‘জামায়াত নিষিদ্ধের উপযুক্ত সময় এখন’ : ইমরান এইচ সরকার – Nobobarta

আজ শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:০৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
আজ উদয় সমাজ কল্যান সংস্থা সিলেটের ১২তম ওয়াজ মাহফিল দলীয় কার্যালয় সম্প্রসারণের লক্ষে আগৈলঝাড়া রিপোর্টার্স ইউনিটির প্লট উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের কাছে হস্তান্তর যবিপ্রবিতে ইয়ুথ এন্ডিং হাঙ্গার বাংলাদেশের নতুন কমিটি গঠন আটোয়ারীতে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহ উপলক্ষে এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত জবি রোভার দলের হেঁটে ১৫০ কিলোমিটার পরিভ্রমণের উদ্বোধন মারুফ-তানহার ‘দখল’ লক্ষ্মীপুরে রামগতি পৌরসভায় ৮ কোটি টাকার টেন্ডার জালিয়াতি চেষ্টার অভিযোগ নলছিটিতে যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার সভাপতি সরফরাজ, সম্পাদক লিটন রাজাপুরে আ.লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন-২০১৯ অনুষ্ঠিত সহকারী পরিচালক সমিতির নির্বাচন আগামীকাল!!
‘জামায়াত নিষিদ্ধের উপযুক্ত সময় এখন’ : ইমরান এইচ সরকার

‘জামায়াত নিষিদ্ধের উপযুক্ত সময় এখন’ : ইমরান এইচ সরকার

আলবদর প্রধান মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ডের রায় কার্যকরের পর যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জামায়াতের ডাকা হরতাল প্রত্যাখ্যান করে শাহবাগে অবস্থান এবং হরতালবিরোধী মিছিল করেছে গণজাগরণ মঞ্চ। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শাহবাগে অবস্থান নেয় গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধের দাবি এবং হরতালবিরোধী নানা স্লোগানের মাধ্যমে অবস্থান কর্মসূচি চলে।

কর্মসূচি থেকে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেন, ‘সকল আদালতে সন্দেহাতীতভাবে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ার পর একাত্তরের ঘাতক মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ডের রায় কার্যকর করা হয়েছে। যে সংগঠনের সভাপতির মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে, আমরা মনে করি সে সংগঠনের রাজনীতি করার কোনো অধিকার থাকতে পারে না। জামায়াত নিষিদ্ধের এখনই উপযুক্ত সময়। তাই সরকারের কাছে দাবি, আর কালক্ষেপণ না করে অবিলম্বে যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জামায়াত ও শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের ১ কোটি গণস্বাক্ষর সংসদে জমা দিয়েছি। ২০১৩ সালে গণস্বাক্ষর জমা দেওয়ার পর সংসদ পরিষ্কারভাবে জানিয়েছিলেন, জামায়াত নিষিদ্ধ করা হবে। এরপর তিন বছর সময় অতিবাহিত হলেও এখনো জামায়াত নিষিদ্ধের কোনো অগ্রগতি নেই।’

ইমরান এইচ সরকার বলেন, ‘যুদ্ধাপরাধী নিজামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পর পাকিস্তানে মাতম শুরু হয়েছে। পাকিস্তানিদের মাতমই প্রমাণ করে, যুদ্ধাপরাধের বিচারে বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্ত একদম সঠিক ছিল। নিজামীরা একাত্তরে পাকিস্তানের পক্ষে এদেশে নির্মম গণহত্যা চালিয়েছে, এটা পাকিস্তানের কান্নাকাটিই প্রমাণ করে।’

তিনি বলেন, ‘আমি সরকারকে বলব, শুধু ব্যক্তি যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নয়, যুদ্ধাপরাধী সংগঠনের বিচারও শুরু করুন। জামায়াতের আর্থিক যোগানদাতা সংগঠনগুলোর কার্যক্রম নিষিদ্ধ করে এদেশে জঙ্গীবাদের বিস্তার বন্ধ করুন।’ অবস্থান কর্মসূচি থেকে হরতালবিরোধী মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শাহবাগ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি ঘুরে আবার শাহবাগে ফিরে আসে।


Leave a Reply