মাভাপ্রবিতে দূর্যোগ প্রশমনের উপর আইডিয়া শেয়ারিং প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত | Nobobarta

মাভাপ্রবিতে দূর্যোগ প্রশমনের উপর আইডিয়া শেয়ারিং প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

পড়ার সময়:7 মিনিট, 10 সেকেন্ড

সাইফুল মজুমদার, মাভাবিপ্রবি প্রতিনিধি: মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (মাভাবিপ্রবি) আন্তর্জাতিক সংগঠন ইয়াস বাংলাদেশ মাভাবিপ্রবির উদ্যেগে দূর্যোগ প্রশমনের উপর আইডিয়া শেয়ারিং প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এ প্রতিযোগিতায় দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ৯টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিযোগীরা অনলাইনের মাধ্যমে যুক্ত হন।

বুধবার (১৪ অক্টোব) আন্তর্জাতিক দূর্যোগ প্রশমন দিবস উপলক্ষে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। শেরে-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস্, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়,রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, আমেরিকান ইন্টারনেশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষার্থীরা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন।

প্রতিযোগিতায় ১ম স্থান অধিকার করেছেন বিউপির (বাংলাদেশ ইউনির্ভাসিটি অফ প্রফেশনালস্) ডিজাস্টার এন্ড হিউম্যান সিকিরিউটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সায়মা বিনতে সুলতান। তিনি নদী ভাঙ্গনের ক্ষয়ক্ষতি কমাতে একটি সমন্বিত পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন। প্রতিযোগীতায় ২য় স্থান অধিকার করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট এন্ড ভালনারেবিলিটি স্টাডিজের মাস্টার্স ১ম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী মাসুমা মরিয়ম। তিনি নদী ভাঙ্গনের ক্ষয়ক্ষতি কমাতে Dolos Grass Concrete Lining নামক নতুন একটি পদ্ধতির কথা উপস্থাপন করেন যা একই সাথে টেকসই, পরিবেশবান্ধব ও সহজে বাস্তবায়নযোগ্য। প্রতিযোগীতায় ৩য় স্থান অর্জন করেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স বিভাগের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী মোঃ ইসমে আজম বাঁধন।তিনি বন্যা মোকাবেলায় স্বল্প খরচে flood barrier (বন‌্যা প্রতিবন্ধক) তৈরির ধারণা উপস্থাপনা করেন।

অনলাইনে আয়োজিত এই প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এর প্রক্টর অধ্যাপক ড. মোঃ সিরাজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মাভাবিপ্রবির এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের (ইএসআরএম) অধ্যাপক জনাব ড. মো. ইউনুস মিয়া, ইয়াস বাংলাদেশের ন্যাশনাল ডিরেক্টর সালেহা খাতুন রিপ্তা, ইয়াস বাংলাদেশের প্রাক্তন ন্যাশনাল ডিরেক্টর তানজিমুল ইসলাম রিফাত। প্রতিযোগিতায় বিচারকের আসন গ্রহণ করেন মাভাবিপ্রবি’র ইএসআরএম বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. রোখসানা হক রিমি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট এন্ড ভালনারেবিলিটি স্টাডিজের শিক্ষক জনাব মোঃ জুয়েল মিয়া এবং বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষক মেহনাজ আব্বাসী বাঁধন।

Rudra Amin Books

ইয়াস বাংলাদেশ মাভাবিপ্রবির ক্যাম্পাস ডিরেক্টর উম্মে হানি রিয়া বলেন ‘ ইয়াস বাংলাদেশ মাভাবিপ্রবি ইয়াস বাংলাদেশের (ইন্টারনেশনাল এসোসিয়েশন অব স্টুডেন্টস ইন এগ্রিকালচারাল এন্ড রিলেটেড সাইন্সেস বাংলাদেশ) একটি শাখা। শুরু থেকে ইয়াস বাংলাদেশ মাভাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতা বিকাশে উৎসাহিত করে আসছে। এছাড়া দূর্যোগ মানুষের পাশে দাঁড়ানো, পরিবেশ সংরক্ষণে মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি ও শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা বিষয়ক বিভিন্ন স্কলারশিপ বিষয়ে ধারণা দিয়ে আসছে। ইয়াস বাংলাদেশ মাভাবিপ্রবির স্বপ্ন কৃষকদের নিয়ে কাজ করার। সৃজনশীলতা বিকাশে ইয়াস বাংলাদেশ মাভাবিপ্রবির নানা কার্যক্রম ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে’।

উল্লেখ্য, ভৌগলিক কারণেই বাংলাদেশ একটি দূর্যোগপ্রবণ দেশ। এছাড়া জলবায়ু পরিবর্তন এর কারণে প্রতিবছরই বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের দূর্যোগের প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার ফলে বাংলাদেশের জনসংখ্যার বিরাট একটি অংশ অর্থনেতিক ও সামাজিকভাবে প্রতিবছরই বড় ধরণের ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। এ বছরও সুপার সাইক্লোন ক্যাটাগরির ঘূর্ণিঝড় আম্ফান বাংলাদেশে আঘাত হানে। এর রেশ কাটতে না কাটতেই দেশজুড়ে বন্যা অবস্থার ভয়াবহ অবনতি ঘটে। এছাড়া দেশের মানুষ প্রায় ৭ মাস যাবত কোভিড-১৯ নামক মহামারীর মধ্যে জীবন অতিবাহিত করছে। মূলত প্রাকৃতিক দূর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি ও ঝুঁকি কমানোর জন্য নতুন চিন্তার বিকাশ এবং তা সকলের সামনে উপস্থাপন করার লক্ষ্য নিয়ে আই ইয়াস বাংলাদেশ মাভাবিপ্রবি (IAAS Bangladesh MBSTU) এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। বন্যা, নদী ভাঙ্গন, ভূমিকম্প, কোভিড-১৯ সহ বিভিন্ন দূর্যোগ মোকাবেলায় প্রতিযোগীরা তাদের চিন্তা ভাবনা ও আইডিয়া উপস্থাপন করেন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

0 Shares
Share
Tweet
Share
Pin