পল্লী বিদ্যুত সমিতির গরীব মানুষদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ রাজাপুরে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করলেন ইউপি সদস্য
নির্দেশনা মানছেনা লক্ষ্মীপুরের কোচিংবাজ শিক্ষকরা

নির্দেশনা মানছেনা লক্ষ্মীপুরের কোচিংবাজ শিক্ষকরা

Rudra Amin Books

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশে সব ধরণের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। লক্ষ্মীপুরে কোচিংবাজ শিক্ষকরা সে নির্দেশনা উপেক্ষা করে এখনও চালাচ্ছে কোর্চি সেন্টার। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি স্কুল-কলেজের শিক্ষকরা চালিয়ে যাচ্ছেন এমন বাণিজ্যিক কার্যক্রম। এর থেকে বাদ যাচ্ছেনা মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরাও।

রবিবার সকালে লক্ষ্মীপুর সরকারি মহিলা কলেজ, লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ ও মদিন উল্যাহ হাউজিং এবং কলেজরোড এলাকা সহ জেলার কয়েকটি স্থানে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন কোচিং সেন্টারে কোচিং করতে যাচ্ছেন। ছোট্ট একটি কক্ষে গাদা-গাদি করে অনেকেই বসে রয়েছেন। আবার কেউ কেউ কোচিং শেষে বাসায় ফিরছেন।

বিপ্লব কোচিং সেন্টারের মালিক ও লক্ষ্মীপুর কমার্স কলেজের শিক্ষক পরিচয়দানকারী মো. বিপ্লব বলেন, সরকারি নির্দেশনা পাওয়ার পরই সেন্টারটি বন্ধ করে দিয়েছি। আজ ভুলে শিক্ষার্থীরা চলে আসায় বাড়ির কাজ দেখিয়ে দিচ্ছেন, কোচিং করাচ্ছেন না।

শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বলেন, সরকারি নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও শিক্ষরা কোচিং সেন্টার খোলা রেখেছে। এজন্য প্রতিদিনই কোচিংয়ে যেতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। তবে কয়েকজন একসঙ্গে পড়ালেখা করা ঝুঁকিপূর্ণ বলে তারাও মনে করেন। আগামী কাল থেকে সন্তানকে কোচিংয়ে পাঠাবেন না বলে জানান তারা। করোনা থেকে রক্ষা পেতে
বাণিজ্যিক এই প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধের জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেন অভিভাবকগণ।

লক্ষ্মীপুর জেলা শিক্ষা অফিসের সহকারী পরিদর্শক মো. ইব্রাহীম খলিল বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকদের শিক্ষা কার্যক্রম ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

সে আদেশ কেউ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। কোন শিক্ষক ও সেন্টারের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.






Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta