শেষবারের মতো পাগলী মায়ের কোলে হুমায়রা! - Nobobarta

আজ রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৫০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
মাভাবিপ্রবিতে পদার্থ বিজ্ঞানে গবেষণা শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ঐক্যবদ্ধভাবে গণতন্ত্র মুক্তির আন্দোলনে থাকতে হবে : নজরুল ইসলাম খান কিশোরি ধর্ষনের অভিযোগে ঘিওরে কথিত সাংবাদিক কামাল গ্রেপ্তার পুঠিয়ায় জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে পুরুষের দায়িত্ব ও ভূমিকা বিষয়ক আলোচনা সভা লিসা’র হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া গণতন্ত্র মুক্তি পাবে না : খন্দকার লুৎফর জাবি উপাচার্যকে ‘অবাঞ্ছিত’ ঘোষণা করে কালো পতাকা প্রদর্শন আন্দোলনকারীদের মোহামেডানসহ ৪ ক্লাবে জুয়ার বর্ণাঢ্য আয়োজন জবিতে শুরু হচ্ছে আন্ত:বিশ্ববিদ্যালয় বিজনেস কেইস কম্পিটিশন আবৃত্তিকার কামরুল হাসান মঞ্জু’র মৃত্যুতে জাতীয় মানবাধিকার সমিতির শোক
শেষবারের মতো পাগলী মায়ের কোলে হুমায়রা!

শেষবারের মতো পাগলী মায়ের কোলে হুমায়রা!

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  

ভাবলেশহীন মা তাকে কোলে তুলে নিয়ে পাথর শরীরে বসে আছেন। সে কোলে কোন দুলুনি নেই, চাঁদ মামাকে নিয়ে কোন ঘুমপাড়ানি গান নেই, আমার সোনা … আমার যাদু শব্দ ছুড়ে সন্তানের প্রতি দেখানো কোন আদিখ্যেতা নেই…
নেই মায়ের স্বর্গীয় উষ্ণ চুমু।

তবুও শেষবারের মত মায়ের কোলে উঠে ‘পাগলীর মেয়ে’ খ্যাত হুমায়রা মায়ের দিকে টিপটিপ করে চেয়েছিল বার কয়েক… যেন পৃথিবীর সব কষ্টগুলো এক করে মাকে তার করুণ জিজ্ঞাসা… ‘তোমার সাথে আমার আর দেখা হবে না মা? আমাকে তুমি আর পাথর শরীরে কোলে নেবে না? আমাকে বদলে যাওয়া ঠিকানায় নিয়ে যেতে একবারও বাঁধা দেবে না তুমি?’ না, হুমায়রার মা বাঁধা দেননি একটুও। নিজের নাড়ি ছেঁড়া ধনকে চিরতরে দূরে সরিয়ে দেয়ার করুণ সময়ে ড্যাবড্যাব চোখে চেয়ে থেকেছেন মাত্র। তার সামনে দিয়েই অন্যের কোলে চড়ে হুমায়রা চলে গেল অন্য ঠিকানায় অন্য পরিচয়ে…

আশেপাশের দু’এক জন গুমরে কেঁদে উঠেছেন। বড় বড় দীর্ঘশ্বাস আছড়ে পড়ছিল হাসপাতালের চার দেয়ালে। যে চার পাঁচজন যুবক এতদিন এই হুমায়রা আর তার পাগলী মাকে নিয়ে নিজেদের ক্ষণিকের সংসার সাজিয়েছিলেন…তারা এখন নিথর… ! তাদের পাথর চোখ বেয়ে নেমে আসা নোনাজল সাক্ষ্য দিচ্ছে ‘তারা এ স্বল্প সময়ে কত নিখাদ ভালবাসায় ডুবিয়ে রেখেছিল এ পাগলী আর তার মেয়েটিকে।’ এতকিছুর পরও ভাবতে ভাল লাগছে, হুমায়রার এখন গর্ব করার মত একটি পরিচয় পেয়ে গেল। হুমায়রা এখন শহরের স্বনামধন্য জেলা জজ এর কন্যা!

আচ্ছা, কেমন থাকবে ও সেখানে? এমন প্রশ্নে হাস্যজ্জ্বল জজ দম্পতির চওড়া হাসি কান পর্যন্ত পৌছে যায়। ‘আমাদের তো ও ছাড়া আর কেউ নেই! একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারের একমাত্র কন্যা যেমন থাকে, তেমনি থাকবে ও। আজ থেকে আমাদের সব স্নেহ-ভালবাসাসহ সবকিছুই তো ওর।’ এখানেই হয়তো মানবতার বিজয়, এখানেই হয়ত মানুষের মানুষ সত্বার বিজয়… এখানেই হয় তো পরম করুণাময়, রাহমানুর রাহিমের চাক্ষুষ আলৌকিকতা। বলতে চাওয়া আমাদের প্রতি ‘দেখো আমি মানুষের ভাগ্য কত সহজে বদলে দিতে পারি’ রাতে যে পথের ভিক্ষারির মেয়ে সকালে সে জজের কণ্যা! হে মহান তোমার প্রতি কৃতজ্ঞতা।

ও হ্যাঁ, ভালো কথা। হুমায়রার পাশাপাশি হুমায়রার মাও একটা নতুন ঠিকানা পেয়েছে। পাগল প্রিয় শামীম ভাই তার ঠিকানা বদলে দিচ্ছেন। এখন থেকে সুস্থ হওয়া অবধি পাগলী মা থাকবে তার ইনটেনসিভ কেয়ারে। আসুন এবার সবাই মিলে একটা হাত তালি দেই? সবাই মিলে একবার উপরের দিকে তাকিয়ে বলি ‘আল্লাহ মহান, আল্লাহ সর্বশক্তিমান’।

নাকি এখনো গালাগাল চলবে ওই পিশাচটাকে নিয়ে ? উঁহু, কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না ভাই পৃথিবীতে অন্ধকারের চেয়ে আলো বেশী। খারাপ মানুষের চেয়ে ভাল মানুষ বেশী। খারাপ কাজের চেয়ে ভাল কাজ বেশী…। এ প্রিয় বাংলাদেশে থেকে অন্তত এমনি বিশ্বাস আমার…। তাই আসুন সুন্দরের জয়গান গাই…

ভালোবাসা রইল হুমায়রার জন্য। হুমায়রার পাগলি মায়ের জন্য। নতুন বাবা মায়ের জন্য। পাগলীর নতুন ভাই শামীম ভাইয়ের জন্য। পাঁচ মহান যুবকের জন্য। হুমায়রাকে নিয়ে মা হতে চাওয়া হাজার নারীর জন্য। আর আপনাদের জন্য। একটি কথাই বলব শুধু… ভালবাসি । ❤️❤️❤️❤️

(আমি করজোড়ে ক্ষমা প্রার্থনা করছি, সেই সব নারীদের কাছে, যারা হুমায়রাকে পেতে চেয়ে আমাকে কল করেছিলেন গত কয়েকদিন ধরে, এস এম এস করে গিয়েছেন প্রতি কয়েক মিনিট পর পর। প্রিয় বোনেরা, ভাইয়ের এ অক্ষমতাটুকুকে হয় একটু ক্ষমার চোখে দেখুন। নিশ্চয়ই আল্লাহ তার প্রিয় বান্দাদের কষ্টটুকু বোঝেন)

ওয়াজেদ মহান
২৫শে ফেব্রুয়ারি ২০১৮

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন


Leave a Reply