মাগুরায় প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাতে তরুণ হত্যা | Nobobarta

আজ বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
২০০০ শয্যার বসুন্ধারা করোনা হাসপাতালে সেবা প্রদান শুরু করোনা পরিস্থিতির অবনতি হলে ফের সাধারণ ছুটি আলোকদিয়ায় ৫শত অসহায় পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দিলেন এমপি দুর্জয় দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন : একইসঙ্গে আম্পান-করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ নওগাঁয় করোনা পরিক্ষার যন্ত্র স্থাপনের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান কমলগঞ্জে খাসিয়া সম্প্রদায়ের মধ্যে ফলজ ও সবজি বীজ বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক মুরাদনগরে ১১’শ ৪৮টি মসজিদে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের নগদ অর্থ বিতরণ আটপাড়া উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক বাজার মনিটরিং অব্যাহত নড়াইলে ভূমিহীনদের উচ্ছেদের প্রতিবাদে মানববন্ধন লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার ‘মূল ঘাতক’ নিহত
মাগুরায় প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাতে তরুণ হত্যা

মাগুরায় প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাতে তরুণ হত্যা

Rudra Amin Books

রাস্তায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে রিফাত শরীফকে হত্যা ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই একইরকম ঘটনা ঘটল মাগুরা শহরতলীর বাটিকাডাঙ্গা এলাকার মর্ডান মোড়ের রাস্তায়।
আজ রোববার (০৮ জুলাই) দুপুরে সেখানে প্রকাশ্যে লিসান (১৮) নামে এক তরুণ ক্রিকেটারকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করার ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় লিসানের বন্ধু দিপু গুরুতর আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। নিহত লিসান আঠারোখাদা ইউনিয়নের মঠবাড়ি এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি সরকারি হোসেন শহীদ কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কলেজ শেষে মোটরসাইকেলে ৩ বন্ধুকে নিয়ে ঘুরতে বের হয় লিসান। তারা বাটিকাডাঙ্গা এলাকার শিবরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌঁছলে ওই গ্রামের টিপু মিয়ার ছেলে সোহেল তাদের মটর সাইকেল থামিয়ে বুকে ও পেটে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে। এ সময় বাধা দিতে গেলে বন্ধু দিপুও গুরুতর আহত হয়। ঘটনার পরপর তাদের মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হলে দুপুর দেড়টার দিকে তার মৃত্যু হয়। লিসানের ওপর হামলার উদ্দেশ্য সম্পর্কে পুলিশ বা এলাকাবাসি সঠিক কোন ধারণা দিতে পারেনি। তবে হামলাকারি সোহেল ও তার পরিবারের সঙ্গে অপরাধ জগতের সংশ্লিষ্টতার অনেক তথ্য জানা গেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সোহেলের বাবা টিপু এবং চাচা লিপু অতীতে যশোরে বসবাস করতেন। সেখানে বিভিন্ন অপরাধ কর্মের সঙ্গে তারা জড়িয়ে পড়েন। যে কারণে বছর পনের আগে তারা সেখান থেকে লুকিয়ে মাগুরা চলে আসেন। বাড়ি তৈরি বসবাস করছিলেন শিবরাপুর গ্রামেই। কিন্তু এখানেও পরিবারটি নানা বিরোধে জড়িয়ে পড়ে। প্রায়ই বিভিন্ন থানা থেকে পুলিশ তাদের পরিবারের কাউকে না কাউকে আটক করে নিয়ে যায় বলে দেখা যায়।

এ বিষয়ে মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পরপর পুলিশের সবকটি ইউনিটকে একটিভ করা হয়েছে। হত্যাকাণ্ডে সঙ্গে জড়িত অপরাধীকে আটক করতে শহর থেকে বেরিয়ে যাবার প্রতিটি পয়েন্ট সিল করে দেয়া হয়েছে। আশা করি খুব শিগগিরই তাকে আটক করা সম্ভব হবে।


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.






Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta