বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৪:৩৪ পূর্বাহ্ন

English Version
বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা -মমতাজ উদ্দিন

বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা -মমতাজ উদ্দিন



মাহবুবা পারভীন, বগুড়া: বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ও বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলহাজ্ব মমতাজ উদ্দিন বলেছেন, বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা। বাঙালির হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ অর্জন হলো মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা। আর এই স্বাধীনতার রূপকার আমাদের হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ২৩ বছরের পাকিস্তানি শাসন-শোষণের প্রতিবাদী এক প্রতিষ্ঠান ছিলেন বঙ্গবন্ধু। আজও বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ বাঙালি জাতির অনুপ্রেরণার উৎস। তাঁর দেখানো পথেই চলছে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা। মহান এই নেতা বাঙালি জাতিকে বিশ্বের মানচিত্রে স্থান করে দিয়েছিলেন। পাকিস্তানি শাসকদের শত নির্যাতন-নিপীড়ন তাঁকে দমাতে পারেনি।

মমতাজ উদ্দিন বলেন, বঙ্গবন্ধু কখনই মাতৃভূমির প্রশ্নে আপোষ করেননি। ক্ষমতার প্রলোভন কখনই তাকে স্পর্শ করতে পারেনি। তিনি সর্বদা স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার কাজে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন। কিন্তু স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে দেয়নি। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে বাংলাদেশকে মিনি পাকিস্তান বানানোর অপচেষ্টা করেছিল। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর আদর্শের নেতাকর্মীরা তা বাস্তবায়িত হতে দেয়নি। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর মাত্র সাড়ে ৩ বছর রাষ্ট্রক্ষমতায় ছিল আওয়ামী লীগ। বিধ্বস্ত একটি দেশকে পুনর্গঠনে তিনি সমস্ত উদ্যোগই গ্রহণ করেছিলেন।

মমতাজ উদ্দিন অারও বলেন, আজ বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে পৃথিবীর অন্যতম উন্নত দেশে পরিণত হতো বাংলাদেশ। ৭৫ পরবর্তী ২১ বছর বাংলাদেশে চলেছে লুটপাটের রাজত্ব। বাংলাদেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করেছিল স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তিরা। আজ তা থেকে বাংলাদেশ মুক্ত। বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আজ রাষ্ট্রক্ষমতায়। দেশ আজ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে চলেছে। খাদ্যে আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ। নিজস্ব অর্থায়নে স্বপ্নের পদ্মাসেতু আজ দৃশ্যমান। উন্নয়নের মহোৎসব চলছে সারাদেশে। গুটিকয়েক পাকিস্তানী প্রেমিরা ছাড়া সবাই জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। বাংলাদেশের মানুষ আজ আওয়ামী লীগের উপর আস্থাশীল। মানুষ আজ যুদ্ধাপরাধী, জঙ্গী, অগ্নিসংযোগকারীদের প্রত্যাখ্যান করেছে। প্রতিদিন মির্জা ফখরুল আর রেজভীদের প্রলাপ শুনে মানুষ হাসে। মিথ্যা এবং অর্ধসত্য তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা বাংলাদেশে আর সফল হবে না। খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন আর রাজপথে গড়াবে না। ক্ষমতায় যাওয়ার অভিলাষ আর বিএনপির সফল হবে না।

শনিবার সকাল ৮টায় বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে র‌্যালী শেষে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলি বলেন।

সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মজনু, জেলা পরিষদের প্রশাসক ডা. মকবুল হোসেন, তোফাজ্জল হোসেন দুলু, এ্যাড. আব্দুল মতিন, আবুল কালাম আজাদ, এ্যাড. রেজাউল করিম মন্টু, এ্যাড. আমানুল্লাহ্, শাহ আব্দুল খালেক, রাগেবুল আহসান রিপু, টি.জামান নিকেতা, মুঞ্জুরুল আলম মোহন, প্রদীপ কুমার রায়, আসাদুর রহমান দুলু, শাহরিয়ার আরিফ ওপেল, এ্যাড. তবিবর রহমান তবি, এ্যাড. জাকির হোসেন নবাব, সুলতান মাহমুদ খান রনি, শেরিন আনোয়ার জর্জিস, এ্যাড. শফিকুল আলম আক্কাস, কামরুন্নাহার পুতুল, আনিসুজ্জামান মিন্টু, এস এম শাজাহান, এবিএম জহুরুল হক বুলবুল, মাশরাফী হিরো, আলরাজী জুয়েল, রফি নেওয়াজ খান রবিন, শাহাদৎ হোসেন শাহীন, ওবায়দুল হাসান ববি, অধ্যক্ষ খাদিজা খাতুন শেফালী, আলমগীর বাদশা, আব্দুস সালাম, সুরাইয়া নিগার সুলতানা ডরথী, শুভাশীষ পোদ্দার লিটন, সাজেদুর রহমান সাহীন, আমিনুল ইসলাম ডাবলু, জুলফিকার রহমান শান্ত, ডালিয়া নাসরিন রিক্তা, মঞ্জুরুল হক মঞ্জু, নাইমুর রাজ্জাক তিতাস, অসীম কুমার রায় প্রমুখ।

এর আগে দলীয় কার্যালয়ে সকাল ৭টায় জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

Please Share This Post in Your Social Media




Leave a Reply



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com