আজ পর্দা নামছে অমর একুশে গ্রন্থমেলার | Nobobarta

আজ মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ০৯:৪৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
৬৫ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেবে সিসিক ভালুকায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেন সাদিকুর রহমান ঝালকাঠি করোনা প্রতিরোধে রক্ত কণিকা ফাউন্ডেশন জীবাণুনাশক স্প্রে করোনাঃ দুস্থদের খাদ্য দিলো কুড়িগ্রাম জেলা ছাত্রলীগ সিরাজদিখানে দেড় হাজার পরিবারের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ রাজাপুরে সাইদুর রহমান এডুকেশন ওয়েল ফেয়ার ট্রাষ্ট’র হতদারিদ্রদের মাঝে ত্রান বিতরণ রাজাপুরে পল্লী বিদ্যুত সমিতির গরীব মানুষদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ রাজাপুরে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করলেন ইউপি সদস্য নিজেরা নিয়ন্ত্রন না হলে বিপদে পরতে হবে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির উদ্যোগে সুবিধাবঞ্চিতদের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
আজ পর্দা নামছে অমর একুশে গ্রন্থমেলার

আজ পর্দা নামছে অমর একুশে গ্রন্থমেলার

Rudra Amin Books

শেষ হয়ে এলো ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি। একই সঙ্গে বিদায়-বিরহের সুর প্রাণের মেলা বইমেলায়। সোহরাওয়ার্দী ময়দানে কিংবা বাংলা একাডেমির চত্বরজুড়ে আগামীকাল রোববার থেকে জ্বলে উঠবে না সারি সারি বইয়ের কুটির। আজ শনিবারই দিন শেষে পর্দা নামছে এবারের আসরের।

এবারের বইমেলা একটা তৃপ্তি নিয়েই শেষ হচ্ছে বলা যায়। অন্যবারের চেয়ে এবারের বইমেলার আয়োজনে ছিল বৈচিত্র্য-ভরা। সুপরিসর, নান্দনিক এবং গোছানো। বড় পরিসরে স্টল ও প্যাভেলিয়ন সাজানো হয়েছিল সোহরাওয়ার্দী ও একাডেমি চত্বর। ফলে মেলায় আসা ক্রেতা-দর্শনার্থীরা স্বাচ্ছন্দ্যে ঘুরেফিরে বই কিনেছেন। উপভোগ করেছেন মেলা। কবি-সাহিত্যিকরা মেতেছিলেন সাহিত্য আড্ডায়।

গতকাল ছিল বইমেলার শেষ শুক্রবার। মেলা শুরু হয়েছিল বেলা ১১টায়। দুপুর একটা পর্যন্ত ছিল শিশুপ্রহর। এই সময়টাতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের শিশুচত্বরে হালুম, ইকরি আর শিকুদের দেখতে শিশু-কিশোরদের উচ্ছ্বাসের জোয়ার লেগেছিল। দুপুর একটা থেকে তিনটা পর্যন্ত মেলায় লোকসমাগম কিছুটা কম ছিল। জুমার নামাজ ও মধ্যাহ্নভোজে ব্যস্ত ছিলেন বইয়ের ক্রেতারা।

সূর্য মাঝ আকাশ ছাড়িয়ে পশ্চিমে হেলিয়ে পড়তেই মানুষের ঢল নামে মেলায়। বিকেল নাগাদ মেলা টইটম্বুর। সন্ধ্যায় বইমেলা যেন লোকে লোকারণ্য হয়েছিল। ভিড় ছিল মেলার শেষ অবধি। শুক্রবারে মেলায় বিক্রিও হয়েছে আশানুরূপ। ক্রেতাদের সামলে বিক্রয়কর্মীদের দম ফেলার ফুসরত ছিল না। উদীচীর প্রকাশনা সম্পাদক রহমান মুফিজ বলেন, এবারের মেলায় তরুণদের বই আশানুরূপ বিক্রি হয়েছে। একই কথা বললেন কবি গিরীশ গৈরিক। তিনি বলেন, তরুণদের ভাবনা জানতে এবং সমকালীন সাহিত্য সম্পর্কে মানুষ তরুণদের লেখা পড়ছেন। তাদের সাদরে গ্রহণ করেছে।

এদিকে আজ মেলায় ক্রেতাসমাগম যেমন ছিল, তেমনি বিক্রিও হয়েছে ভালো। খুশি প্রকাশকরাও। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দুই হাতে বইয়ের ব্যাগ নিয়ে এক স্টল থেকে আরেক স্টলে ঘুরছিলেন তাহমিদ। ঢাকা টাইমসের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, ‘মেলা থেকে বই কেনার জন্য সিরাজগঞ্জ থেকে রাতের ট্রেনে ঢাকায় এসেছি। সারা বছর পড়ার জন্য বইগুলো মেলা থেকে সংগ্রহ করব।’

বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে বইমেলা শুরু হয়েছিল ২ ফেব্রুয়ারি। এদিন মেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শনিবার শেষ দিন বইমেলার দ্বার খুলবে সকাল ১১টায়। দুপুর একটা পর্যন্ত চলবে শিশুপ্রহর। মেলার পর্দা নামবে রাত নয়টায়।


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.






Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta