দুমকির থানাব্রীজ বাসস্ট্যান্ডে নেই যাত্রী ছাউনি, দুর্ভোগে যাত্রী সাধারণ - Nobobarta

আজ বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:১৭ পূর্বাহ্ন

দুমকির থানাব্রীজ বাসস্ট্যান্ডে নেই যাত্রী ছাউনি, দুর্ভোগে যাত্রী সাধারণ

দুমকির থানাব্রীজ বাসস্ট্যান্ডে নেই যাত্রী ছাউনি, দুর্ভোগে যাত্রী সাধারণ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  

জসিম উদ্দিন, দুমকি প্রতিনিধি ॥ পটুয়াখালীর দুমকি উপজেলা সদরের থানা ব্রিজ বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীছাউনি না থাকায় যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

উপজেলা শহরের ওপর দিয়ে বাউফল-দুমকি-পটুয়াখালী ও দশমিনা-বাউফল-দুমকি-বরিশাল-ঢাকা মহাসড়ক থাকায় দূরপাল্লার ও আভ্যন্তরীণ রুটের শত শত যাত্রীদের প্রতিনিয়ত বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে।

বিশেষ করে বর্ষাকালে, প্রচন্ড রোদ-বৃষ্টি ও ঝড় ঝাঞ্জায় যাত্রী সাধারণকে দোকানপাট, মার্কেট ও মসজিদের সামনে আশ্রয় নিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানবাহনের জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। দশমিনা-বাউফল-দুমকি-ঢাকা সড়কের দুমকি উপজেলার থানাব্রিজ বাসস্ট্যান্ড একটি ব্যস্ততম বাসস্ট্যান্ড। প্রতিদিন এ সড়ক দিয়ে উত্তরাঞ্চলের বিভাগীয় শহর বরিশাল ও রাজধানী শহর ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন রুটের দূরপাল¬ার পরিবহন ও আভ্যন্তরীন যানবাহনে এ স্ট্যান্ড থেকে প্রতিনিয়ত শত শত যাত্রী চলাচল করায় স্ট্যান্ডটি সব সময় জনসমাগম ও ব্যস্ত থাকে। বাস স্ট্যান্ডে যাত্রী ছাউনী না থাকায় এসব যাত্রী সাধারনকে রাস্তায় ও বিভিন্ন দোকানের সামনে বাসের জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যায়।

নির্দিষ্ট গন্তব্যের বাসের জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা ঠায় রাস্তায় দাড়িয়ে থাকতে হয়। সড়কের দু’পার্শ্বে দোকান-পাট গড়ে ওঠায় যত্রতত্র রিক্সা, ভ্যান, টেম্পো, সিএনজি অটোরিকশার অনির্ধারিত স্ট্যান্ড তৈরীর কারনে বাস মিনিবাসের যাত্রী সাধারনের দাড়ানো কিম্বা নির্দিষ্ট গন্তব্যের গাড়ীর জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষার নিরাপদ স্থান নেই। যত্রতত্র দাড়িয়ে থেকে যাত্রী সাধারনের গাড়ীর জন্য অপেক্ষা করতে হয়। এতে পুরুষদের বেলায় তেমন একটা সমস্যা না হলেও মহিলা যাত্রীদের দুর্ভোগের শিকার হতে হয়। বিশেষত: নির্দিষ্ট স্থান ও পাবলিক টয়লেট না থাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগের অন্ত থাকে না। রাতের বেলায় এসব যাত্রীদের মারাত্মক বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে। থানাব্রিজ ্এলাকার দোকান্দার আবুল কাসেম জানান, যাত্রী ছাউনী না থাকায় বিভিন্ন গন্তব্যের যাত্রীদের বিভিন্ন দোকানের সামনে বেঞ্চে বসে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হয়। নির্দিষ্ট যায়গা না থাকায় ও পাবলিক টয়লেট না থাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। জনদুর্ভোগ লাঘবে একটি যাত্রী ছাউনী ও পাবলিক টয়লেট একান্ত দরকার।

দক্ষিনবঙ্গ কোচ সার্ভিসের (মেঘনা পরিবহন) কাউন্টার ম্যান আবুল কালাম মৃধা বলেন, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদের কাছে বার বার ধর্ণা দিলেও এ বিষয়ে তারা কোন উদ্যোগ নেয়নি। তিনি আরও বলেন, সরকারী উদ্যোগ না থাকায় পরিবহন কাউন্টার গুলোরপক্ষ থেকে যৌথ উদ্যোগে টিনের ছাপড়ার একটি অস্থায়ী যাত্রী ছাউনী নির্মানের চিন্তা ভাবনা আছে। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি থানাব্রিজ এলাকায় একটি স্থায়ী বাসস্ট্যান্ড ও যাত্রী ছাউনী গড়ে তোলা হোক। সে আশায় বুক বেধে আছেন এখানকার সাধারণ মানুষ, কবে তাদের দাবি পূরণ হবে। এ উপজেলায় বিভিন্ন দিক থেকে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও যাত্রীদের কল্যাণে আজও কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। তাই যাত্রীছাউনি ও টয়লেটের ব্যবস্থা না থাকায় দূরপালার যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন


Leave a Reply