মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন

English Version
শারদুল সজল-এর একগুচ্ছ কবিতা

শারদুল সজল-এর একগুচ্ছ কবিতা

কবি-শারদুল সজল



  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জার্নি

রিসিভার থেকে তুলে খাচ্ছি সুন্দরীকণ্ঠ
হুঁক লাগানো পিনপতন লিরিক্যাল শিরশিরানি
ধাঁধালো আলোর জার্নি থেকে
বেজে উঠে আইটেম গানের
হারমনিয়াম
নতুন ঢেউয়ে
স্নানগ্লাসচোখে রেইনকোট ভিজে যায়
বিদ্যুত শর্কটে চুইয়ে পড়ে
মকবুল ফিদার দেবীদুধ
জিকির!
.
.
🔌

জাদুকর

গতজন্মের আগেই আমার ভবিষ্যত হারিয়ে আসছি ঈশ্বর
এই কংকালসমেত হাড়গোড়ের ভেতর যাকে
দেখতে পাচ্ছেন
সে এক দার্শনিক!
গতজন্মে যার মৃত্যুদণ্ড হয়েছিল আপনার সার্কাসবিষয়ক গবেষণায়!
তাই, এইজন্মে একজন জাদুকর হয়ে এসেছি
মিথ্যে আর লোভ দেখিয়ে মানুষকে অন্ধ করে দেবো বলে
পাপ নেবেন না ঈশ্বর
এবার আপনার মতো ভেলকি ছড়াবো
.
.
🔌

শরীরের ক্লাসরুম

ক.

ওই তো আমার হৃৎপিণ্ড
জখমের দগদগে ঘাঁ নিয়ে
শুয়ে আছে
ঘুমের বোতাম খুললেই
দেখতে পাও
কম্পনের তলে ফেরারি
চুমুর পারফিউম
যে কিনা
ঘামসূত্রের ওমীয় চাঁদ!
.

সিঁড়ি ছিদ্র পেসাবের বেগ!
রোদচশমা পড়ে
সমুদ্র কাঁপিয়ে তুলে
চিহিসুরভাষায় নামে বহুকলাসুখ!
অথচ বায়রনের জিপার খুলে
আকাশের দিকেও তাক করে আছে
একনলা ট্যাঙ্ক!
.

কে বলবে- ট্যাঙ্কের জমানো ফেনায়
ভ্রুণের শরাবে কিলবিল করেনি
আরব দম্পতির মুখ!
ওদের প্রত্যেক সুড়ঙ্গকে কাজে লাগাতে দেখে
বাংলার যুবকটিও
প্রেমিকার বিজল থেকে তুলে খায়
কামাসক্ত অ্যান্টিবায়োটিক!
.

বেশ!
হিজিবিজি
গতরের গন্তব্য খুলে
তুলে ধরছে বেগুনি চুমু
ঠোঁটে কাঁপছে পাহাড়
পাহাড়ে কাঁপছে নদী
নদীতে কাঁপছে বিদ্যুত
বিদ্যুতে কাঁপছে তলাতল
শর্টসার্কিটে
ঘর্ষণের ওপর থিসিস করছে
চামড়ার সিলেবাস!
.

জানি- প্রেমে বিচ্ছেদ হলে
সঙ্গম ব্যর্থ হয়
সঙ্গম থাকে সংগোপনে
শিরায় শিরায়
অর্তকিত ঘাঁয়ে
শরীর- মেইনদরজা খুললেও
ঝিলিক আদ্রতায়
নড়ে না টনক!
.
চ.

পড়! হে আদম সন্তান
শরীর
সঙ্গম শেষে মনের ক্বাবা ঘরে
সিজদা করো- প্রেমে, ঘামে ও গন্তব্যে
বলো- এইখানে আল্লাহ
এইখানে
নারী ও নরক থেকে জন্ম নিয়েছে
স্বর্গ-বেহালা
বাজাও
সম্পূর্ণ বিলীনে
.

এইভাবে কেউ একজন গুছিয়ে রেখেছে
বুক আর জরাযুর সঞ্চয়!
প্রেমের কুসুমে
হাফ ভয়েলের চোখ
তোমাকে ছেনে ছিঁড়ে
গঙ্গার তুফানে খুলবে
ভেতর দরজার গিঁট
.
জ.

তুমি ফুটবে
অশান্ত ভেজা সামরিকে
গতি ও ঘণত্বে
তোমার কোষে কোষে জন্ম নেবে
ঈশ্বরীয় ঋতু
নিয়ম না মেনেই
বুকের দুপাশে
জেগে উঠবে
ম্যাগনেটিক কদম!
.

তুমি
ঢাকনা খুলে
রন্ধনশিল্পে
স্পর্শ খুলবে
আর কেউ একজন
গেরিলা দীক্ষায়
তোমার জাদুঘরে তাক করবে
বিজলিচমক!
.
ট.

এরপর
উচ্চারিত
হবে
ওস্তাদ
ওস্তাদ!
ডানে না
বামে না
সামনে
সোজা
ভেতরে
চলুন
.
🔌

ছাতুকংকালের নাচ

নরমসুখের ভেতর হাতির পা
নড়ে না
পিঁপড়ের মেমোরি ফরমেট খেয়ে
হাতির পাকে মনে করছে প্রাচীন পাহাড়Ñ আশ্রয়
দুধেল গাছের ছাল বাকল
আর ওদিকে গণি মিয়ার ঘণ্টা পিটুনিতে চেঁচাচ্ছে অফ পিরিয়ড
মৃতদের হেলমেট ছাতু করে ক্যারাম খেলছে প্রতিবেশী অহংকার!
অন্ধঘড়ির কাঁটা এক পৃষ্ঠার কার্বনে সূর্যগলিয়ে
সিল দিচ্ছে ডোরাসাপের চিকন সাঁতার
আর পুকুরজুড়ে পড়ে আছে দ্বি-খন্ডিত জলের কংকাল
এভাবে আদি আগুনের তাপ নিতে গিয়ে
এ দুচোখ আর কিছুই দেখেনি, কেবল ঈশ্বরের দুর্ভাগ্য ছাড়া!
.
.🔌

যোদ্ধা

একাধিক রাক্ষসের চেয়ে
আজরাইল সত্যিই চমৎকার
তার চেয়েও চমৎকার
যদি কাউকে না পুছ!

লাইক দিন

Please Share This Post in Your Social Media




Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com