জহির রায়হানের ৮২তম জন্মবার্ষিকী আজ - Nobobarta

আজ বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন

জহির রায়হানের ৮২তম জন্মবার্ষিকী আজ

জহির রায়হানের ৮২তম জন্মবার্ষিকী আজ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  

দেশের চলচ্চিত্র ও সাহিত্য জগতের নক্ষত্র, প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক আন্দোলনের অগ্রণী সৈনিক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক জহির রায়হান’র ৮২তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৯৩৫ সালের এ দিনে ফেনীর মজুপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন দেশের বিশিষ্ট চলচ্চিত্রকার, সাংবাদিক, মুক্তিযোদ্ধা, বুদ্ধিজীবী ও লেখক জহির রায়হান। ১৯৭১ সাল ১৪ ডিসেম্বর পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসরদের দ্বারা অপহৃত ভাই শহীদুল্লাহ কায়সারকে খুঁজতে গিয়ে নিখোঁজ হন তিনি।

১৯৫০ সালে যুগের আলো পত্রিকায় যোগদানের মধ্য দিয়ে সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে সম্পৃক্ত হন জহির রায়হান। পরে তিনি খাপছাড়া, যান্ত্রিক, সিনেমা ইত্যাদি পত্রিকাতেও কাজ করেন। ১৯৫৫ সালে প্রকাশিত হয় তার প্রথম গল্পগ্রন্থ সূর্যগ্রহণ। ‘জাগো হুয়া সাবেরা’ ছবিতে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করার মধ্য দিয়ে ১৯৫৭ সালে চলচ্চিত্র জগতে তার অভিষেক ঘটে। এরপর ‘কখনো আসেনি’ ছবি পরিচালনার মধ্য দিয়ে ১৯৬১ সালে চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে তার জীবন শুরু হয়।

ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। তার বিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘জীবন থেকে নেয়া’ ছবিতে ভাষার প্রতি তার গভীর অনুরাগ ফুটে উঠে। ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানে অংশ নেন জহির রায়হান। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি কলকাতায় চলে যান এবং সেখানে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে প্রচারাভিযান ও তথ্যচিত্র নির্মাণ শুরু করেন।

কলকাতায় তার নির্মিত চলচ্চিত্র ‘জীবন থেকে নেয়া’ ছবির বেশ কয়েকটি প্রদর্শনী হওয়ার পর চলচ্চিত্রটির ভূয়সী প্রশংসা করেন সত্যজিৎ রায়, মৃণাল সেন, তপন সিনহা এবং ঋত্বিক ঘটক। সে সময়ে তিনি চরম অর্থনৈতিক দৈন্যের মধ্যে থাকা সত্ত্বেও তার চলচ্চিত্রের প্রদর্শনী হতে প্রাপ্ত সমুদয় অর্থ মুক্তিযোদ্ধা তহবিলে দান করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তার নিখোঁজ ভাই শহীদুল্লাহ কায়সারকে খুঁজতে শুরু করেন, যাকে স্বাধীনতার ঠিক আগ মুহূর্তে পাক বাহিনীর এ দেশীয় দোসর আলবদর বাহিনী অপহরণ করেছিল। জহির রায়হান ভাইয়ের সন্ধানে মিরপুরে যান এবং সেখান থেকে আর ফিরে আসেননি। জানা যায়, বিহারি ও ছদ্মবেশী পাকিস্তানিদের হাতে তিনি নিহত হন।

১৯৫০ সালে ফেনীর আমিরাবাদ হাইস্কুল থেকে মেট্রিক পাসের পর ১৯৫৩ সালে জগন্নাথ কলেজ (ঢাকা) থেকে আইএসসি পাস করেন। পরে চিকিৎসা শাস্ত্রে মেডিকেল কলেজে ভর্তি হলেও কোর্স শেষ না করে তিনি মেডিকেল কলেজ ত্যাগ করেন। এরপর ১৯৫৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ অনার্স (বাংলা ভাষা ও সাহিত্য) পাস করেন।

জহির রায়হানের উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হচ্ছে- কখনো আসেনি, স্টপ জেনোসাইড, এ স্টেট ইজ বর্ন, জীবন থেকে নেয়া, কাঁচের দেয়াল ইত্যাদি। তার উল্লেখযোগ্য উপন্যাস হচ্ছে- শেষ বিকেলের মেয়ে, হাজার বছর ধরে, আরেক ফাল্গুন, বরফ গলা নদী, আর কত দিন, কয়েকটি মৃত্যু, একুশে ফেব্রুয়ারি, তৃষ্ণা ইত্যাদি। সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি আদমজী পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার (মরণোত্তর) লাভ করেন। এছাড়া চলচ্চিত্র বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ নিগার পুরস্কার, একুশে পদক (মরণোত্তর) লাভ করেন জহির রায়হান।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন


Leave a Reply