আজ বুধবার, ২৬ Jun ২০১৯, ০৭:৫৮ অপরাহ্ন

আশাই হোক প্রতিটি শিশুর উৎসাহের শক্তি

আশাই হোক প্রতিটি শিশুর উৎসাহের শক্তি

  • 274
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
    274
    Shares

আব্দুর রহিম : নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় মূল ফটক দিয়ে ঢুকতেই হাতের ডানপাশে বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্কে প্রতি শুক্রবার বিকাল যেন ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের একটা মিলন মেলা।

সহপাঠীরা যখন জুমার নামাজ পড়ে দুপুরের খাবার খেয়ে একটু বিশ্রাম নেয় তখনেই নোবিপ্রবির একঝাক মেধাবী শিক্ষার্থীর চলে আসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্কে ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের ভালবাসার টানে। যাদের বেশির ভাগই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রায় ৮ কি:মি: দূর নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদি থেকে আসেন সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সাথে সুন্দর একটা সময় কাটানোর জন্য।

“আশাই হোক প্রতিটি শিশুর উৎসাহের শক্তি” এই স্লোগানকে সামনে নিয়ে ২০১৫ সালে নোবিপ্রবির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের কয়েকজন উদ্যোমী শিক্ষার্থীর উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয় “লুমিনারী” নামে এই সংগঠনটি। সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সুশিক্ষা প্রদান পূর্বক মানসিক বিকাশ সাধন ও সুন্দর ভবিষ্যৎ গঠনে অনুপ্রেরণা প্রদানের উদ্দেশ্য নিয়ে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত একটি সেচ্ছাসেবী সংগঠন “লুমিনারী”।

অন্য কোন নাম না রেখে লুমিনারী নামকরণ সম্পর্কে নকিবুর রহমান বলেন লুমিনারী শব্দের অর্থ “আলোক উৎস”। আমরা সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো অর্থাৎ শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছি। যার মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা একটি সুন্দর ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখতে পারে এবং সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমরা তাদের সর্বোচ্চ সহযোগীতা করছি।
বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের আশেপাশের গ্রামগুলোর সুবিধাবঞ্চিত প্রায় ৭০ জন শিশু নিয়ে প্রতি শুক্রবার বিকেলে লুমিনারীর সাপ্তাহিক কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এসময় নিয়মিত পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। এছাড়া দেশপ্রেম, সামাজিক সচেতনতা, মুক্তিযুদ্ধ ও সাম্প্রতিক বিষয়সমূহ নিয়ে আলোচনা করা হয়। পড়াশোনার প্রতি আগ্রহী করে তুলতে বিভিন্ন ধরনের শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। সবশেষে নাস্তার ব্যবস্থা করা হয়।

অভিভাবকদের সচেতন করার জন্য প্রতি মাসে তাদের বাড়িতে যায় সদস্যরা। আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল শিশুদের অভিভাবকদের পছন্দমতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করানো ও প্রয়োজনীয় শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয় লুমিনারীতে। এছাড়া ঈদের সময় ঈদ উপহার, শীতের সময় শীতবস্ত্র, বর্ষাকালে গাছের চারা বিতরণ করে। এই সংগঠনটিতে বর্তমানে ৩২জন সদস্য রয়েছেন যারা নোবিপ্রবির বিভিন্ন বিভাগে অধ্যয়নরত। এই সংগঠনের সদস্যরা প্রতিমাসে ৫০ টাকা করে চাঁদা দিয়ে এই সংগঠনের যাবতীয় কার্যক্রম বহন করে থাকে।
নকিবুর রহমান বলেন, কারো কাছে আমরা সরাসরি সাহায্য চাই না। লুমিনারীর উপদেষ্টা ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সহকারি  অধ্যাপক জনাব শফিকুল আলম স্যারের সার্বিক দিক নির্দেশনা এবং সদস্যদের সহযোগীতায় শিশুদের মাঝে শিক্ষার গুরুত্ব উপলব্ধি করিয়ে যাবতীয় সহযোগীতার জন্য আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি। তবে কেউ চাইলে এইসকল সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য যেকোন উপহার এনে নিজ হাতে বিতরণ করতে পারেন, তবে অবশ্যই তা নিঃস্বার্থভাবে হতে হবে।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন




Leave a Reply



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com