বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র বিমান চলাচলে চুক্তি স্বাক্ষর | Nobobarta

বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র বিমান চলাচলে চুক্তি স্বাক্ষর

পড়ার সময়:2 মিনিট, 56 সেকেন্ড

বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রে সরাসরি বিমান চলাচলের জন্য দুই দেশের সরকারের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে চুক্তি (এয়ার ট্রান্সপোর্ট এগ্রিমেন্ট) স্বাক্ষরিত হয়েছে। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে এ চুক্তি সাক্ষরিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ।

এই চুক্তির ফলে দুই দেশের মধ্যে বিমান চলাচলে আর কোনো বাধা থাকলো না। এ বিষয়ে পরবর্তীতে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানান বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ। বন্ধ হয়ে যাওয়া ঢাকা নিউইয়র্ক রুটে আবার ফ্লাইট চালুর প্রত্যাশা আগে থেকেই করছিলেন এভিয়েশন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছিলেন, টেকনিক্যাল কিছু সমস্যার সমাধান করতে পারলেই এ রুট আবার চালুর সম্ভাবনা রয়েছে।

ড্রিমলাইনার ‘আকাশবীণা’ প্রথমবারের মতো শাহজালাল বিমানবন্দরে অবতরণের পর বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পরিচালনা পর্যদের চেয়ারম্যান এয়ার মার্শাল (অব.) মোহাম্মদ ইনামুল বারী বলেছিলেন, নতুন প্রজন্মের উড়োজাহাজ বিমানের সার্বিক পরিবর্তন আনবে। সেবার মান বাড়বে। তিনি আরও বলেছিলেন, আর সুষ্ঠু বাণিজ্যিক পরিকল্পনার অংশ হিসেবে শাহজালালের ক্যাটাগরি পরিবর্তন হলেই আমরা প্রথমে টরেন্টো ও নিউইয়র্ক রুটে সেবা চালু করবো।

এর আগে, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জনেন্দ্র নাথ সরকার জানিয়েছিলেন, ১৯৯৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে সরাসরি উড়োজাহাজ যেত। সে ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের একটি অস্থায়ী অনুমতিপত্রের ভিত্তিতে এই উড়োজাহাজ চলত। ২০০৬ সালে সরাসরি উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে পরে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ‘এয়ার ট্রান্সপোর্ট এগ্রিমেন্ট’ স্বাক্ষরের প্রক্রিয়া শুরু হয় ২০১৩ সালে। ২০১৫ সালে এই চুক্তি স্বাক্ষরে মন্ত্রিসভা অনুমোদন দেয়।

Rudra Amin Books
ফেসবুক থেকে মতামত দিন

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

4 Shares
Share4
Tweet
Share
Pin