,

তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কে চলাচলে দূর্ভোগ চরমে

জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া, তাহিরপুর(সুনামগঞ্জ) # সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার গুরুত্বপূর্ন তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কে চলাচলে চরম দূর্ভোগের শিকার হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। তাহিরপুর উপজেলা থেকে সুনামগঞ্জ জেলা সদরের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করার এটিই একমাত্র সড়ক। এই সড়ক দিয়ে সারা বছর পাশ্বভর্তি বিশ্বাম্ভরপুর উপজেলা দিয়ে জেলা সদরে প্রতিদিন যাতায়াত করছে ৫লক্ষাধিক জনসাধারন। এ সড়কে নিন্ম মানের কাজ করায় সড়কের ঢালাই উঠে ও বন্যায় প্রায় ১০টি স্থানে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। প্রতি বছরেই এই গুরুত্বর্পূন সড়কটি বন্যায় ভাঙ্গনের শিকার হওয়ার ফলে তাহিরপুর উপজেলাবাসীর গলার কাটা হয়ে দাড়িয়েছে। যেন দেখার কেউ নেই। জানাযায়,তাহিরপুর-আনোয়ারপুর বাজার পর্যন্ত ৫কিলোমিটার সড়কে বন্যায় বড় বড় গর্ত,আনোয়ারপুর বাজার সংলগ্ন ব্রীজের সামনে ইট সলিংয়ের সড়কের অংশ ও বালিজুরী থেকে সুনামগঞ্জ সড়কে একাধিক স্থানে বন্যায় ব্যাপক ভাঙ্গনের এবং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার শক্তিয়ারখলার ১০০মিটার সড়ক পানিতে ডুবে থাকার কারনে চলাচল একবারেই অযোগ্য হয়ে পড়েছে তাহিরপুর সহ তিনটি উপজেলাবাসী সড়ক পথে যোগাযোগ ব্যবস্থা।

এছাড়াও এই সড়ক দিয়েই সরকারী বিভিন্ন দপ্তরের বড় বড় কর্মকর্তাগন সহ হাজার হাজার পর্যটক ও দর্শনার্থীরা আসে টাংগুয়ার হাওরে বেড়াতে। এ ছাড়াও আনোয়াপুর-ফতেহপুর ইউনিয়নের সড়ক দিয়ে জেলা সদরে চলাচলের রাস্তাটিও ভেঙ্গে চলাচলের যোগ্য রয়েছে। তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়ক গুলোতে প্রয়োজনীয় সংস্কার না করলে দূর্ভোগের শেষ থাকবে উপজেলাবাসীর। বর্তমানে ভাঙ্গাঁ ছোড়াঁ সড়কের মধ্য দিয়ে জীবনের ঝুকিঁ নিয়ে চলাচল করছে সর্ব স্থরের জনসাধারন। এছাড়াও তাহিরপুর উপজেলায় পর্যটন সমৃদ্ধ টাংগুয়ার হাওর সহ বিভিন্ন পর্যটন স্পট থাকায় দেশ,বিদেশের হাজার হাজার পর্যটক ও পাশ্বভর্তি জামালগঞ্জ,বিশ্বাম্ভরপুর উপজেলা এবং আশপাশের বিভিন্ন গ্রামের জনসাধারন বেড়াতে প্রতিদিন সিএনজি, প্রাইভেটকার, লাইটেস দিয়ে আসত এখন আসতে পারছে না। আর আসতে চাইলেই প্রতিদিন ঘটছে নানা রখম দূর্ঘটনা।

সুনামগঞ্জ জেলার সুরমা নদীর উপর আব্দুর জহুর ব্রীজ চালু হবার পর বাস,ট্রাক,হোন্ডা,সিএনজি,টমটম সহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলাচলের পরিমান দিন দিন বেড়েছে। এছাড়াও এই সড়ক দিয়ে যাত্রী পরিবহন ও ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন মালামাল সড়ক পথে বিভিন্ন পরিবহনের মাধ্যমে নিয়ে আসছে এ উপজেলায়। গুরুত্বপূর্ন এ সড়কটি সংস্কার করার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে দাবী জানান তাহিরপুর উপজেলা সহ এসড়ক দিয়ে চলাচলকারী ৫লক্ষাধিক জনসাধারন। এই সড়ক দিয়ে চলাচলকারী সিএনজি, লাইটেস চালক, যাত্রী, স্থানীয় এলাকাবাসী, বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রী এবং বেড়াতে আসা পর্যটক, ব্যবসায়ী সাদেক আলী, রফিকুল ইসলাম, নিউটন রায় সহ অনেকেই জানান,জেলা সদরের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করার জন্য একমাত্র গুরুত্বপূর্ন সড়কের এই বেহাল অবস্থা খুবে দুঃখ জনক।

এসড়কে ভাল ভাবে কাজ না করায় প্রতি বছর বন্যায় ভেঙ্গে যায়। আমরা হাওরবাসী সংঘটনের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সমন্বয়ক ফেরদৌস আলম জানান,জেলা সদরের সাথে যোগাযোগ করার জন্য বিকল্প সড়কের ব্যবস্থা না থাকার কারনে আমরা সবাই চলাচলে চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছি। গুরুত্বপূর্ন এই সড়কটির প্রয়োজনীয় সংস্কার করা প্রয়োজন। তাহিরপুর উপজেলা প্রকৌশলী আলমগীর হোসেন জানান, তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের আনোয়াপুর ব্রীজ সংলগ্ন ইট সলিংয়ের সড়কটি সংস্কার করা হলে মানুনজন চলাচল করে তাই প্রয়োজনীয়র কাগজ তৈরী করে সুনামগঞ্জ এলজিইডি অফিসে পাঠানো হয়েছে। সুনামগঞ্জ জেলা এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আনোয়াপুর ব্রীজ সংলগ্ন ইট সলিংয়ের রাস্তাটি মেরামতের কাজ ঈদের পূর্বে চলাচলের উপযুগেী করা হবে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

আরও অন্যান্য সংবাদ


Nobobarta on Twitter




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com