,

মানিকগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, পানিবন্দি লক্ষাধিক মানুষ

মানিকগঞ্জের শিবালয়, ঘিওর ও সাটুরিয়াসহ ৫টি উপজেলার অন্তত ২০টি ইউনিয়ন বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছেন লক্ষাধিক মানুষ। রাস্তা-ঘাট ও ঘরবাড়িতে পানি উঠায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে মানুষ। বৃহস্পতিবার (১৭ আগস্ট) সকালে যমুনার পানি বিপৎসীমার ৭২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। গত কয়েকদিনে পানি বৃদ্ধি পেয়ে যমুনা নদীর আরিচা পয়েন্টে  বিপদসীমা অতিক্রম করে।

এদিকে পদ্মা-যমুনার তীরবর্তী ৪টি উপজেলার অভ্যন্তরে খাল-নদী-নালা বেয়ে দ্রুত পানি প্রবেশ করছে। বন্যার পানির চাপে আরিচা-পাটুরিয়া বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাধের এলাচিপুর এলাকায় ফাটল দেখা দিয়েছে, অন্বয়পুর এলাকায় বাধ উপচিয়ে ভিতরে পানি প্রবেশ করছে। এলাকাবাসী বালির বস্তা ফেলে বাধ রক্ষার চেষ্টা করছে।

বন্যাকবলিত পদ্মা-যমুনা তীরবর্তী উপজেলা ৪টি হলো দৌলতপুর, ঘিওর, শিবালয় ও হরিরামপুর। এ ৪ উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত যমুনার শাখা নদী পুরাতন ধলেশ্বরী, ধলেশ্বরী, কালীগঙ্গা, ইছামতি, কান্তাবতীতে সমানতালে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতোমধ্যে অনেক বাড়িঘর, গ্রাম, জনপদ পানিতে নিম্মজিত হয়েছে। অনেক আবাদি পুকুর পানিতে ভেসে গেছে। এতে মাছ চাষিরা ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে।

আরিচা ঘাটের কাছে পিডিবির আরিচা পিসিপোল কারখানা, গবাদি পশুর হাট, লঞ্চঘাট সড়কসহ পার্শ্ববর্তী গ্রাম এলাকায় বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। কারখানা কর্তৃপক্ষ বাধ্য হয়ে পোল উৎপাদন বন্ধ করে দিয়েছে। যমুনার চরাঞ্চলের অধিকাংশ বাড়িতে পানি উঠেছে। বানভাসি লোকজন উচু স্থানে আশ্রয় নিচ্ছে। বন্যার বাস্তব পরিস্থিতি দেখার জন্য স্ব-স্ব এলাকার জনপ্রতিনিধি ও সরকারি কর্মকর্তারা বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন করছে। শিবালয় উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আকবর ও ইউএনও কামাল মোহাম্মদ রাশেদ বন্যাকবলিত যমুনার চর এলাকা পরিদর্শন করেন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com