ভুতের সাথে দিনযাপন : নাভিদ আমিন | Nobobarta

আজ বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৮:২১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
২০০০ শয্যার বসুন্ধারা করোনা হাসপাতালে সেবা প্রদান শুরু করোনা পরিস্থিতির অবনতি হলে ফের সাধারণ ছুটি আলোকদিয়ায় ৫শত অসহায় পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দিলেন এমপি দুর্জয় দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন : একইসঙ্গে আম্পান-করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ নওগাঁয় করোনা পরিক্ষার যন্ত্র স্থাপনের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান কমলগঞ্জে খাসিয়া সম্প্রদায়ের মধ্যে ফলজ ও সবজি বীজ বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক মুরাদনগরে ১১’শ ৪৮টি মসজিদে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের নগদ অর্থ বিতরণ আটপাড়া উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক বাজার মনিটরিং অব্যাহত নড়াইলে ভূমিহীনদের উচ্ছেদের প্রতিবাদে মানববন্ধন লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার ‘মূল ঘাতক’ নিহত
ভুতের সাথে দিনযাপন : নাভিদ আমিন

ভুতের সাথে দিনযাপন : নাভিদ আমিন

Rudra Amin Books

রাত ১২টা নাগাদ বাসায় ফিরলাম। একটা কাজে চিটাগাং গিয়েছিলাম হঠাত কাজ শেষ করেই ফিরে আসা।মস্ত বড় ফ্লাটে আমি একা থাকি।বাবা বলেছিল ফ্লাট বাসায় একা থাকবি না তাতে ভয় পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।আসলে ভয়টা ঠিক কিসের তখন বুঝতে পারিনি,আজ বাসায় ফিরে আসা মাত্রই শরীর কেমন জানি শিরশির করতে লাগলো। থমথমে পরিবেশ। আমি দরজার তালা খুলব এমন সময়ে একটি মিহি গলার আওয়াজ এল কানে, বাবু ফিরেছেন ইস বড্ড চিন্তা হচ্ছিল আমার আপনার জন্য।

এভাবে কেউ একজন কথা বলবে আমি কখনো কল্পনাও করিনি তাই চমকে গেলাম।পিছন ফিরে তাকিয়ে দেখি কেউ নেই।আশ্চর্য! আমি কি ভুল শুনলাম? হতে পারে লম্বা জার্নি করে এসেছি কি শুনতেই কি শুনেছি সবটাই আমার মনের ভুল।দরজা খুলে ভিতরে ঢুকতেই অটোমেটিক পাখাটা ঘুরতে শুরু করল।আবারও অবাক হলাম, পড়ে ভাবলাম নিজেই হয়ত সুইচ টিপেছি সোফায় গা এলিয়ে বসে পড়লাম একটু জিরানো দরকার মনে করে।আমি এবারও সেই মিহি গলার স্বর শুনতে পেলাম বলল,বাবু পাখাটার ভলিয়ম কি বাড়িয়ে দিব আপনার গাঁ’টা ঠিক এই সামান্য বাতাসে জুড়াচ্ছে না।বলেন তো এক গ্লাস ঠান্ডা লেবুর শরবত এনে দিই।এবার সত্যি সত্যি আমি ভয় পেয়ে গেলাম এবং বললাম আজ্ঞে কে ? কে কথা বলে?
অদৃশ্য থেকে আওয়াজ এল, বাবু ভয় পাবেন না যেন।
তুমি কে?
বাবু আমি বিপিন আপনার দেখাশোনা করার জন্য এসেছি। বিপিন নামের কাউকে আমি চিনি বলে তো মনে হচ্ছে না, আর তুমি কোথা থেকে কথা বলছ দেখতে পাচ্ছি না কেন?
আজ্ঞে বাবু আমাকে আপনি দেখতে পাবেন না আমার সেই মানুষ হবার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছি মৃত্যুর পর।এখন আমি অদৃশ্য।আমি ভয়ে কাচুমাচু খেয়ে বললাম তার মানে তুমি ভুত।
খিলখিল করে হাসির আওয়াজ কানে ভাসতে লাগলো আজ্ঞে বাবু ঠিক ধরেছেন,মৃত্যুর পর আমি ভুত হয়ে গিয়েছি।বেচে থাকতে মানুষের নানা ফায় ফরমায়েজ খাটতাম এখনো তাই করছি।
আচ্ছা তুমি ভুত হউ আর যাই হউ ভয় চাপা মন নিয়ে বললাম আমার কাছে কেন? আমি তো তোমাকে চিনিনা।
আজ্ঞে বাবু আমাকে আপনার বাবা পাঠিয়েছেন আপনার দেখভাল করার জন্য।এত্ত বড় ফ্লাট বাসায় একা থাকেন ভয় পাবেন না সেজন্য।আমি সব কাজ করতে পারি বাবু ঘর গুছানো থেকে শুরু করে রান্নাবান্না ইত্যাদি। কি খাবেন বলুন? ঝটপট রেসিপি তৈরী করে আনছি আমি।

