পুরুষেরা কেন সংসার ত্যাগ করে | Nobobarta

আজ শুক্রবার, ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১১:১৮মি:

পুরুষেরা কেন সংসার ত্যাগ করে

পুরুষেরা কেন সংসার ত্যাগ করে

এম মনসুর আলী : বোধোদয় হওয়ার পর থেকেই দেখে আসছি নারী নির্যাতন নিয়ে শালিস, বৈঠক, মামলা মোকদ্দমা, পত্রিকার হেড লাইন, টেলিভিশন টকশো ইত্যাদি ইত্যাদি। তবে কি জগৎ সংসারে শুধুই নারী তাদের স্বামীর দ্বারা নির্যাতিত হচ্ছেন? পুরুষ কি নারীর দ্বারা নির্যাতিত হন না? বিভিন্ন মামলার পর্যালোচনা, বর্তমান প্রেক্ষাপট এবং ইতিহাস থেকে জানা যায় সমাজের অনেক পুরুষ তার নিজ ঘরে প্রতিনিয়ত নির্যাতিত হচ্ছেন। নিজ ঘরে নির্যাতিত এক গীতিকবি দুঃখ করে লিখেছেন ‘ আমার ঘরে আমি মেম্বার আমার বউ চেয়ারম্যান’।

সমাজে অনেক পুরুষই স্ত্রীর যন্ত্রণায় নীরবে কাঁদেন। লোকচক্ষুর আড়ালে গিয়ে চোখ মোছেন; কিন্তু দেখার কেউ নেই। বলারও উপায় নেই। বিশ্ববিখ্যাত দার্শনিক সক্রেটিস তাঁর কলহপ্রিয় স্ত্রীর সাহচর্য থেকে আত্মরক্ষার জন্য দূরে সরে গিয়ে এথেন্স শহরের কোন গাছের তলায় বসেই তাঁর দার্শনিক তত্ত্ব প্রচার করতেন। তৃতীয় নেপোলিয়ন স্ত্রী অত্যাচার থেকে আত্মরক্ষার জন্য অপর এক মহিলার কাছে গোপনে অভিসার করে শান্তি পেতেন।

আমার পরিচিত একজন ভদ্রলোক বলেছেন যে তার সংসার জীবন তার অবাধ্য স্ত্রীর জন্য নষ্ট হতে চলেছিল। তার স্ত্রী তার কথা শুনতো না। প্রতিদিনই তার সাথে খারাপ ব্যবহার করতো। শেষ পর্যন্ত ভদ্রলোক অপারগ হয়ে তার স্ত্রীকে তালাক দিতে বাধ্য হয়। তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এই মেয়েটি প্রথমা স্ত্রী যা করতে ব্যর্থ হন তাই করে – স্বামীর সমস্ত কাজে সহযোগিতা করে। ফলে তাদের পারিবারিক জীবনে শান্তি নেমে আসে। স্বামী চেয়েছিলেন কিছু সহানুভূতি আর ভালোবাসা যা প্রথমা স্ত্রী একেবারেই স্বামীকে দিতে পারেনি।

লিও টলস্টয়কে তো সবাই চিনেন। তিনি ছিলেন সর্বকালের একজন শ্রেষ্ঠ ঔপন্যাসিক। তাঁর অমর সৃষ্টি ‘ওয়ার এন্ড পীস ‘ এবং আনা কারেনিনা ‘ চিরকাল ধরেই পৃথিবীর সাহিত্য্যাকাশে উজ্জ্বল হয়ে থাকবে। সেই খ্যাতিমান লিও টলস্টয়ের সাংসারিক জীবন ছিলো দুঃখে ভরা। আর এর জন্য দায়ী ছিলো তাঁর স্ত্রী। তাঁর স্ত্রী বিলাসিতা পছন্দ করতেন কিন্তু টলস্টয় সেটা ঘৃণা করতেন। তাঁর স্ত্রী চাইতেন টাকা পয়সা আর সম্পদ আর তিনি ভাবতেন ধনদৌলত এবং ব্যাক্তিগত সম্পত্তি রাখা পাপ।
টলস্টয়ের স্ত্রী সারাদিন ঘ্যানর ঘ্যানর করতেন,চিৎকার দিয়ে গালাগাল করতেন। শ্রী মতি টলস্টয় এসব সহ্য করতে না পেরে পাগলের মত চিৎকার করে গড়াগড়ি খেয়ে আফিম খেতে যেতেন। তিনি একবার শপথ করেছিলেন আত্মহত্যা করবেন। আত্মহত্যার জন্য তিনি একবার কুঁয়োয় ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। স্ত্রীর অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে তুষারপাতে আচ্ছন্ন এক রাতে তিনি গৃতত্যাগ করে চলে যান। এগারো দিন পর রেল স্টেশনে তাঁকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। মৃত্যুর আগেই তিনি স্বজনদের বলে গিয়েছিলেন তাঁর মৃত দেহের সামনে যেন তাঁর স্ত্রীকে আসতে দেয়া না হয়। টলস্টয়ের স্ত্রী কাউন্ট মৃত্যুর আগে তিনি তার মেয়েদের কাছে স্বীকার করে গিয়েছিলেন যে তার স্বামীর মৃত্যুর জন্য তিনিই দায়ী।

