আটোয়ারীতে শিক্ষার্থী লিসা হত্যার বিচারের দাবীতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সমাবেশ - Nobobarta

আজ বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১:১৪ পূর্বাহ্ন

আটোয়ারীতে শিক্ষার্থী লিসা হত্যার বিচারের দাবীতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সমাবেশ
ফলোআপ

আটোয়ারীতে শিক্ষার্থী লিসা হত্যার বিচারের দাবীতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সমাবেশ

  • 117
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
    117
    Shares

রাব্বু হক প্রধান, আটোয়ারী (পঞ্চগড়): পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে ৮ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী লিসা হত্যার বিচারের দাবীতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার সকালে লিফলেট ও ব্যানার, ফেস্টুন সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক/শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের মানুষ আটোয়ারী থানার সামনে এসে এই বিক্ষেভ সমাবেশ করেন।

সমাবেশে শিক্ষার্থীরা বলেন, শিক্ষার্থী লিসা কে অপহরণের পর হত্যা করে পুকুরে ফেলে হত্যায় অভিযুক্ত খুনীদের অবিলম্বে দ্রুত গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে আমরা রাস্তায় নেমেছি। প্রধান আসামীসহ জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করা না হলে আগামীতে বৃহত্তর কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হবে। প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে অবিলম্বে লিসার হত্যার খুনীদের দ্রুত গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবি জানায় সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোঃ নজরুল ইসলাম। আটোয়ারী পাইলট সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ ফজলুল করিম বলেন, আমাদের দাবী হত্যার কান্ডের মুল আসামী সাদ কে আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে পুলিশ আটক করতে না পারলে আমরা আগামী মঙ্গলবার উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্দ করে রাখা হবে এবং উপজেলা প্রশাসন ও থানার সামনে অবস্থান ধর্মঘট করা হবে।

উল্লেখ্য গত বৃহস্পতিবার সন্ধায় উপজেলার ছোটদাপ গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত সৈনিক মোঃ আব্দুস সামাদ এর কন্যা সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী সাদিয়া সামাদ লিছা (১৪) এর সাথে একই গ্রামের মোঃ ফারুক এর পুত্র মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্র মোঃ আকাশ (১৫) এর সাথে কয়েক মাসে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। এর মধ্যে আকাশ লিছাকে একটি মোবাইল ফোন উপহার দেয়। এই মোবাইলের খবর লিছার মা জানতে পেরে আকাশের সাথে কথা বলতে আকাশের বাড়িতে যায়। কথা বলা শেষে বাড়ি ফিরে দেখে লিছা বাড়িতে নেই। পরে স্থানীয় এক নেতার বাসায় আকাশ সহ তার পরিবারকে ডেকে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

এতে আকাশ তাকে ভালোবেসে মোবাইল ফোনও উপহার দেয়ার কথা স্বীকার করে জানান, আমি তাকে উপহরন করিনি তবে আমার দুই বন্ধু ছোটদাপ গ্রামের মজিবর রহমানের পুত্র খোশবাজার মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণীর ছাত্র মেহেদি হাসান মুন্না (১৪) ও মোঃ আখতার হোসেন (মাষ্টার) এর পুত্র দিনাজপুর স্কুলের ৮ম শ্রেণীর ছাত্র সাধ (১৫) এই কাজটি করতে পারে। পরে তাদেরকেও ডেকে আনা হয় সেই মজলিশে। মুন্না জানায়, আমি তাকে ছোট বোন বানিয়েছি বিধায় তার ভালো মন্দ দেখি মাত্র। তবে সাধ বিকেলে লিসার বাসায় গিয়ে তার মাকে হুমকি দিয়ে আসে। আমি তার জন্য আকাশের কাছে মার খেয়েছি, আমি তাকে দেখে নিব। এসব কথার সত্যতা জানতে পেরে সকালে থানায় দেয়া হবে বলে আটক করে রাখা হয় ওই তিন জনকে।

অনেক খোজার পর ভোরে বাড়ির পাশের্^ তার নিজের পুকুরে লিসার মরদেহ ভেষে উঠা দেখে চিৎকার করে লিসার চাচা। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহালের মাধ্যেমে পঞ্চগড় মর্গে প্রেরণ করেন। এর মধ্যে একজন লাশ পাওয়ার খবর পেয়ে ভোরে সেই নেতার বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় সাধ। আর বাকী দুইজনকে সকালে থানায় সোর্পেদ করা হয়।

লাইক দিন এবং শেয়ার করুন


Leave a Reply