শাবির পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ | Nobobarta

আজ বুধবার, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ১১:৪১মি:

শাবির পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ

শাবির পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দান তথা বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া ঐতিহাসিক ভাষণ একাডেমিক সিলেবাসে অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

‘স্বাধীন বাংলাদেশ অভ্যুদয়ের ইতিহাস’ শিরোনামে একটি কোর্সের অংশ হিসেবে এ ভাষণ পড়ানো হবে। গতকাল রবিবার (১৩ সেপ্টেম্ব)র অনলাইনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬০তম একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদ।

উপাচার্য এ বিষয়ে বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুসারে ও হাইকোর্টের নির্দেশনায় বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে প্রত্যেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত করতে বলা হয়। এর আলোকে পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্তির জন্য ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণসহ ‘স্বাধীন বাংলাদেশ অভ্যুদয়ের ইতিহাস’ শিরোনামে একটি কোর্স ডিজাইনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে কোর্সটিতে কি কি অন্তর্ভুক্ত হবে, কত ক্রেডিটের হবে, কীভাবে পড়ানো হবে তা নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। আমরা এ কোর্সের আউটলেট ডিজাইন করতে একটি কমিটি করে দিয়েছি। তারা কাজ সম্পন্ন করার পর একাডেমিক কাউন্সিলে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. ফয়সল আহম্মদকে সভাপতি করে ৭ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আশফাক হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আবু দেলোয়ার হোসেন, শাবির বাংলা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. আশ্রাফুল করিম, পলিটিক্যাল স্টাডিজ বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. জায়েদা শারমিন, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. লাইলা আশারাফুন, সমাজকর্ম বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মো. ইসমাইল হোসেন।

Rudra Amin Books

এ বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য ও বাংলা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. আশ্রাফুল করিম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ভাষণ এখন শুধু একটা বক্তব্য না। এটি একটি গল্প, একটি কবিতা, একটি ঐতিহাসিক দলিল। এ ছাড়া এটা বিশ্ব ঐতিহ্যেরও অংশ। যা ২০১৭ সালে এটি বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে ঘোষণা করেছে ইউনেস্কো। এমনকি বিশ্বের ৪১টি ঐতিহাসিক ভাষণের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ অন্যতম। আমাদের সম্পদ হিসেবে এ ভাষণ প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জানা উচিত। এ জন্য আলোচনার ভিত্তিতে এটি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

উল্লেখ্য, ইতোমধ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (তৎকালীন রেসকোর্স ময়দান) স্বাধীনতাকামী ৭ কোটি মানুষকে যুদ্ধের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম- এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ তার ওই ভাষণের ১৮ দিন পর পাকিস্তানি বাহিনী বাঙালি নিধনে নামলে বঙ্গবন্ধুর ডাকে শুরু হয় প্রতিরোধ যুদ্ধ। ৯ মাসের সেই সশস্ত্র সংগ্রামের পর আসে বাংলাদেশের স্বাধীনতা।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সংরক্ষণাগার

Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta