আজ শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ০৫:১০ পূর্বাহ্ন

নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না : হাইকোর্ট

নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না : হাইকোর্ট

  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
    4
    Shares

যারা খাদ্যে ভেজাল মেশায় তাদের সতর্ক করে হাইকোর্ট বলেছেন, মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলবেন না। নিরাপদ খাদ্য মানুষের মৌলিক অধিকার। আজ বুধবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের বেঞ্চ এ কথা বলেন। আদালত বলেছেন, নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। সে যেই হোক তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভবিষ্যত প্রজন্মের স্বাস্থ্য ঠিক না হলে জাতি গঠন হবে কীভাবে, এমন প্রশ্নও তোলেন আদালত। আদালতে আজ রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক। বিএসটিআইয়ের পক্ষে অ্যাডভোকেট সরকার এম আর হাসান মামুন এবং নিরপাদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. ফরিদুল ইসলাম।

কোন কোন কোম্পানির দুধ ও দইয়ে ভেজাল বা রাসায়নিক দ্রব্য পাওয়া গেছে এবং কারা এর সঙ্গে জড়িত তাদের নাম-ঠিকানা দাখিলের জন্য আজ দিন ধার্য ছিল। তবে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ তা দাখিল না করে সময় আবেদন করে। পরে তাদেরকে ২৩ জুন পর্যন্ত সময় দেন আদালত। বাজারে প্রচলিত তরল দুধের ৯৬টির মধ্যে ৯৩টির নমুনায় মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান পাওয়া গেছে উল্লেখ করে, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ হাইকোর্টে একটি প্রতিবেদন দাখিল করে।

তবে, কোন কোন কোম্পানির দুধে এসব ক্ষতিকর উপাদান রয়েছে, তা সুনির্দিষ্ট না করায় সংশ্লিষ্ট কোম্পানির নাম আদালতে উপস্থাপন করতে বলেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে এর সঙ্গে জড়িতদের নাম-ঠিকানাও ১৫ মে তারিখের মধ্যে আদালতে দাখিলের জন্য নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়। গত ৮ মে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে সেদিন রাষ্ট্রপক্ষে উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। পরে জাগো নিউজকে তিনি আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। গত (১৩ মে) দুধ ও দইয়ে ভেজাল সংক্রান্ত প্রতিবেদনটি দাখিল করে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ।

আদালতে দাখিল করা প্রতিবেদনের বিষয়ে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক জানান, বাজার থেকে সংগৃহীত কাঁচা তরল দুধের ৯৬টি নমুনার মধ্যে ৯৩টিতেই সীসা ও অ্যান্টিবায়েটিক অনুজীব পাওয়া গেছে। প্যাকেটজাত দুধের ৩১টি নমুনার মধ্যে ১৮টিতেই ভেজাল পাওয়া গেছে। এ ছাড়া উচ্চমাত্রার বিভিন্ন রাসায়নিক পাওয়া গেছে দুধ ও দইয়ে। কোন কোন কোম্পানি দুধে এই ভেজাল বা রাসায়নিকদ্রব্য মেশানোর সঙ্গে জড়িত, প্রতিবেদনে তাদের নাম-ঠিকানা না দেয়ায় আদালত ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং সেই তালিকাও দাখিলের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

এর আগে গত ১১ ফেব্রুয়ারি ঢাকাসহ সারাদেশে গরুর দুধ, দুই এবং গো-খাদ্যে কী পরিমাণ ব্যাকটেরিয়া, কীটনাশক, সীসা রয়েছে তা নিরূপণের জন্য একটি জরিপ পরিচালনার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ১৫ দিনের মধ্যে খাদ্য সচিব, মৎস্য ও প্রাণি সচিব, কৃষি সচিব, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানসহ সকল সদস্য, কেন্দ্রীয় নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটি এবং বিএসটিআই চেয়ারম্যানকে জরিপের প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করতে বলা হয়।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, গাভীর খোলা দুধের ৯৬টি নমুনা পরীক্ষায় ৯৬ শতাংশ দুধেই রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ক্ষতিকর অণুজীব। ১৫ শতাংশ দুধে মিলেছে মানুষের জন্য গ্রহণযোগ্য মাত্রার চেয়ে বেশি সীসা। ১৩ শতাংশে গ্রহণযোগ্য মাত্রার চেয়ে বেশি টেট্রাসাইক্লিন, ৯ শতাংশে গ্রহণযোগ্য মাত্রার চেয়ে বেশি কীটনাশক ও ৩ শতাংশে গ্রহণযোগ্য মাত্রার চেয়ে বেশি আফলাটক্সিনের প্রমাণ পাওয়া গেছে। এর আগে জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের একটি গবেষণা প্রতিবেদন নিয়ে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে খবর প্রকাশিত হয়। ওই প্রতিবেদনের আলোকে আদালত স্বপ্রণোদিত হয়ে ওই দিন আদেশ দেন।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন




Leave a Reply

কে এই যুবক? টিস্যু দিয়ে বঙ্গবন্ধুর বিকৃত ছবি পরিস্কার করছে



Nobobarta on Twitter

© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com