,

বগুড়ায় ৬ শতাধিক মণ্ডপে বাড়ছে প্রতিমা শিল্পীদের ব্যস্ততা

পূজার সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে প্রতিমা শিল্পীদের ব্যস্ততা। সে কারণে এখন প্রতিমা সৌন্দর্য বর্ধনকারী রঙ শিল্পীদের নির্ঘুম রাত কাটচ্ছে। বগুড়া জেলার ১২ উপজেলার বিভিন্ন পূজামণ্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় শুরু হয়েছে বগুড়া জেলার অপেক্ষায় থাকা ৬ শতাধিক মণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রতিমা তৈরির কাজ। তৈরি হচ্ছে, দুর্গা, সরস্বতী, লক্ষী, কার্তিক, গণেশ ও অসুরের মুর্তি। এই সকল মুর্তির অধিকাংশ ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। জেলার প্রত্যেক পূজামণ্ডপে কেউ রঙ ছিটানোর কাজ করছে আবার কেই রঙ তুলি দিয়ে চেহারা ফুটিয়ে তোলার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। শুকানো মাটির প্রতিমার ঠোটে লাল রঙ আর চোঁখ ও ভ্রুতে কালো রঙ দিয়ে মায়াবী মানুষে পরিণত করছে প্রতিমা শিল্পীরা।

বগুড়া শহরের শিববাটি এলাকার প্রতিমা কারিগর শিল্পী কার্ত্তিক পাল জানান, তারা বংশ পরম্পরায় প্রায় ১ যুগ ধরে প্রতিমা তৈরী করে আসছেন। সারা বছর ধরে তারা এই সময়ের জন্য অপেক্ষায় থাকেন। সময়ের সাথে সাথে মানুষের জীবন যাত্রার ব্যয় বেড়েছে কিন্তু সে অনুপাতে বাড়েনি প্রতিমা শিল্পীদের মুজরি। ধর্মীয় কাজ তাই মুজরি নিয়ে বাড়াবাড়ি করাটাও উচিত নয়। তারপরও তারা মনে করেন যে হিন্দু ধর্মের এমন একটা মহৎ কাজের সাথে তারা সম্পৃক্ত হতে পেরেছেন। এটাই তাদের বড় পাওনা।

শহরের চেলোপাড়া হরিবাস’র প্রতিমা কারিগর গৌতম পাল জানান, প্রতিমার আকার ও শৈল্পিক গঠন অনুযায়ী প্রতিমা নির্মাণের পারিশ্রমিক ২০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত নিয়ে থাকেন। এ বছর বগুড়া, জয়পুরহাট, নওগাঁসহ কয়েকটি জেলায় সুমন পালের ২৫টি প্রতিমা তৈরির অর্ডার নিয়েছি। সেগুলো মাটির কাজ শেষ হয়েছে। এখন রঙ আর তুলি দিয়ে সৌন্দর্য ফুটিয়ে তোলার কাজ চলছে। অর্ডার নেওয়া সকল প্রতিমার কাজ যথাসময়ে সম্পূর্ণ করা যাবে।

শহরের চেলোপাড়া পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক দীলিপ কুমার জানান, দুর্গাপূজা উদযাপন উপলক্ষে সকল প্রতিমা তৈরী শেষ হয়েছে। এখন রঙয়ের কাজ চলছে। এ কাজও কয়েকদিনের মধ্যে শেষ হবে বলে প্রতিমা শিল্পীরা জানিয়েছেন। পূজা উদযাপন পরিষদ বগুড়া শাখার সভাপতি শ্রী দিলিপ কুমার দেব জানান, বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় বগুড়া জেলার অপেক্ষায় থাকা ৬ শতাধিক মণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব’র প্রতিমা তৈরী শেষ হয়েছে। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রতিমার সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ চলছে। দুর্গাপূজার শুরুর আগেই জেলার সকল মণ্ডপের প্রতিমার কাজ সম্পন্ন হবে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

আরও অন্যান্য সংবাদ


Nobobarta on Twitter




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com