Rudra Amin Books

আব্রাহাম লিংকনের জীবনের দুঃখময় অধ্যায়েরও একই কারণ।তাঁর হত্যাকাণ্ড নয়,তাঁর বিয়ে।বুথ যখন গুলি করে, লিংকন বুঝতেই পারেন নি তাঁকে গুলি করা হয়েছে। কিন্তু তিনি তেইশ বছর ধরে অনুভব করেছেন তাঁর বিবাহিত জীবনের বিষাক্ত জ্বালা। প্রায় এক শতাব্দীর এক চতুর্থাংশ ধরে মিসেস লিংকন ঘ্যানর ঘ্যারণ করে তাঁর জীবনকে বিষাক্ত করে তুলেছিলেন। মিসেস লিংকনের গলার স্বর ছিলো কর্কশ। একবার কোন কারণে লিংকনের কথায় ক্ষিপ্ত হয়ে মিসেস লিংকন সবার সামনেই তার স্বামী মুখের উপর গরম কফির কাপ ছুঁড়ে মারেন। কোন কথা না বলে লিংকন লজ্জিত হয়ে চুপচাপ বসে থাকেন। আর গৃহকর্ত্রী একটা তোয়ালে এনে তাঁর মুখ আর পোশাক মুছে দেন। স্ত্রীর এই সব আচরণে লিংকন বাড়ি থাকতে চাইতেন না। ভয় পেতেন। শীত আর বসন্ত কালের তিনটি মাস তিনি অন্য জায়গায় থাকতেন। অনেক স্ত্রীই ঘ্যাণর ঘ্যাণর করে কিংবা স্বামী অবাধ্য হয়ে নিজেদের বিবাহিত জীবনের সমাধি খুঁড়েছেন।

কবি জীবনানন্দ দাশও সংসার জীবনে সুখী ছিলেন না। অনেক জীবনানন্দ গবেষকদের ধারণা তিনি স্ত্রী লাবণ্য দাশের মানসিক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে সংসার ত্যাগের উদ্দেশ্যে ঘরে থেকে বেড়িয়ে শেষে সিদ্ধান্ত হীনতায় ভোগাতে ভোগাতে ট্রামের নীচে পড়ে আত্মহত্যা করে ছিলেন। আমার পরিচিত কবি একাত্তর চৌধুরী স্ত্রীর নির্যাতন সহ্য করতে না আলাদা বাসা নিয়ে একাকী জীবনযাপন করছেন।

কোন লোকের সাংসারিক জীবনের আনন্দ নির্ভর করে তার স্ত্রীর মেজাজ আর চরিত্রের প্রকৃতির উপর। কারো সুন্দরী স্ত্রী নানারকম সদগুণের অধিকারিণী হলেও যদি তার মেজাজ ভালো না হয়, সে যদি স্বামীর অবাধ্য হয়, যদি কলহপ্রিয় হয় বা ঈর্ষাপরায়ণ হয় তাহলে তাদের সব আনন্দই মাটি হয়ে যায়। স্বামী সংসার ত্যাগ করতে অথবা সংসার ভেঙ্গে দিতে বাধ্য হয় কিংবা পরকিয়ায় লিপ্ত হয়।

এম মনসুর আলী, লেখক – সাংবাদিক ও মানবসেবী

আপনার মতামত লিখুন :


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সংরক্ষণাগার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta