মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১২:২৪ পূর্বাহ্ন

English Version
কবি জায়েদ হোসাইন লাকী এর ‘নির্বাচিত কবিতা’ এবং তার কবিতার চিত্রকল্প

কবি জায়েদ হোসাইন লাকী এর ‘নির্বাচিত কবিতা’ এবং তার কবিতার চিত্রকল্প



  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

তিস্তা (কোলকাতা) # ‘ভার্চুয়াল’ বলে যারা এই ফেসবুকীয় সম্পর্কগুলোকে ফুঁ দিয়ে বাতাসে উড়িয়ে দেয়, তাদের বলি, সম্পর্ক তৈরি হয় আত্মার সাথে আত্মার, হৃদয়ের সাথে হৃদয়ের, মনের সাথে মনের।

আর যেকোনো আত্মার সাথে আত্মার, হৃদয়ের সাথে হৃদয়ের, মনের সাথে মনের সম্পর্ককে আমি বিশ্বাস করি। আমার এই বিশ্বাসকে আরো একবার মর্যাদা দিলেন বাংলাদেশের আমার ফেসবুক বন্ধু নাসিমা আক্তার। তিনি আমার ফেসবুকীয় দিদি। কোনো কাঁটাতার নেই আমাদের মাঝে। তিনি ভালোবেসে আমাকে সুদূর বাংলাদেশ থেকে কুরিয়ারের মাধ্যমে আমাকে উপহার দিলেন, তাঁকে উৎসর্গ করা কবি জায়েদ হোসাইন লাকী’র ১৪তম গ্রন্থ ‘নির্বাচিত কবিতা’।

কাজ শেষে বাড়ি ফিরতেই বাবা দৌড়ে এসে আমার হাতে তুলে দিলেন বাংলাদেশ থেকে কুরিয়ার সার্ভিসে আসা একটি পার্সেল। অনেকক্ষণ পর্যন্ত মোড়ক খুলিনি, হাত রেখে আলতো করে বসেছিলাম, পার্সেলটি গালে ছুঁইয়ে নাসিমা আপার হাতের স্পর্শ মনে করে অনেক পুলকিত হয়েছি। রাতে বইটির মোড়োক খুলে হাত বুলিয়ে নিলাম। মুগ্ধতা শুরু হল বইয়ের প্রথম পৃষ্ঠা থেকেই, এই খুনখারাপি, রক্ত, রাজনীতি থেকে ঢের দূরে এক অন্য গ্রহে নিয়ে গেলেন কবি আমাকে! এত প্রেম, এত ভালোবাসা, এত স্নিগ্ধতা, আছে এখনও পৃথিবীতে তবে!!! কী নরম আর পুলকিত শব্দদিয়ে কবিতাগুলো লিখেছেন তিনি। যেমন, তুমি জলে ডোবা চাঁদ / আমি ফাঁদে পা দেয়া ডাহুক পাখীর ছানা। কিংবা, জানালাহীনতা আমাকে জ্যোৎস্নাহীন করে দেয়/ নক্ষত্র রাতে, প্রতিদিন জল ভাঙে জলের ভেতর/আমার ভেতরে টুকরো টুকরো আমিত্ব এমন সব পঙক্তি পেরোতে পেরোতে স্বর্গের খুব কাছাকাছি চলে এসেছি যখন, হঠাৎ কবি তার কবিতায় বলে বসলেন- -তুমি এক অনাবাদি জমি।

ছিটকে আবার নরকে নেমে এলাম। তিনি বললেন, বলেই গেলেন যেন আমাকেই “সীতার শরীরে ফেরাউনের নবজাতক চোখ/আত্মঘাতী রাতে সে নিজেকে বিলায় ঘুমের ভেতরে। কবিরা কি সত্যি তবে ঈশ্বর হন? কবিরা সব পড়ে ফলেতে পারেন মনের কথা! সম্ভবত আমাকে আমার জায়গাতেই ফিরিয়ে দিতে এরপর তিনি ‘অপ্রেমের কবিতা’য় মেলে ধরলেন একের পর এক কঠিন বাস্তব যেমন, আমাদের প্রেম এখন এক আণবিক ব্রীজের উপরে এসে দাঁড়িয়েছে/আমরা একে অন্যকে ক্রমশ অবিশ্বাস করতে শুরু করেছি। এরপর, আমিও ক্রমাগত প্রেম থেকে ছিটকে পড়ে অপ্রেমের দিকে হাঁটছি, হাঁটছি তো হাঁটছি যেন শেষ নেই! যেন প্রেমের অফুরন্ত এই পথ!

লাইক দিন

Please Share This Post in Your Social Media




Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com