ভালোবাসা কি তাহলে আসলেই অপরাধ! - Nobobarta

আজ সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৫৮ অপরাহ্ন

ভালোবাসা কি তাহলে আসলেই অপরাধ!

ভালোবাসা কি তাহলে আসলেই অপরাধ!

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  

মেহেদি জামান লিজন : গ্রাম থেকে জীবনযুদ্ধ করে অনেক ঘাত প্রতিঘাত অতিক্রম করে এক জন বীরমুক্তিযোদ্ধা কৃষক বাবার ছেলে আজ দেশের একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। হ্যাঁ, আমি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান বিভাগের সাবেক অধ্যাপক বর্তমান জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এএইচএম মোস্তাফিজুর রহমানের কথা বলছি।

যিনি জীবনযুদ্ধে সফল এক মানুষ। মায়ের দোয়া ও তার সফলতার মূলমন্ত্র ভালোবাসা দিয়ে আজ এত দূর এসেছেন। ভালোবাসা দিয়ে জয় করেছেন প্রতিটা বাধা বিপত্তি। তিনি চেয়েছেন ভালোবাসা বার্তা সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিতে। প্রায় দুই বছর হল তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিভাবক হয়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিজের সন্তানের মত দেখেন। কোন শিক্ষক, কর্মকর্তা- কর্মচারীর সকলের সাথে হাসি মুখে কথা বলেছেন। এক জন অভিভাবক, এক জন বাবা, এক জন সাদা মনের উপাচার্য যখন মনের ভিতর কোন কুটিলতা না রেখে সহজ ভাষায় বলে ফেলে আপনাকে কিংবা আপনাদের ভালোবাসে তখন সেটাকে নিয়ে আমরা প্রকাশ্য ব্যাঙ্গ করি। কিন্তু এক বার ভেবেছেন কি প্রশাসনের দায়িত্ব গ্রহণ করলে সব কিছুই একটা নিয়মের ভিতর দিয়ে যেতে হয়। আমরা চাইলাম আর পেয়ে গেলাম এই নিয়মটা যে কত কঠিন তা এক জন প্রশাসকই জানেন। এমন অনেকে আছেন উপাচার্যের বক্তব্য ছাড়া নিজের মত করে মিছে বিভ্রান্তকর তথ্য পরিবেশন করে উপাচার্য কে বিতর্ক করেন।

উপাচার্য প্রফেসর ড. এএইচএম মোস্তাফিজুর রহমান যোগদানের পর দুইটি জালিয়াতি মুক্ত ভর্তি পরীক্ষা উপহার দিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন বেশ কয়েকটি বিভাগ চালু করেছেন। দাপ্তরিক কাজের ফাঁকে নিজে গিয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকেউ যে কোন সমস্যা নিয়ে উপাচার্যের সাথে সরাসরি কথা বলতে পারেন। শিক্ষার্থীদের যে কোন সমস্যা সমাধানে এগিয়ে এসেছেন। অনেক ক্ষেত্রে আশ্বাস দিয়েছেন, সেই আশ্বাস মত কাজ এগিয়ে নিয়েছেন। সেশনজটের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে উদ্যোগ নিয়েছেন দ্রুত সময়ে সেশনজট নিরসনে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের পরিবহণ সমস্যা সমাধানে নিয়েছেন উদ্যোগ । এক জন মানবিক উপাচার্য হিসেবে সকলের কাছে তিনি উজাড় করে দিয়েছেন নিজেকে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে সেবার ব্রত নিয়ে আসা এই উপাচার্য সকলকে আহবান জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়কে ভালোবাসতে। তিনি সবাইকে নিয়ে একটি আধুনিক ও দেশ সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের নিয়ে যেতে বন্ধপরিকর। কিন্তু, আমরা এত কিছুর পরেও কাঠগড়ায় দাঁড় করাই সরল সাদা মনের এক মানুষকে। কিন্তু এক বার ও কি বিবেকের কাঠগড়ায় দাড়িয়ে নিজেদের কি কখনো প্রশ্ন করেছি, ভালোবাসা কি তাহলে আসলেই অপরাধ !

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন


Leave a Reply