প্রকাশকের কাজ নতুন চিন্তার বিকাশ ঘটানো – Nobobarta

আজ শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
আজ উদয় সমাজ কল্যান সংস্থা সিলেটের ১২তম ওয়াজ মাহফিল দলীয় কার্যালয় সম্প্রসারণের লক্ষে আগৈলঝাড়া রিপোর্টার্স ইউনিটির প্লট উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের কাছে হস্তান্তর যবিপ্রবিতে ইয়ুথ এন্ডিং হাঙ্গার বাংলাদেশের নতুন কমিটি গঠন আটোয়ারীতে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহ উপলক্ষে এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত জবি রোভার দলের হেঁটে ১৫০ কিলোমিটার পরিভ্রমণের উদ্বোধন মারুফ-তানহার ‘দখল’ লক্ষ্মীপুরে রামগতি পৌরসভায় ৮ কোটি টাকার টেন্ডার জালিয়াতি চেষ্টার অভিযোগ নলছিটিতে যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার সভাপতি সরফরাজ, সম্পাদক লিটন রাজাপুরে আ.লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন-২০১৯ অনুষ্ঠিত সহকারী পরিচালক সমিতির নির্বাচন আগামীকাল!!
প্রকাশকের কাজ নতুন চিন্তার বিকাশ ঘটানো

প্রকাশকের কাজ নতুন চিন্তার বিকাশ ঘটানো

প্রতি বইমেলায় বই প্রকাশের সংখ্যা বাড়ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে বই বিক্রির পরিমাণ। বড় হচ্ছে সাহিত্যের বাজার। তারপরও সাহিত্যপ্রেমীদের চাহিদা প্রকাশকরা পূরণ করতে পারছে না। পাঠক যে ধরনের বই চাচ্ছেন, প্রকাশনাগুলো তা দিতে ব্যর্থ হচ্ছে। শুদ্ধপ্রকাশের প্রকাশক হিরণ্ময় হিমাংশু মনে করেন, প্রকাশকের কাজ শুধু পান্ডুলিপিকে বইয়ে রূপ দেয়ায় নয়। তার কাজ হলো-নতুন চিন্তার বিকাশ ঘটানো। পাঠক কোন ধরনের বই চাচ্ছেন, কোন ধরনের বই ছাপলে পাঠক উপকৃত হবেন, কোন বইয়ে সাহিত্যজগত উন্নত হবে এসব চিন্তা করেই তাকে বই ছাপাতে হয়। এবারের মেলা ও প্রকাশনা জীবন নিয়ে কথা হলো তার সঙ্গে।

নববার্তা : এবারের বইমেলার শুরুটা কেমন হলো?

হিরণ্ময় হিমাংশু : শুরুটা খুব ভালো হয়েছে। মেলায় দর্শণার্থী আসতে শুরু করেছে। বেচাকেনাও ভালো হচ্ছে। আশা করি, আরেক সপ্তাহ পর বেচাকেনা আরও বাড়বে।

নববার্তা : এবারের মেলায় আপনার প্রকাশনী থেকে কয়টি বই আসছে?

হিরণ্ময় হিমাংশু : এবার আমরা মেলাকে টার্গেট করে বই প্রকাশ করেছি। সব মিলিয়ে এবার ৭০টি বই আসছে। আশা করি, সবগুলো বইই ভালো চলবে।

নববার্তা : মেলার আজ নবম দিন। আজ পর্যন্ত কোন ধরনের বইয়ের চাহিদা বেশি বা ক্রেতারা কোন ধরনের বই বেশি খোঁজ করছে?

হিরণ্ময় হিমাংশু : সব ধরনের বই চলছে। তবে আমার মনে হয়েছে, ফিকশন, থ্রিলার বা শিশুদের বইয়ের চাহিদা একটু বেশি। অনেকে পরিবার পরিজন নিয়ে এ ধরনের বই খোঁজ করছেন।

নববার্তা : বই ছাপানোর জন্য মান যাচাই করেন কিভাবে?

হিরণ্ময় হিমাংশু : পান্ডুলিপি পাওয়ার পর সেটি আমাদের অভিজ্ঞ বিচারক মন্ডলী কাছে যায়। তারা সেটি নিয়ে আলোচনা করেন। তারপর তারা যদি মনে করেন যে ছাপানো যাবে, তাহলে ছাপা হয়। তারা যদি মনে করেন, ছাপানো যাবে না, তাহলে ছাপাই না।

নববার্তা : পান্ডুলিপির বিশেষ কোন বৈশিষ্ট দেখে ছাপানোর সিদ্ধান্ত নেন।

হিরণ্ময় হিমাংশু : পান্ডুলিপির লেখার মান কেমন, লেখাটি কোন বিষয়ে, লেখায় যে শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে সেগুলো বর্তমান সময়ে সঙ্গে সামঞ্জস্য কিনা, বই ছাপালে পাঠক তা পড়বে কিনা ইত্যাদি ইত্যাদি। আর প্রকাশককে সবসময় নতুন নতুন ধারণা বের করতে হয়। কোন ধরনের বই পাঠক পড়বে সেটিও মুখ্য বিষয়। কারণ আমি বই ছাপালাম কিন্তু পাঠক পড়ল না তাহলে আমি সফল নই।

নববার্তা : এ বইমেলায় আপনার প্রকাশনার মূল আকর্ষণ কি বা কোন বইটির প্রতি ক্রেতার চাহিদা বেশি থাকবে বলে আপনার ধারণা?

হিরণ্ময় হিমাংশু : এবার আমরা দেশের সব বিখ্যাত মানুষদের ছোটবেলার গল্প নিয়ে বই ছাপছি। এখন পর্যন্ত কয়েকটি বই বাজারে চলেও এসেছে। সাড়াও ভালো পাচ্ছি। এর মূল কারণ হলো, আইডিয়া। প্রত্যেকেই বিখ্যাত মানুষদের ছোটবেলা সম্পর্কে জানতে চায়। এ বিষয়ে আলাদা আগ্রহ আছে সবার। সেই বয়সে তারা কেমন ছিল, কোথায় তাদের শৈশব কেটেছে ইত্যাদি ইত্যাদি। এসব সফল মানুষদের গল্প পড়ে একটি শিশুও তাকে আদর্শ মনে করে তার মতো করে জীবনধারণ করে।


Leave a Reply