অ । ণু । গ । ল্প । - একটি সাক্ষাৎকার | Nobobarta

আজ শুক্রবার, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, রাত ৮:১৫মি:

অ । ণু । গ । ল্প । – একটি সাক্ষাৎকার

অ । ণু । গ । ল্প । – একটি সাক্ষাৎকার

সৈয়দ আহসান কবীর : জন নিবারসন তরুণ কবি। তরুণ মানে- শব্দসাধনায় নবীন না, আবার বুড়োও না। সাহিত্যজীবীদের কঠোর সমালোচকও বটে! তুলোধুনা করে ছাড়েন; শব্দসাধকদের ক্ষেতে ডিজিটাল কীট বিবেচনা করেন। মফস্বল ও একটি জাতীয় দৈনিকের সাহিত্যপাতার দায়িত্বে রয়েছেন। তবে মফস্বলের সোদা মাটির গন্ধমাখা কবিতা, পাখির কলকালিতে শব্দের কিচিরমিচির, নদীর বহতায় সুদূরের আহ্বান, জোছনায় প্রেমের হাতছানি কিংবা অমাবস্যায় জোনাকের তারাবাতিই তার পছন্দ। নবীনদের মধ্যে কে কোথায় ভালো লিখছে মফস্বল থেকে খুঁজে বের করার চেষ্টা অনেকের কাছে চোখ ধাঁধাঁনোর মতো। শব্দসাধনায় এটা নাকি কাব্যের প্রতি জন নিবারসনের দায়! তাই দায়টি কাঁধে নিয়ে ঘুরে বেড়ান তিনি। যা নাকি খুব ভারি। এধরনে কাজ না করেও অনেকে তাকে ঈর্ষা করেন। বিশেষ করে সমসাময়িকরা। তারা ভাব ধরে থাকেন, নিবারসন ভাব ছেড়ে থাকেন। থোরাই কেয়ার করেন ঈর্ষা ও ভাবের। শব্দকে যারা বোঝে আর যারা বুঝতে চায়- তারা নিবারসনের এসব বৈশিষ্ট্যের কারণেই দারুণ পছন্দ করেন। বিশেষ করে নবীনরা।

প্রবাসী এক কবির মনে হলো- নিবারসনের সাহিত্যভাবনা, তার শুরু ও কাজের অভিজ্ঞতার ওপরে সাক্ষাৎকার নেবেন। কোভিড উনিশের এই সময়ে নানা ধরণের লাইভ অনুষ্ঠান চলছে। সময় কাটাতে আর অল্প সংখ্যক মানুষ কিছু জানতে বেশ বসে কষে লাইভে ডুবে থাকতে দেখা যাচ্ছে। প্রবাসী কবি লাইভে সাক্ষাৎকারের কাজটি সারতে চাইলেন। মফস্বল কেন্দ্রিক লেখালেখি ও বহমান সাহিত্যের বর্তমান প্রেক্ষাপট নিয়ে কথা হবে জেনে নিবারসনও রাজী হলেন।

নির্ধারিত রাতে নিবারসনের বন্ধুদের কয়েকজন লাইভের শুরু থেকে অতি আগ্রহে বসে রইলেন, বিশেষ করে লিখিয়ে বন্ধুরা। তাদের একজন আবার অতি উৎসাহী! রাতের খাবার আগেই সেরে নিয়ে ফ্লাক্স ভর্তি চায়ের কাপ গুছিয়ে বসলেন। সঙ্গে সিগারেটের সোনালি প্যাকেট আর দেয়াশলাইয়ের কাঠিঘরও। তিনিও কবিতার মতো কিছু লিখতে চেষ্টা করেন। বেশ কয়েক বছর নামিদামি সাহিত্য-সংগঠনের বিশেষ দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়েছেন। তাকে কবি ডাকতেই গলে পড়তে দেখেছেন নিবারসন। ভালো বন্ধু হলেও কখনো কবি ডাকেননি তিনি। তবে তার লেখা যে কবিতা হয়ে উঠছে না তা বলার চেষ্টা করেছেন। সঙ্গে কোন কোন বিষয়ের প্রতি সাধনা বা জানার আগ্রহ বাড়াতে হবে- তাও বলেছেন। এতে উপর উপর বেশ খেদ প্রকাশ করে অতি উৎসাহী বন্ধুটি। তবে মনে মনে উপকারী পরামর্শ ভেবে নিবারসনকে ধন্যবাদ দেয়।

লাইভ শুরু। জন নিবারসনের লেখালেখি শুরুটা থেকেই শুরু হলো। অতি উৎসাহী বন্ধু লাভ রিয়্যাক্ট দিয়ে লিখলেন- ভালো হচ্ছে। লেখালোখির প্রেরণা নিয়ে কাটলো কিছুক্ষণ। সেই বন্ধু ফের লাভ রিয়্যাক্ট দিয়ে লিখলেন- প্রাণবন্ত। রাজধানী কেন্দ্রিক লেখালেখি ও বর্তমান সাহিত্যসম্পাদকদের যখন ছিলে ছাড়ছিলেন নিবারসন, তখন তার বন্ধু ‘দারুন, দারুন’ বলে লাফিয়ে উঠলেন। উত্তেজনায় সোনালি প্যাকেট থেকে একের পর এক সিগারেট টানতে থাকলেন। পরে এলো মফস্বলের নবীনদের প্রসঙ্গ। অন্যান্য জেলার কিছুটা ছুঁয়ে পরে নিজ জেলার নবীন লিখিয়েদের নামে যখন জন নিবারসনের ঠোঁটে খই ফুটছিলো এবং বলা হচ্ছিলো- এদের কথা অনেকেই জানেন না, জানতে য্যানো চানও না, অথচ খুব ভালো লিখছে লেখার বয়স প্রেক্ষিতে। কবির বন্ধু তখন কমেন্ট বক্সে লাভ, ওয়াও রিয়্যাক্ট; স্যালুট-ক্লাপিং ইমোজি ছড়িয়ে ভরিয়ে তুললেন। লিখলেন- এক্সিলেন্ট।

Rudra Amin Books

এবার এলো মফস্বলের তরুণ-প্রসঙ্গ। কবির বন্ধুর উত্তেজনা এখন আরো তুঙ্গে- এই তো কবি আয়না শর্মার নাম বলেছে নিবারসন, অণুগল্পকার আজাদ শামসের কথাও। ও-ওই তো সুলতানা সরকারের নামও বললো, হুমায়ূন রেজার কথাও…

কবি জন নিবারসনের বন্ধু নাম শুনছেন, আর এক হাতে চেপে চেপে ভালোবাসার অনুভূতি ওড়াচ্ছেন। ওড়াতে ওড়াতে এক সময় সমাপ্ত হলো সাক্ষাৎকার। নিজের নামটি না শুনতে পেয়ে লিখলেন- তুমি চুলের কবি, তুমি চুল জানো!

আপনার মতামত লিখুন :

ট্যাগস্:

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সংরক্ষণাগার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Design & Developed BY Nobobarta.com