রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:৪২ অপরাহ্ন

English Version
সারিয়াকান্দিতে কাউন চাষীদের ভাগ্য বদলাতে শুরু করছে

সারিয়াকান্দিতে কাউন চাষীদের ভাগ্য বদলাতে শুরু করছে



বগুড়া অফিস:

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে চলতি মৌসুমে কাউনের বাম্পার ফলন হয়েছে। সে সাথে কাউনের দাম ভাল হওয়ায় কাউনের চাষিরা লাভের মুখ দেখছে । উৎপাদিত কাউনের ক্রয়-বিক্রয়কে কেন্দ্র করে উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে এখন ক্রেতা-বিক্রেতাদের আনাগোনায় সরগরম হয়ে উঠেছে। কাউন থেকে তৈরী পায়েশ, পোলাও, ভুনা খিচুরী, মলা ও বিস্কুট অনেক মজাদার খাবার।

বেকারী গুলোতে কাউনের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।

সুত্রে জানা গেছে, সারিয়াকান্দিতে গতবছর ১হাজার ৫শ’৮০হেক্টর জমিতে ল্যমাত্রা থাকলেও এবছর তা বৃদ্ধি পেয়ে ১হাজার ৬ শ’ হেক্টর জমিতে কাউনের চাষ হয়েছে। অগ্রহায়ন থেকে মাঘ মাস পর্যন্ত বীজ বপন করা হয় এবং বৈশাখ ও জ্যৈষ্ঠ মাসে কাউন কাটামাড়াই করা হয়। চরাঞ্চরের উরর্বর পলি জমিতে কাউনের বীজ বপনের পর থেকেই গাছ তরতর করে বেড়ে উঠতে থাকে। বীজ বপন করার পর হতে কাউন কাটামাড়াই পর্যন্ত অনুকুল আবহাওয়া থাকায় বাম্পার ফলন হয়েছে।প্রতি বিঘা কাউনের জমি থেকে ৬/৭ মন কাউন উৎপন্ন হতো।এবার বাম্পার ফলন হওয়ায় বিঘা প্রতি ৮/১০ মন কাউন পাওয়া যাচ্ছে। উৎপাদিত কাউন চাষিরা ১২ শ’ থেকে ১৬শ’ টাকা মন দরে বাজারে বিক্রি করছে । চরের চাষীদের এরও কমদামে বিক্রয় করতে হয়।চরের কোন কোন কৃষক একক ভাবে ৮/১০বিঘা পর্যন্ত জমিতে কাউনের চাষ করেন।

উপজেলার চালুয়াবাড়ী চরের কৃষক মালেক হোসেন, পান্তাপাড়া চরের বাছেদ মিয়া ,বুদে প্রামানিক জানান,জমিতে চাষ, বীজ বপন নীরানি থেকে শুরু করে বিক্রয় পর্যন্ত এবার প্রতি বিঘা জমিতে ২হাজার ৫ শ’ টাকা থেকে ৩হাজার টাকার মতো খরচ হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহাদুজ্জামান বলেন, জমিতে বন্যার কারনে পলি ও কাউনের শীষে কোন রোগ-বালাই পোকা মাকড় না ধরায় কাউনের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলন বৃদ্ধির জন্য কৃষি অফিস থেকে আামরা কৃষকদের বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে থাকি। যমুনা ও বাঙালী নদীর চরাঞ্চলে বাম্পার ফলন হওয়ায় কাউন চাষীদের মুখে হাসি ফুটেছে।

Please Share This Post in Your Social Media




Leave a Reply



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com