জাবিতে 'নিবর্তনমূলক' ছাত্র শৃঙ্খলা অধ্যাদেশ বাতিলের দাবি ছাত্র ইউনিয়নের - Nobobarta

আজ মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
আটোয়ারীতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত লক্ষ্মীপুরে ব্যবসায়ীকে হত্যা মামলায় ২ আসামীকে আদালতে হাজির, জামিন না মঞ্জুর হামদর্দ এমডির বিরুদ্ধে যুদ্ধোপরাধের অভিযোগ তোলায় বিস্মিত স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা আটোয়ারীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক ব্যক্তি সহ দুটি গরুর মৃত্যু দ্রুত জকসু গঠনতন্ত্র প্রণয়ন ও রাতে ক্যাম্পাসে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার দাবি আবির্ভাব: এক নতুন পৃথিবীর স্বপ্ন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন পরিষদের উদ্যোগে মাদার তেরেসার মৃত্যুবার্ষিকীতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত গণ বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নেতাদের অভিষেক সম্পূর্ন বিচার নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠ ইউপি সম্মাননা পুরস্কার পেলেন দন্ডপাল ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী সাইফুদ্দীন আহ্মদ কে কেউ মনে রাখেনি!
জাবিতে ‘নিবর্তনমূলক’ ছাত্র শৃঙ্খলা অধ্যাদেশ বাতিলের দাবি ছাত্র ইউনিয়নের

জাবিতে ‘নিবর্তনমূলক’ ছাত্র শৃঙ্খলা অধ্যাদেশ বাতিলের দাবি ছাত্র ইউনিয়নের

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  

জাবি প্রতিনিধি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ছাত্র-ছাত্রীদের শৃঙ্খলা-সংক্রান্ত সংশোধিত অধ্যাদেশে যুক্ত হওয়া নতুন দুটি ধারা বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন করেছে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদ।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে সিন্ডিকেট সভা চলাকালে ভবনের সামনে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এ মানববন্ধন চলে।

মানবন্ধনে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয় বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এরূপ স্বেচ্ছাচারী, অগণতান্ত্রিক ও একরোখা সিদ্ধান্ত প্রত্যাখান ও তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি। অবিলম্বে শিক্ষার্থীদের স্বার্থবিরোধী ধারা দুটি বাতিল করে সকল মহলের মতামতের ভিত্তিতে শিক্ষার্থীবান্ধব একটি যথাযথ, সময়োপোযোগী শৃঙ্খলা অধ্যাদেশ প্রণয়ন করার দাবি জানাচ্ছি।

মানবন্ধনে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম অনিকের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন কার্যকরী সদস্য মিখা পিরেগু, রাকিবুল হক রনি প্রমুখ।

এসময় নেতারা বলেন, শৃঙ্খলা সংক্রান্ত অধ্যাদেশের আচরণবিধি অংশে ৫(ঞ) এবং ৫(থ) ধারায় যে সংশোধনী আনা হয়েছে তা বিতর্কিত এবং নিবর্তনমূলক। ছাত্র-ছাত্রীদের কোনরূপ আলোচনা না করে এই ধরনের সংশোধনী কোনভাবে ছাত্র সমাজ মানবে না। তাছাড়া অসত্য, তথ্য বিকৃতি, আশালীন বার্তা বা অসৌজন্যতামুলক বার্তার কোন সংজ্ঞা কিংবা ব্যাখ্যা না থাকবার কারণে ধারা দুটি নিপীড়নমূলক হয়ে উঠবে।

বক্তারা শিগগিরই এই ধারা বাতিল করে ছাত্রদের সাথে আলোচনা করে শৃঙ্খলা অধ্যাদেশে প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনার দাবি জানান। সংশোধনী না আনলে শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে তা কঠোরভাবে প্রতিহত করার হুঁশিয়ারিও প্রদান করা হয় কর্মসূচীতে।

প্রসঙ্গত, গত ৫ এপ্রিল বিশেষ সিন্ডিকেট সভায় গৃহীত এই অধ্যাদেশের ৫(ঞ) ধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনও ছাত্র/ছাত্রী অসত্য এবং তথ্য বিকৃত করে বিশ্ববিদ্যালয় সংক্রান্ত কোনও সংবাদ বা প্রতিবেদন স্থানীয়/জাতীয়/আন্তর্জাতিক প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক সংবাদ মাধ্যমে/সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ/প্রচার করা বা উক্ত কাজে সহযোগিতা করতে পারবে না।’

৫-এর (থ) নাম্বার ধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনও ছাত্র/ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও ছাত্র/ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীর উদ্দেশে টেলিফোন, মোবাইল ফোন, ই-মেইল, ইন্টানেটের মাধ্যমে কোনও অশ্লীল বার্তা বা অসৌজন্যমূলক বার্তা প্রেরণ অথবা উত্ত্যক্ত করবে না।’

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন


Leave a Reply