আজ বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ০৪:২৯ পূর্বাহ্ন

লক্ষ্মীপুরে আগুনে দগ্ধ তরুণী মারা গেছে, ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশসহ আটক-৪

লক্ষ্মীপুরে আগুনে দগ্ধ তরুণী মারা গেছে, ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশসহ আটক-৪

জনসম্মুখে পুরুষ নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল

  • 30
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
    30
    Shares

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:
স্ত্রীর স্বীকৃতি চাইতে গিয়ে লক্ষ্মীপুরে আগুনে দগ্ধ হয়ে জীবন দিতে হল শাহেনুর আক্তার নামে এক তরুনীকে। সোমবার সকালে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা য়া ওই তরুনী। এর আগে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে এই ঘটনায় জন্য সে সালাউদ্দিন নামে এক যুবককে দায়ী করেন সে। এই ঘটনায় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এক ইউপি সদস্য হাফিজ উদ্দিন,গ্রাম পুলিশ আবু তাহের,অভিযুক্ত সালাউদ্দিনের দুই ভাই আবদুর রহমান ও আলাউদ্দিনসহ ৪ জনকে আটক করেছে। ঘটনার পর পরেই অভিযুক্ত সালাউদ্দিন গা ঢাকা দিয়েছে। অভযিুক্ত সালাউদ্দনি স্ত্রী ও দুই ছেলে নিয়ে গ্রামে বসবাস করনে। সালাউদ্দীন পেশায় রিকশা চালক। তার বাবার নাম মহর আলী।

পুলিশ,নিহতের স্বজন ও স্থানীয়রা জানায়, গত ৬ মাস আগে মোবাইল ফোনে সালাউদ্দনিরে সঙ্গে পরিচয় হয় চট্টগ্রামের রাউজানের তরুণী সাহানুর আক্তারের । পরিচয় থেকে প্রেম তারপর প্রায় দেড় বছর আগে কাজী অফিসে বিয়ে করে তারা। গত ৬ মাস আগে তরুণী জানতে পারে সালাউদ্দনি বিবাহিত। এই কথা শোনার পর বেশ কয়েকবার কমলনগরে স্ত্রীর স্বীকৃতির জন্য সালাউদ্দিনের কাছে ছুটে আসে সে। শুক্রবার আবারো সালাউদ্দিনের কাছে লক্ষীপুরে আসে শাহেনুর। ওই দিন বিকেলে কমলনগর উপজলোর চরফলকনরে আইয়ুবনগর এলাকার একটি সয়াবিন ক্ষেত থেকে দগ্ধ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় এলাকাবাসী। সোমবার সকালে চকিৎিসাধীন অবস্থায় মারা যায় তরণী সাহনুর আক্তার।

খবর পেয়ে সন্ধ্যায় জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) আ স ম মাহাতাব উদ্দিন সদর হাসপাতালে ওই তরুণীকে দেখতে যান। এদিকে অভিযুক্ত সালাউদ্দিন স্ত্রী ও দুই ছেলে নিয়ে গ্রামে বসবাস করেন।

এ দিকে সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার রাতে মৃত্যুর আগে ওই তরুনী জানায়, মোবাইল ফোনে সালাউদ্দিনের সঙ্গে তার পরিচয় হয়েছে। একপর্যায়ে প্রায় দেড় বছর আগে কাজী অফিসে তাদের বিয়ে হয়। প্রায় ৬ মাস আগে জেনেছি সালাউদ্দিন বিবাহিত। এ কথা শুনে কিছুদিন আগেও কমলনগর এসেছি। কিন্তু স্ত্রীর স্বীকৃতি পাননি। ফের শুক্রবার আবার লক্ষ্মীপুরে আসি। কিন্তু এবারও স্ত্রী স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। স্ত্রীর স্বীকৃতি চাওয়ায় আমার গায়ে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে সালাউদ্দিন।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, স্ত্রীর স্বীকৃতি না পেয়ে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আতœহত্যার চেষ্টা করে শাহেনুর। এক পর্যায়ে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় দৌড়ে গিয়ে বাড়ির পাশে ছোট একটি গোয়াল ঘরে অবস্থান নেয় তরুনী। আবার কেউ বলছেন, সালাউদ্দিন কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। তবে বিষয়টি রহস্যজনক বলেও জানান তারা। তারপর ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে জড়িতদের চিহিৃত করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

স্থানীয় চরফলকন ইউপি চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদ জানান, স্ত্রীর স্বীকৃতি চাইতে শুক্রবার চট্রগ্রাম থেকে সালাউদ্দিনের বাড়িতে আসে তরুনী শাহেনুর আক্তার। রোববার বিকেলে ইউপি সদস্য হাফিজ উদ্দিন ও গ্রাম পুলিশ বিষয়টি আমাকে জানায়। এরপর বিয়ের সত্যতার জন্য ইউপি সদস্যকে বলা হয়। তরুনী স্ত্রীর স্বীকৃতি না পাওয়ায় অভিমারন করে নিজের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আতœহত্যার চেষ্টা করে বলে স্থানীয়রা তাকে জানিয়েছে বলেও জানান এ জনপ্রতিনিধি।

কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। স্ত্রীর স্বীকৃতি না পাওয়ায় নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আতœহত্যার চেষ্টা করে ওই তরুনী বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। এ বিষয়টি গুরুত্বসহকারে তদন্ত করা হচ্ছে। জড়িত কেউ ছাড় পাবেনা বলে জানান তিনি।

জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) আ স ম মাহাতাব উদ্দিন সদর হাসপাতালে ওই তরুণীকে দেখতে গিয়ে( রোববার রাতে) সাংবাদিকদের জানান, তরুনী নিজে গায়ে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে না অন্য কেউ লাগিয়ে দিয়েছে কিনা, সে বিষয়টি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে ইউপি সদস্য হাফিজ উদ্দিন ও গ্রাম পুলিশসহ চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। তদন্ত চলছে।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন




Leave a Reply

Nobobarta on Twitter

© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com