সিরাজদিখানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কাবা শরীফ নিয়ে কটুক্তি! - Nobobarta

আজ রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৫৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
মাভাবিপ্রবিতে পদার্থ বিজ্ঞানে গবেষণা শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ঐক্যবদ্ধভাবে গণতন্ত্র মুক্তির আন্দোলনে থাকতে হবে : নজরুল ইসলাম খান কিশোরি ধর্ষনের অভিযোগে ঘিওরে কথিত সাংবাদিক কামাল গ্রেপ্তার পুঠিয়ায় জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে পুরুষের দায়িত্ব ও ভূমিকা বিষয়ক আলোচনা সভা লিসা’র হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া গণতন্ত্র মুক্তি পাবে না : খন্দকার লুৎফর জাবি উপাচার্যকে ‘অবাঞ্ছিত’ ঘোষণা করে কালো পতাকা প্রদর্শন আন্দোলনকারীদের মোহামেডানসহ ৪ ক্লাবে জুয়ার বর্ণাঢ্য আয়োজন জবিতে শুরু হচ্ছে আন্ত:বিশ্ববিদ্যালয় বিজনেস কেইস কম্পিটিশন আবৃত্তিকার কামরুল হাসান মঞ্জু’র মৃত্যুতে জাতীয় মানবাধিকার সমিতির শোক
সিরাজদিখানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কাবা শরীফ নিয়ে কটুক্তি!

সিরাজদিখানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কাবা শরীফ নিয়ে কটুক্তি!

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি।
মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান উপজেলার রাজদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষিকা কাঞ্চন মালা কাবা শরীফ নিয়ে কটুক্তি করায় এলাকাবাসী ও আভিবাবক দের মাঝে ক্ষোভ বিারাজ করছে। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় অনেক শিক্ষার্থী ও অভিবাবকরা কাবা শরীফ নিয়ে কটুক্তির বিষয়ে কথা বলছে এবং তাদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

৫ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী জুবায়ের বলেন, গত বৃহস্পতিবার আমাদের ইসলাম ধর্ম পরিক্ষায় সময় কাঞ্চন মালা ম্যাডাম আমাদের বলেন আমি এবার হজ্বে যাব। এসময় এক ছাত্রী দাড়িয়ে বলে ম্যাডাম মুসলমান ছাড়া অন্য ধর্মের লোকেরা তো হজ্বে যায় না। তিনি বলেন আমি জানি কেন যায় না। কারন কাবা শরীফ মা-কালি পাহারা দেয় সেখানে গিয়ে তুলসি পাতা ছোয়ালে কালি ছুটে যাবে তাই মুসলমানরা অন্য ধর্মের লোকদের সেখানে যেতে দেয় না।রাজদিয়া দারুসসালাম মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক বলেন, কাবা শরীফ নিয়ে কটুক্তি করায় এলাকাবাসী আমাকে জানালে আমি এলাকাবাসী সহ শিক্ষিকাকে জিজ্ঞাসা করলে প্রথমে তিনি অস্বীকার করেন এবং পরে স্বীকার করে বলেন এই ছোট বিষয়টা নিয়ে আপনারা এতো বানাচ্ছেন কেন।সহকারি শিক্ষিকা কাঞ্চন মালা বলেন, বাচ্চারা আমার কাছে জানতে চায় আপনি কি হজ্বে জাবেন? আমি বলি আমরা তো হিন্দু তাই আমাদের হজ্ব নেই।

তবে ছোট বেলায় পূর্ব পুরুষদের মুখে শুনেছিলাম কাবাঘরে কি যেন থাকে সেখানে নাকি তুলসি পাতা ছোয়ালে সেটা মুক্তি পাবে। এ কথা ছাড়া আমি অন্য কিছু বলিনি বাচ্চারা কেন এমন অভিযোগ করছে তা আমি জানি না। আমি বিদ্যালয়ে এসে এমন কথা শুনতে পেয়ে খুবই মর্মাহত।বিদ্যালয়ের প্রধার শিক্ষিকা শাহানাজ বেগমের সাথে এবিষয়ে কথা বলতে গেলে তিনি বলেন, আমার উর্ধতন কর্মকর্তার অনুমতি ছাড়া আমি কিছু বলতে পারব না। এবং তিনি উপজেলা শিক্ষা অফিসার কে মুঠোফোনে ধরিয়ে দেয়।উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ বেলায়েত হোসেন বলেন, আমি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে বিষয়টি অবগত হয়েছি এবং এটিও কে পাঠাচ্ছি ঘটনা সত্য হলে ব্যাবস্থা গ্রহন করব।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন


Leave a Reply