চাঁদপুরে জেগে ওঠা চরে পর্যটকের ভিড় - Nobobarta

আজ মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
আটোয়ারীতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত লক্ষ্মীপুরে ব্যবসায়ীকে হত্যা মামলায় ২ আসামীকে আদালতে হাজির, জামিন না মঞ্জুর হামদর্দ এমডির বিরুদ্ধে যুদ্ধোপরাধের অভিযোগ তোলায় বিস্মিত স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা আটোয়ারীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক ব্যক্তি সহ দুটি গরুর মৃত্যু দ্রুত জকসু গঠনতন্ত্র প্রণয়ন ও রাতে ক্যাম্পাসে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার দাবি আবির্ভাব: এক নতুন পৃথিবীর স্বপ্ন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন পরিষদের উদ্যোগে মাদার তেরেসার মৃত্যুবার্ষিকীতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত গণ বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নেতাদের অভিষেক সম্পূর্ন বিচার নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠ ইউপি সম্মাননা পুরস্কার পেলেন দন্ডপাল ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী সাইফুদ্দীন আহ্মদ কে কেউ মনে রাখেনি!
চাঁদপুরে জেগে ওঠা চরে পর্যটকের ভিড়

চাঁদপুরে জেগে ওঠা চরে পর্যটকের ভিড়

  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
    2
    Shares

চাঁদপুরের পদ্মা, মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর মিলনস্থলে জেগে ওঠা চরে পর্যটকদের ভিড় বেড়েই চলেছে। চাঁদপুরে ঘুরে বেড়ানোর নতুন জায়গা। কিন্তু এর প্রতিটি দৃশ্যই চিরচেনা। বালুর চরের বেঞ্চের উপর গা পাতিয়ে শুলেই দেখা মিলে পানি আর ছোট্ট ছোট্ট ঢেউ। মাথার ওপর রঙিন ছাতা, পাশেই বসা ডাব, ঝালমুড়ি ও অন্যান্য বিক্রেতা।

ইঙ্গিত পেলেই ডাবে কাঁচি আর মুড়িতে ঝাকি দিচ্ছেন বিক্রেতারা। কক্সবাজার বা পতেঙ্গা সৈকতের কথা বলা হচ্ছে না এখানে। এটা কোনো সমুদ্র সৈকতই নয়, জেগে ওঠা চর মাত্র। তবে সেখানে গেলে আপনার মনে হবে এটা বোধহয় কক্সবাজারের ‘মিনি’ সংস্করণ।

চাঁদপুরের পদ্মা, মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর মিলনস্থলে জেগে ওঠা বালুচর। চাঁদপুর জেলা শহর থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরত্বে এর অবস্থান। চরটি কারো কাছে মোহনার চর, কারো কাছে চাঁদপুরের সৈকত, আবার কেউ ‘মিনি’ কক্সবাজার নামে ডাকেন। এখানে সকালে বা বিকেলে এসে সূর্যান্ত দেখে ফিরছেন কেউ। আবার কেউ আসছেন এক-দুই ঘণ্টার জন্য। প্রতিনিয়ত ভ্রমণপ্রিয় মানুষের ভিড় বাড়ছেই। পরিবার নিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ ঘুরতে আসছেন এ চরে। চাঁদপুরের পদ্মা, মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর মিলনস্থলে জেগে ওঠা চরে পর্যটকদের ভিড় গত জানুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে।

চাঁদপুর শহর থেকে ১০ থেকে ১৫ মিনেটের নৌপথ। বালুর চরে পৌঁছাতে পৌঁঁছাতে দেখা যাবে, লঞ্চ, মালবোঝাই জাহাজের ছুটে চলা আর ইলিশ ধরা জেলেদের নৌকা। শুধু বালুর এ’চরই নয়, ঠিক উত্তরদিকে আছে লগ্নিমারা চর। এখানেও রয়েছে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা। জামসেদ আলী (৪৮) নামের এক পর্যটক বলেন, চাঁদপুরে এটি নতুন। এখানে পাশেই শহর। স্থানীয়ভাবে সব ব্যবস্থা থাকায় সহজেই এখানে আসা যায়। তা ছাড়া আসা-যাওয়া ট্রলার ভাড়াসহ অন্যান্য খরচ একেবারেই কম। বারবার আসা যাবে।

মেঘনার বালুচরে বেড়াতে আসা কলেজ ছাত্রী আইরিন হক আলভি (২২)বলেন, আমাদের চাঁদপুরে এতো সুন্দর ও মনোরম দর্শনীয় স্থান আছে আগে জানতাম না। এটি পুরোপুরি কক্সবাজারের মতোই মনে হলো। আমি আসলেই এখানে এসে মুগ্ধ। তবে সরকারি ভাবে এটিকে সংরক্ষণ করে পর্যটন শিল্পের বিকাশে কাজে লাগানোর দরকার। চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জামাল হোসেন জানান, শুধু এ স্পটই নয়, ইলিশের বাড়ি চাঁদপুরে পর্যটন শিল্প বিকাশের জন্য ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনা করছে জেলা প্রশাসন, যা ধীরে ধীরে বাস্তবায়ন করতে আমরা উদ্যোগ নিচ্ছি।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন


Leave a Reply