আমি মনে মনে ভাবলাম বুড়ো বয়সে বাবার ভিমরতি হয়েছে তাই যতসব উল্টাপাল্টা কাজ কর্ম করে বেড়ায়।আমার জন্য ভুত নিয়োগ দিয়েছে সে নাকি আমার দেখাশোনা করবে ভাবতেই আশ্চর্যবোধ হচ্ছি! আমি বললাম, এই যে বিপিন বাবু শুনো আমার কোন ভুতের সাহায্যের প্রয়োজন নেই তুমি ভাগ এখান থেকে নয়ত পিটিয়ে ছাল তুলে নিব।এবার হাসির শব্দ ক্রমানুসারে বাড়তে লাগলো, বাবু মনে হয় ভুলে গেছেন আমি মানুষ নয় তাই ইচ্ছে করলেও আপনি আমাকে মারতে পারবেন না।আর হ্যা আপনার বাবার কড়া হুকুম অমান্য করে আমি কোথাও যেতে পারব না।আমি মনিবের কথার নড়চড় করিনা।আমি আপনার সাথেই থাকব।মনে মনে আমি ফন্দি আটতে লাগলাম কোনভাবে পিছু ছাড়ানো যায় কিনা কিন্তু এটা কোন ভাবেই কথা শুনছে না।কদিন হয়ে গেল এই অদৃশ্য ভুতের জালায় আমি অতিষ্ট। আমি বললাম যদি কখনো আমার ফরমায়েশ পালন করতে না পারো বিদেয় হবে। সে বলল আচ্ছা বাবু সে দেখা যাবে।

আমি বললাম আচ্ছা তুমি মরার পরে তোমার জগতে ফিরে যাচ্ছনা কেন?
আজ্ঞে বাবু আমি তো এখন ট্রেনিং এ আছি।আমাদের ভুতের যিনি রাজা তিনি আমাদের মৃত্যুর পর তিন মাস মানুষের উপকারের জন্য ট্রেনিং করতে পাঠিয়ে দেন তারপর মুক্তি।
বাহবা মৃত্যুর পড়েও তোমাদের এত কর্তব্য।
আজ্ঞে হ্যা বাবু।
আচ্ছা তুমি মারা গেলে কিভাবে?
সে অনেক কথা বাবু, আমি একদিন আধার রাতে বাড়ি ফিরছিলাম হঠাত করে নুরু ডাকাতের সাথে সাক্ষাত আর আমি চলে গেলাম যমের বাড়ি। নুরু ডাকাত আমার সমস্ত মালামাল টাকা পয়সা লুট করে নিয়ে গেল উপহার হিসাবে দিয়ে গেল মৃত্যু।আজ একটা ঘটনা ঘটেছ বাবু অনেকদিন পর আমি সেই নুরু ডাকাতের সাক্ষাৎ পাইলাম।
আমি বললাম কিভাবে?

