সোমবার, ২১ মে ২০১৮, ০১:২৮ পূর্বাহ্ন

আজকের সেহরী ও ইফতার :
আজ ২০ মে রবিবার, রমজান- ৩, সেহরী : ৩-৪৪ মিনিট, ইফতার : ৬-৪০ মিনিট, ডাউনলোড করে নিতে পারেন পুরো ফিচার- ডাউনলোড


বগুড়ায় মাদকের টাকার ঝগড়ায় চার খুন

বগুড়ায় মাদকের টাকার ঝগড়ায় চার খুন



ডা. রাসেল মাহমুদ, বগুড়া:

বগুড়ার শিবগঞ্জে চাঞ্চল্যকর চার খুনের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। হত্যাকান্ডে অংশ নেয়া তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা পুলিশের কাছে হত্যার ঘটনা বর্ণনা দিয়ে জবানবন্দী দিয়েছে।

গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার বগুড়া পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা বলেন, মাদকের পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের কারণে চারজনকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকান্ডের সাথে ৯ জন জড়িত। এদের মধ্যে থেকে ইনটিলিজেন্স উইংস ঢাকা ও বগুড়া পুলিশের যৌথ অভিযানে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- শিবগঞ্জ উপজেলার কাঠগড়া চকপাড়া গ্রামের রফিকুল শেখের ছেলে জুয়েল শেখ (২৫), একই উপজেলার চন্দনপুর তালুকদারপাড়ার আব্দুস সামাদের ছেলে আবুল কালাম আজাদ (৪৮) ও ডাবইর গ্রামের মৃত আবু বক্করের ছেলে রুবেল।

এরআগে গত সোমবার (৭ মে) শিবগঞ্জ উপজেলার আটমূল ইউনিয়নের ডাবুইর গ্রামের একটি ধানক্ষেত থেকে হাত বাঁধা অবস্থায় জাকারিয়া, সাবু, হেলাল এবং খবির নামের চারজনের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। একই স্থানে চারজনকে জবাই করে ফেলে রাখার ঘটনায় আতঙ্ক ও আলোড়ন সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় নিহত জাকারিয়ার পিতা বাদী হয়ে ঘটনার পরদিন মঙ্গলবার (৮ মে) ৯ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। লাশ উদ্ধারের পর থেকেই পুলিশের একাধিক টিম হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচন ও হত্যাকারীদের শনাক্ত করতে মাঠে নামে। ঘটনার মাত্র ৬ দিনের মাথায় হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনে সফল হয়েছে পুলিশ। হত্যায় অংশ নেয়া তিনজনকে গ্রেফতার ও রহস্যা উদঘাটন হওয়ায় জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা ’র প্রসংশা বগুড়া জুড়েই। পুলিশ সুপার এবং পুলিশের প্রসংশায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও টুইটে শতশত স্ট্যটাস চোখে পড়ারমত।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা বলেন, নিহত জাকারিয়া শিবগঞ্জ উপজেলার কাঠগড়া গ্রামের জুয়েলের কাছে মাদক বিক্রির টাকা পেত। এ নিয়ে জাকারিয়ার সাথে জুয়েলের প্রায়ই ঝগড়া বিবাদ হতো। ৬ মে রাতে জুয়েল ও তার সহযোগিরা পাওনা টাকা পরিশোধের কথা বলে কৌশলে জাকারিয়াকে রুবেরের বাড়িতে ডেকে পাঠায়। তার পর ৯ জনে মিলে জাকারিয়া, তার সঙ্গে থাকা আরো তিনজনকে পিঠমোড়া করে বেধে ৮/১০ ইঞ্চি ছোরা দিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করা হয়।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

Please Share This Post in Your Social Media








© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com