,

দ্বীপ সরকার – এর একগুচ্ছ কবিতা

চোখের কাব্য

শর্ট ১.
তোর চোখে দ্বীপাবলীর ভীর নাচে
আর দ্বীপের ভেতরে আগলে থাকা
শুণ্যতা,

কেমন খিটখিটে স্বভাব তোর,
চোখ ববাবরে নোটিশ ল্যাখে
সভ্যতার রাজা,
যে সভ্যতা নিরবে ভাসে অশ্রুতে
সেই ত্রাসযুগ থেকে।

লিপ্সার ঠোঁটে বারদের ঝিলিক,
প্রেমের আহবানে কুকুরের সমাগম,
অথচ তুই নারী!
রাগত স্বরে এঁটেল চোখে ফেটে পড়ে দ্রোহ,
এতেও ক্ষতি নেই জলপোকার
ভাসন্ত জীবনের।

শর্ট ২.
একই ভাষায় নিংড়ানো কথা
চাহনীর ফাঁকে উঁকি দেয়।
ভদ্রচিত লজ্জায় ব্যাকুল সরলতা,
প্রেম জাগে দরদ মাখা দৃষ্টির উঠোনে
ঋনাভ অংকে জিতে যাওয়া ভোর
কি রকম স্যাঁতসেঁতে হয় অসামান্য লজ্জায়…।

লেখাঃ২০/৫/২০১৬ইং

আরো একবার দেখা হলে

আরো একবার দেখা হলে
নির্ভুল একটা কিস ছুঁয়ে দেবো কপালে,
তারপর কথার মাখামাখি।

আরো একবার দেখা হলে
এই নয়নাভিরাম সবুজদের বলে দেবো
এটিই আমার মগজের ভেতর গুছিয়ে রাখা ধ্যান,
অতঃপর ব্যাকুল চোখাচোখি।

যতক্ষণ না তুমি বলবে
প্রকৃতি হবে বলে স্তনস্থ্য পর্বত পাল্টে গেছে
এই সব চা বাগান,আর ধবল মেঘ
পাল্টে গেছে গল্পে গল্পে,
তুমিও তাই বদলাতে পেরেছো…

তখন আমার লক্ষ লক্ষ চোখ
দাঁড়াবে এক সাথে
বিশ্বাস গুলো ধ্যান ঝেড়ে বলবে
এসো না ; কতযুগ পার হয়েছে স্পর্শহীন।

লেখাঃ ১৮/৪/১৬ইং
০১৭১৯৭৫১৭৯২

আমার একটা মা আছে
…………………( উৎসর্গ আমার মা,কে)

আমার একটা মা আছে..
চির অম্লান ভালোবাসার তরে
বুকভরে গেঁথে রাখে যে…
আমার একটা মা আছে
চাহনীর ফাঁকে অশ্রুত ক্লেদ মাখে
আমার দৃষ্টি ছেঁটে।

রাত জেগে প্রহরী হয়ে
অপেক্ষার জালে বুনোয়
বাঁদর ছেলেটার জন্য আশ্রীত আঁচল,
গেরস্থলীর ফাঁকে চুমু কেটে
আড়ালে মুছতো ঘাম।

যার চোখজুর হরিণের মত অপেক্ষা,
কোলজুরে চিরায়ত পাঠশালা,
আর স্তনের দাগে প্রজন্মের মানচিত্র আঁকা।

লেখাঃ ৮/৫/২০১৬ইং

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com