করোনাভাইরাসের কারণে মুজিববর্ষের কর্মসূচি পুনর্বিন্যাস | Nobobarta

আজ রবিবার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

করোনাভাইরাসের কারণে মুজিববর্ষের কর্মসূচি পুনর্বিন্যাস

করোনাভাইরাসের কারণে মুজিববর্ষের কর্মসূচি পুনর্বিন্যাস

Rudra Amin Books

মুজিববর্ষের অনুষ্ঠান বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেছেন, মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানের উদ্বোধন হবে, তবে বড় পরিসরে কোনো আয়োজন থাকছে না। গতকাল রোববার (০৮ মার্চ) রাতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনিস্টিটিউটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির কার্যালয়ে তিনি এ কথা বলেন। করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জনস্বার্থে ও জনকল্যাণে এ সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানিয়েছে সরকার।

ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জাতির জনকের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন কমিটির সভায় যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তা হলো জনসমাগম পরিহার করে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ অনুষ্ঠান চলবে। আমরা এ উপলক্ষে সারা বছরব্যাপী কর্মসূচি নিয়েছি। অন্য কর্মসূচিগুলো সীমিত আকারে অবশ্যই চলবে। ধানমন্ডি ও টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন কর্মসূচি চলবে। সারাদেশে দোয়া মাহফিল ও শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের কর্মসূচি চলবে। তবে জনসমাগম পরিহার করার কথা বলা হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও জনসমাগম পরিহার করে অনুষ্ঠান আয়োজন করা হবে।

এসময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, প্যারেড স্কয়ারের প্রোগ্রামে আমাদের দেশি-বিদেশি অনেক অতিথি আসার কথা ছিল। সেভাবেই আমরা পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলাম। আমাদের বন্ধু রাষ্ট্র থেকে অতিথি আসার কথা। আমরা যেহেতু বর্তমান সময়ের কারণে এটি করছি না অনেক অতিথি সেখানে অংশগ্রহণ করবেন না। জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে জন্মশতবার্ষিকীর মূল অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তি ও কর্মজীবন নিয়ে হলোগ্রাফিক উপস্থাপনা ও থিম সং পরিবেশনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আতশবাজি এবং শত শিশুর কণ্ঠে গানসহ বর্ণাঢ্য আয়োজন ছিল। এতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আসা অতিথিদের উপস্থিত থাকার কথা ছিল। এছাড়া অনুষ্ঠানে দেড় লাখ জনসমাগমের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল আয়োজকদের পক্ষ থেকে।

বিদেশি অতিথিদের আসা-না আসার বিষয়ে কামাল আবদুল নাসের বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান চলতি বছরের ১৭ মার্চ থেকে শুরু হয়ে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত চলবে। ফলে বিদেশি অতিথিদের উপস্থিতিতে যেসব অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল, সেগুলো পরে অনুষ্ঠিত হতে পারে। বড় আকারের জনসমাবেশ পরিহার করে জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানগুলো চলবে। আমরা আমাদের জাতির পিতার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করব। বছরজুড়ে মুজিব বর্ষের অনুষ্ঠান চলবে।’


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.






Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta