,

শিবলী শাহেদ’র একগুচ্ছ কবিতা

শরীরী সঙ্গীত

আদি-চেতনার বিষয়াদি লিখে রাখতে গিয়ে
দেখি বুনো-সংকুল প্রবাহমালা তার তরঙ্গ বদলায়।
একি ছদ্মবেশ! এবং উদযাপনের যন্ত্রসুর আরো বিস্তারিত হবে জেনেও 
রোশনি পাহাড়ে রাখি স্বতন্ত্র সঙ্গীত,

সেও মন্ত্র-কবলিত। 
নুয়ে পড়া সমুদ্র-শরীরে টের পাই
ম্রো পল্লীর তরুণী এক,
শিরদাঁড়া বেয়ে উঠে যাচ্ছে তরতরিয়ে।

 

পরাজয়

আরো তিনটি দিন, তিনটি বিবর্ণ রাত পেরিয়ে
সকাল-শাস্ত্রে গোড়াপত্তন হবে

পতঙ্গ-বংশের।
ধানের শরীরে এত কান্নামুখী বিজের ক্রোধ!
এই কুণ্ডলীময় ধোঁয়ায়, অর্বুদ-বৃক্ষে 
কেমন ঝাপটানো প্রতিবেশ অহরহ গ’লে যায়! 
প্রতিটি পাহারায় দ্যাখো 
বাতাসেরও এক উড়ালমুখী ভাবনা আছে। 
তবুও প্রচ্ছন্নতার ব্যথায় কেঁপে উঠেছে যে নগরী
তার আঁচলে মুখ লুকিয়ে বলেছি 
উড্ডয়নে পরাজিত হইয়ো  ভ্রমর।

 

মিথ্যা

নিজের সমাধির পাশে
হাঁটু গেড়ে ব’সে
লোকটা ভাবছে
মৃত্যু এক অসত্য সত্য

 

নির্ভার

আদিতে তুমি ‘ফুল’ ছিলে।
তারও আগে ‘ভুল’ ছিলে।
হয়তবা নিষিক্ত টোল খেয়ে
ক্রমাগত দুলছিলে
না থাকার অগোচরে।
তারও আগে…
তারও আগে…
কিছু নাই,
তবু কী যেন বেজে ওঠে
অনন্তে
শূন্যতায়

 

রাত্রি-বিষয়ক

এখন রাত। পৃথিবীর যাবতীয় দুর্ঘটনা রাতে ঘটে। সন্ত-লোকে ব্রোথেলের দিকে পা বাড়ায়। কুমারী সন্ন্যাসিনী– সেও জড়াতে চায় গোপন প্রণয়ে। রাত রহস্যময়। রাতে ছায়াকে শরীর ভেবে ভ্রম হয়।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


Udoy Samaj

টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com