আজ বুধবার, ১৯ Jun ২০১৯, ০৯:২১ অপরাহ্ন

রাজধানীর প্রবীণ নিবাসে এক মায়ের কান্না

রাজধানীর প্রবীণ নিবাসে এক মায়ের কান্না

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  

আজ আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস। ওই দিবেসের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে ‘আগামীর পথে প্রবীণের সাথে’। কিন্তু প্রবীণ দিবসে কেমন আছেন প্রবীণরা? এমন প্রশ্নের উত্তর জানতে যাওয়া হয় রাজধানীর আগারগাঁওয়ের একটি প্রবীণ নিবাসে। সেখানে গিয়ে দেখা যায় কোন প্রবীণরাই ভালো নেই। বুক ভরা কষ্ট নিয়ে দিনরাত অতিবাহিত করছেন তারা।

কান্না জড়িত কণ্ঠে এক মা জানান, দীর্ঘ দিন থেকে তিনি রাজধানীর আগারগাঁওয়ের প্রবীণ হিতৈষী সংঘের চার তলায় বসবাস করছেন।  স্বামীর মৃত্যুরে পর ছেলে সেখানে রেখে গেছে। তার ছেলে রিয়েল স্টেট ব্যবসার সাথে জড়িত। সে কত মানুষকে বাড়ি নির্মাণ করে দিলেও আমাকে তার বাড়িতে থাকতে দেয় না। আমি তার জন্য বোঝা হয়ে গেছি। এ জন্য আমাকে এখানে রেখে গেছে।

ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, আমি এখানে ভালোই আছি। আমার কোনো কষ্ট নেই।  কিন্তু ছেলের স্মৃতিচারণ করে এই মা বলেন, ছোটবেলায় আমাকে ছাড়া ছেলে ঘুমাতে পারতো না। মাঝে মাঝে ঘুম থেকে ওঠে আমাকে জড়িয়ে ধরে থাকতো। মা বলে মুধুর সুরে আমাকে ডাকত। কিন্তু এখন আর সেই মা ডাকটা শুনি না। তাই মা নামটা শুনতে চাই। নিজের ছেলে সব সময় ব্যস্ত থাকে জানিয়ে তিনি বলেন, ছেলেকে ফোন দিলে ব্যস্ত আছে বলে ফোন কেটে দেয়। কিন্তু পরে আর ফোন দেয়া না। তবে আমি আমার ছেলের ফোনের অপেক্ষায় থাকি সব সময়। এক পর্যায়ে কান্না করতে করতে বলেন, আমার ছেলে আমার থাকা-খাওয়ার খরচ ঠিক সময় মতই পাঠিয়ে দেয়। সব মিলিয়ে খুব ভালো আছি, খুব…।

ষাটোর্ধ্ব আরেক মা জানান, তিনি বেশ কয়েক দিন থেকে অসুস্থ হয়ে বিচানায় কাতাচ্ছেন। এখনো পর্যন্ত তার ছেলে খোঁজ-খবর নিতে আসেনি। তবে ছেলে অনেক দূরে থাকে জানিয়ে তিনি বলেন, আমি অসুস্থ জানলে সে অবশ্যই আসত। তিনি জানান, তার স্বামী যোসেফ আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) পরিচালক ছিলেন। বেশ কয়েক আগে তিনি মৃত্যু বরণ করেন। রাজধানীর দিলু রোডে তাদের বাসা রয়েছে। সেই বাসায় তিনি একা বসবাস করতেন। কারণ তাদের একমাত্র ছেলে আমেরিকাতে লেখাপড়া করে। তাই তাকে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে গেছে।

তবে অনেক স্বপ্ন নিয়ে বৃদ্ধাশ্রমে রয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, আমার ছেলে একদিন বিয়ে করবে। ছেলের বউ, নাতি-নাতনিদের সাথে আমি থাকব। এদিকে, ছোট বেলা থেকে মা-বাবা হারানো এরশাদ আলী নামের এক ব্যবসায়ী জানান, তিনি নিয়মিত তাদের খোঁজ-খবর নিয়ে আসেন। তার বাবা-মা নেই তাইতো মাঝে মাঝে প্রবীণ নিবাসে থাকা এসব মানুষের খোঁজ নিতে আসেন তিনি।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন




Leave a Reply

কে এই যুবক? টিস্যু দিয়ে বঙ্গবন্ধুর বিকৃত ছবি পরিস্কার করছে



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com