বাবু সেও আমার মত মরে ভুত হয়ে গেছে, পুলিশের গুলিতে মরেছে বেটা বজ্জাত। মরে যাবার পরেও তার সেই দাপুটে ভাব এখনো যায়নি এখনো আগের মতই রেগে গিয়ে কথা বলে মানুষকে দিয়ে ফরমায়েশ খাটায়।কি ভয়ংকর দেখতে আমি তো বাবু দূর থেকে তাকে দেখেই ভয়ে পালিয়ে এসেছি।
আমি জানতে চাইলাম তা সেই ভয়ংকর নুরু ডাকাতও কি তোমার মত ট্রেনিং এ আছেন এখন।
আজ্ঞে হ্যা বাবু, বেটা বজ্জাত গোটা এলাকা দখল করে বসে আছে তার একচোখ নেই পুলিশের গুলিতে হারিয়ে গেছে। মৃত্যুর পড়েও সে তার ডাকাতিভাব নিয়ে বসে আছে। আজ রাস্তায় শুনতে পেলাম ল্যাংড়া মাসুদের সাথে তার নাকি মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। কেউ কাউকে ছাড়ার পাত্র নয় সে কি! লংকাকান্ড।অবশেষে ঝামেলা মেটাতে ঘটনাস্থলে হাজির হলেন ভুতের রাজা। শাস্তি হিসাবে নুরু ডাকাতকে সারা শহরের যত ময়লা আবর্জনা আছে সব পাহাড়ে নিয়ে গিয়ে ফেলার আদেশ করল আর ল্যাংড়া মাসুদকে দেয়া হল শহরের মেন হল গুলোকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার দায়িত্ব।

আমি খুব মনোযোগের সাথে বিপিনের কথা শুনছিলাম। এতদিন জেনে এসেছি মানুষ মৃত্যুর পর সর্গে অথবা নরকে চলে যায় এমন সামাজিক কাজেও যে ভুতেরা জড়িত আছে ভাবায় যায়না।আচ্ছা তোমার সাথে কখনো ল্যাংড়া মাসুদের সাক্ষাৎ হয়নি?

সে আর বলতে বাবু বেটা খাটাশ কোথাকার। আমি বাবু সেদিন স্টেডিয়াম থেকে ফিরছিলাম বাংলাদেশ পাকিস্তান খেলা দেখে হঠাত ধানমন্ডি ৩২ নাম্বার এসে দেখা হয়ে গেল ল্যাংড়া মাসুদের সাথে। বেটা বেচে থাকার সময় নির্ঘাত রাজাকার ছিল, কেননা সে পাকিস্তান এর জয়গান গাইছিল তখন।আমি রিক্সায় ছিলাম আমাকে নামানো হল এবং জোর করা হল পাকিস্তানের জয়গান গাওয়ার জন্য।আমি বললাম বাংলাদেশ ছাড়া আমি অন্য কারো সাপোর্ট করিনা অমনি গালে থপাস করে শব্দ হল ভাগ্যিস ভুতদের দাত পড়ে যায়না নয়লে সব গুলো দাত একসাথে পড়ে যেত।বাবু জানেন কিনা জানিনা ভুতদের একটা সুবিধা আছে সেটা হল তারা মরার পর কখনো আহারের প্রয়োজন হয়না, যানবাহনে চড়ার প্রয়োজন হয়না। আমরা ইচ্ছে করলেই সাহেব সেজে পাজেরো কিংবা বিএমডব্লিও তে বসে যেতে পারি।তবে সমস্যা হল এসির বাতাস বিকট দুর্গন্ধ সহ্য করতে পারিনা তাই আমি রিক্সায় চলাচল করি।মানুষজন বুঝতে পারে না যে তাদের পাশেই বসে আমি সারা শহর ঘুরে বেড়াচ্ছি।
আচ্ছা বিপিন একটা কাজ করতে পারবে?

কি কাম? ভুতরা সব করতে পারে নেশাপানি ছাড়া।এসব মানুষে খায় ছিঃ!!


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.






Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta