একাকীত্ব আর নিঃসঙ্গতা এক নয় | Nobobarta

আজ রবিবার, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১১:০২মি:

সংবাদ শিরোনাম:
একাকীত্ব আর নিঃসঙ্গতা এক নয়

একাকীত্ব আর নিঃসঙ্গতা এক নয়

নির্মল ধর, ভারত : রাম কমল মুখুজ্জে ছিলেন আমার ভ্রাতৃসম সাংবাদিক। মুম্বাইয়ের জলহাওয়া পেয়ে এখন দুর্মর এক ফিল্ম পরিচালক। ওঁর আগের ছোট দৈর্ঘ্যের ছবিগুলো দেখার সুযোগ ঘটেনি। এই প্রথম দেখলাম বড় দৈর্ঘ্যের ছোট ছবি “Season’s Greetings”. বলতে পারি “শুভ অভিনন্দন।” শুরু থেকেই বেশ টানটান চিত্রনাট্য, crispy, মুচমুচে।

ঋতুপর্ণ ঘোষের জীবন ধারণ, জীবন দর্শন, এমিনকি ওঁর লেখা একটি গানের লাইন থেকে বীজ নিয়ে, রাম কমল একেবারেই নিজস্ব ভাবনার মিশেল দিয়ে মৌলিক গল্পটি সাজিয়েছেন। সেই সাজানোর মধ্যেও বারবার এদিক ওদিক থেকে উঁকিঝুঁকি মেরে যান ঋতুপর্ণ। অবশ্য ছবির শুরুতেই তাঁর স্মৃতিতে ছবিটি উৎসর্গীকৃত জানানো হয়েছে।পনের বছর বিচ্ছিন্ন বাবা ও মা। কেন সেটা তরুণী মেয়ে রোমিতা জানেনা। সেও একা লিভ ইন করে মুসলিম প্রেমিক উসমানের সঙ্গে। শিক্ষিতা, স্বাধীন, খোলামনের দুজনেই। বাবার কোনো খোঁজ নেই। ফোনে কচিত যোগাযোগ। নাচ গান ভালোবাসেন মা। তিনিও একা। মেয়ের সঙ্গে যোগ আছে, স্বামীর সঙ্গে নেই।

কেন, সেকারণ উহ্য। তবে মা নিঃসঙ্গ, নাকি একাকী – এটা নিয়ে মেয়ের মধ্যে এক দোলাচল রয়েছে। অনেকদিন পর নিজের live-in পার্টনারের সঙ্গে মায়ের পরিচয় করাতে মেয়ে আসে বাড়িতে। পারস্পরিক কথাবার্তার সূত্রে শেষমুহূর্তে স্পস্ট হয় মা-বাবার বিচ্ছেদের কারন, মা একা, কিন্তু নিসঙ্গ নন, সেটাও বোঝা যায়, যখন ঘরে ঢোকেন রোমিতার নাচের শিক্ষিকা মায়ের ‘বিশেষ বন্ধু’.
এরপর মা-মেয়ের সম্পর্ক কি একই রকম থাকবে, নাকি অন্য কোনো মোড় নেবে- সেটা জিজ্ঞাসা চিহ্নের মতো ঝুলে থাকলো ক্যামেরার সামনে। কারণ বাবার প্রতি রোমিতার ফ্রয়েডিযান দুর্বলতা ছিলই। মা কিন্তু মেয়ে বন্ধুর সঙ্গে খুবই স্বাভাবিক।

চিত্রনাট্যের সাজানোর গুনে গল্প এতটুকু চ্যুত হয়নি লক্ষ্য থেকে। রবীন্দ্রনাথের গানটির অনুকরণে ঋতুপর্নোর লেখা গানটির প্রায় পুরো ছবি জুড়ে আবহ হিসেবে ব্যবহার প্রতিটি দৃশ্যকে উত্তীর্ন করে দেয় নান্দনিক অনুভবের এক সুখী মাত্রায়। আর এটাই পরিচালক রাম কমলের কৃতিত্ব। তাঁর সংবেদনশীল অনুভাবী মনের পরিচয় দেয়। “সজনী সজনী রাধিকাল…” গানটি এই ছবির মেরুদন্ড, সুস্সুমনা, রক্ত ও হৃদস্পন্দন-সব। কলকাতার গায়িকা সায়ানি পালিত এর কন্ঠ এক ভিন্ন মাত্রা যোগ করেছে। গহন কুসুম কুঞ্জ গানটি কুমার শানু র পুত্র এবং রাম কমলের স্ত্রী সর্বাণী গেয়েছে। বেশ সুন্দর আবহ সঙ্গীত। মাত্র পঁয়তাল্লিশ মিনিটে তিনটি চরিত্রের অতীত-বর্তমানকে এমন পরিছন্নভাবে উপস্থিত করা খুব সহজ ছিলোনা।

রামকমল কিন্তু সহজেই করেছেন। সেজন্য অবশ্য ক্যামেরাম্যান,মিউজিক ডিরেক্টর,সমপাদক এবং প্রতিটি অভিনেতা দু হাত তুলে সাহায্য করেছেন বলেই সম্ভব হয়েছে। প্রথম দুটি নাম লিলিত দুবে ও সেলিনা জেটলি। মা ও মেয়ে হিসেবে genetically মানিয়েছেন সুন্দর। অভিনয়তেও বটেই।দুজনেই সমান সমান। নতুন মুখ আজহার খান মন্দ নয়। সুঠাম এবং সাবলীল। তবে এই ছবির নায়ক, তো গল্প ও পরিচালক!যেখানেই বাজিমাত করে দেয় “সিজনস গ্রিটিং”. দৈর্ঘ্যে ছোট্ট হলেও, মনে, প্রাণে বড় দৈর্ঘ্যের! রাম কমল, তুমি এগিয়ে যাও। তবে, বিষয় নিয়ে এবার অন্য কিছু ভাব- অন্তত এই সময়ের কিছু! যা তোমাকে বিব্রত করে।

Rudra Amin Books

লেখক : ভারতীয় চলচ্চিত্র সমালোচক এবং সম্পাদক, দৈনিক প্রতিদিন

আপনার মতামত লিখুন :


Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সংরক্ষণাগার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
Nobobarta © 2020 । About Contact Privacy-PolicyAdsFamily
Developed By Nobobarta