শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮, ১২:৪২ পূর্বাহ্ন

English Version
হজ্ব কুরবানি ও ঈদ ।। মাহমুদুল হক আনসারী

হজ্ব কুরবানি ও ঈদ ।। মাহমুদুল হক আনসারী



  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

যিলহজ্ব শব্দটির আরবী উচ্চারণ যুলহিজ্জাহ। বাংলায় ‘যিলহজ্ব’ উচ্চারণে প্রসিদ্ধ। এই মাস ‘আশহুরে হুরুম’ তথা সম্মানিত চার মাসের অন্তর্ভুক্ত। এর পূর্ণ মাস, বিশেষত প্রথম দশ দিন অত্যন্ত ফযীলতপূর্ণ। ইসলামে গুরুত্বপূর্ণ দুটি আমল হচ্ছে হজ্ব ও কুরবানী, এ মাসেই আদায় করতে হয়। হজ্ব ইসলামের অন্যতম রোকন। তদ্রূপ কুরবানীও ইসলামের অন্যতম একটি নিদর্শন।

অন্তত হজ্ব ও কুরবানীর এ মাসে মুসলমানদের হৃদয় বাইতুল্লাহ ও মিনা-আরাফার স্মরণে উদ্বেলিত হয়ে থাকে। দূর দেশে অবস্থানের যন্ত্রণা নিয়ে দু’আ করা উচিৎ যে, আল্লাহপাক যেনো সেসকল ভাই বোনদের হজ্বে যাওয়ার তাওফীক দিয়েছেন তাদেরকে হজ্বে মাবরূর নসীব করেন, তাদের জন্য সকল কাজ সহজ করে দিন, এবং তাদেরকে সুস্থ ও নিরাপদ রাখুন। আর আমরা যারা বাইতুল্লাহ থেকে দূরে, আমাদেরকে যেনো মক্কা-মদিনায় যেয়ারতে যাওয়ার তাওফীক দান করেন এবং বার বার উপস্থিত হওয়ার সৌভাগ্য হয়।

আরাফার দিন আল্লাহর রহমতের সাগরে জোয়ার আসে এবং সেদিন তিনি হাজ্বীদের ক্ষমা করেন এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তির পরওয়ানা দান করেন। সেদিন তাদের ওসীলায় অন্য অনেক সৌভাগ্যবানও মাগফিরাতের নেয়ামত লাভ করেন। তাই আমাদের প্রত্যেকেরই এই আশা থাকা উচিৎ যে, সেই সৌভাগ্যবানদের তালিকায় আমাদের নামটিও যেনো লিপিবদ্ধ হয়। পাশাপাশি এ চিন্তাও জাগ্রত রাখা উচিত যে, এখন আল্লাহ তাআলার পক্ষ থেকে রহমত ও মাগফেরাতের বারিধারা বর্ষিত হচ্ছে, অতএব সতর্ক থাকা এবং গুনাহ থেকে বিরত থাকা চায় যে, আল্লাহ না করুন, রহমত ও মাগফেরাতের এ সময়েও উদাসীনতার কারণে যদি বঞ্চিত থাকা হয় তবে তা হবে অতি দুর্ভাগ্যের বিষয়। হজ্বের বিধান ও তাৎপর্য সম্পর্কে অনেক লেখা লেখি হয়েছে ও হচ্ছে। হজ্বের মধ্যে হাজীদের সার্বক্ষণিক অযীফা হলো- নিয়ত ও তালবিয়া-পাঠের মাধ্যমে ইহরামের সূচনা করা। তালবিয়ার মর্ম নিয়ে সামান্য চিন্তা করলেই দেখা যাবে যে, এতে ঈমান, ইহসান, তাওহীদ, তাফবীয, শোকর, তাওয়াক্কুল ইত্যাদি সব-কিছুই বিদ্যমান রয়েছে।

ঈমানের সর্বশ্রেষ্ঠ পর্যায় হল‘তাফবীয ও ইহসান’ অর্থাৎ নিজকে ও নিজের সকল বিষয়কে আল্লাহ তাআলার নিকট সোপর্দ করা।এবং এ অনুভূতির সঙ্গে জীবনযাপন করা যে, আমি আল্লাহর বান্দা এবং তাঁর সামনে উপস্থিত। এটাই তালবিয়ার মর্মবাণী। ঈমানের এই অবস্থা সৃষ্টি করা এবং এই পর্যায়ে উপনীত হওয়ার জন্য প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা হাজ্বী সাহেবানদের কর্তব্য। শুধু হজ্ব-মৌসুমের কর্তব্য নয়, সারা জীবনের কর্তব্য। আল্লাহ তাআলা যেনো আমাদের তাওফীক দান করেন। কুরবানী ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ বিধান এবং বিশেষ ধরনের ইবাদত। কুরবানীর একটি ইসলামী ধারণা এবং একটি জাহেলি ধারণা রয়েছে। জাহেলি ধারণা হলো, কোন মূর্তি বা দেব-দেবীর সন্তুষ্টি লাভের জন্য কিংবা জিন-শয়তান বা কোনো অশুভ শক্তির কাল্পনিক অনিষ্ট থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য তাদের উদ্দেশ্যে কোন কিছু উৎসর্গ করা।

লাইক দিন

Please Share This Post in Your Social Media




Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com