আজ শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন

৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৬ই রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী
National Election
নন্দীগ্রামে মানুষের জীবন বাঁচাতে স্বেচ্ছাসেবী দেড়শ’ যুবকের প্রচেষ্টা

নন্দীগ্রামে মানুষের জীবন বাঁচাতে স্বেচ্ছাসেবী দেড়শ’ যুবকের প্রচেষ্টা

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এম নজরুল ইসলাম, নন্দীগ্রাম(বগুড়া)প্রতিনিধি #  বগুড়ার নন্দীগ্রামে অসহায় ও দুস্থ্য মানুষের জীবন বাঁচাতে স্বেচ্ছাসেবী দেড়শ’ যুবকের প্রচেষ্টা অব্যহত রেখেছে। নিজেদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে ফ্রেন্ডস ব্লাড ডনার ক্লাব নামে একটি সংগঠনের মাধ্যমে প্রায় দেড়শ’জন যুবক স্বেচ্ছায় রক্তদান করে শতশত অসহায় মানুষের জীবন বাঁচিয়ে তুলছে। নিজেদের অর্থ খরচ হলেও বিনামূল্যে রক্তদানে পৌর এলাকাসহ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের যুবকদের মাঝে আগ্রহ সৃষ্টি করেছে ফ্রেন্ডস ব্লাড ডনার ক্লাব। অথচ স্থানীয় সমাজ সেবা অফিসে দীর্ঘদিন ধরে ঘুরপাক খেয়েও অর্থের অভাবে সরকারিভাবে স্বীকৃতি পায়নি।

জানা গেছে, অসহায় ও দুস্থ্য মানুষের পাশে দাড়াতে উপজেলার বীরপলী গ্রামের মতিউর রহমান মুসা, নুরন্নবী, কুচমা গ্রামের আবু হাসান, ভাটগ্রামের ফারুক ও পৌর শহরের মাঝগ্রাম মহল্যার অমিত হাসান হিরুসহ স্বেচ্ছাসেবী ৫জন যুবকের ব্যক্তিগত প্রচেষ্টায় ২০১২সালে ফ্রেন্ডস ব্লাড ডনার ক্লাব নামে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটি প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর থেকেই পৌর এলাকাসহ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের যুবকদের মাঝে বিনামূল্যে অসহায় মানুষদের রক্তদানে উৎসাহিত করতে মাঠে নামে ওই সংগঠন। স্থানীয় ক্লিনিকসহ সরকারি-বেসরকারি স্কুল-কলেজ চত্বরে ক্যাম্পের মাধ্যমে রক্তের গ্রুপ পরিক্ষা কার্যক্রম করে। ঠিক যেসময় অর্থের অভাবে অসহায় মানুষ ছোটাছুটি করছিল, সেই মুহুর্তে স্বেচ্ছাসেবী যুবকেরা বিনামূল্যে রক্ত দিয়ে অসহায় মানুষের জীবন বাঁচিয়ে তুলছে।

স্থানীয় ক্লিনিকসহ সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসারত দুস্থ্য রোগীদের রক্তের প্রয়োজন হলে সেখানেই ছুটে যায় সংগঠনের একঝাঁক যুবক। এভাবেই দিনদিন উপজেলা জুড়েই খ্যাতি অর্জন করেছে। বিনা টাকায় রক্তের অভাবে মৃত্যু শয্যায়ী দুস্থ্য রোগীদের পাশে দাড়ায় স্বেচ্ছাসেবী যুবকেরা। শরীর থেকে বিনামূল্যে রক্ত দিয়ে বাঁচিয়ে তুলে চলেছে শতশত জীবন। ক্লাবটি প্রতিষ্ঠার ৪বছরেও এখন পর্যন্ত সরকারিভাবে স্বীকৃতি পায়নি। ফলে বিভিন্নভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছে ওই সংগঠন। উপজেলা নাগরিক কমিটির নেতৃবৃন্দের সহায়তা ও নির্দেশনায় স্থানীয় কিছু সমাজ সেবকদের প্রচেষ্টায় ফ্রেন্ডস ব্লাড ডনার ক্লাব টিকে আছে। সরকারিভাবে পৃষ্টপোষকতা পেলে এউপজেলার পাশাপাশি জেলাজুড়েই অসহায় দুস্থ্য মানুষের পাশে দাড়াবে। কথা হয় বিনামূল্যে উপকারভোগী উপজেলার বিশা গ্রামের সালমা বেগম, ভাটরার নাগড়া গ্রামের মোর্শেদা, রিধইলের সাহেরা, হাটলালের রুপালী রানী, হাসপুকুরিয়ার শাহিনুর খাতুন, ছোট কুঞ্চির হালিমা, টুম্পা রানী, জামালপুরের বিলকিস, দোলা সিংড়ার মনেরা বেগম ও শাজাহানপুর উপজেলার খাদাস তালুকদার পাড়ার নাজমুলের সাথে।

তারা জানান, চিকিৎসার সময় নগদ টাকা দিয়ে রক্ত পাওয়া যাচ্ছিল না। রক্তের গ্রুপও মিলছিলোনা। পরিচিত আত্মীয়দের মাধ্যমে নন্দীগ্রাম ফ্রেন্ডস ডনার ক্লাবের কাছে বিষয়টি জানালে তারা ছুটে এসে বিনামূল্যে রক্তদান করেছে বলেই আমরা বেঁচে আছি। হয়তো রক্ত না পেলে বেঁচে থাকা হতো না। ওই সংগঠনের যুবকেরা স্বেচ্ছায় বিনামূল্যে রক্ত দিয়েছে। কখনো কখনো তারা গরীব মানুষের চিকিৎসা খরচও বহন করে। আমরা যাতায়াত খরচ দেয়ার অনেক চেষ্টা করেছি, তারা গ্রহন করেনি। নন্দীগ্রাম পৌর শহরের হেলথ কেয়ার ক্লিনিকের পরিচালক আল মাসুদ জানান, দুস্থ্য রোগীরা অর্থের অভাবে রক্ত না পেয়ে শয্যায় রয়েছে, এমন খবর পাওয়ার সাথে সাথে ছুটে আসে ফ্রেন্ডস ব্লাড ডনার ক্লাবের যুবকেরা। স্থানীয় ক্লিনিকসহ জেলা সদরের সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে গিয়ে বিনামূল্যে রক্তদান করে। ব্যক্তিগত অর্থ খরচ করে হলেও অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছে।

সংগঠনের সভাপতি মতিউর রহমান মুসা জানান, সরকারিভাবে স্বীকৃতি পাওয়ার আশায় স্থানীয় সমাজ সেবা অফিসে প্রায় ৪বছর ধরে ঘুরপাক খেয়ে চলেছি। অর্থের অভাবে খুরিয়ে খুরিয়ে চলছে আমাদের কার্যক্রম। বিভিন্ন গ্রামে ফ্রি রক্ত পরিক্ষা ক্যাম্প করতেও অর্থের প্রয়োজন হয়। উপজেলা নাগরিক কমিটির নেতৃবৃন্দরা আমাদের পাশে দাড়িয়েছে বলেই সংগঠন টিকে আছে। সরকারি সহযোগীতা ও পৃষ্টপোষকতা পেলে অসহায় মানুষের জীবন রক্ষায় ফ্রেন্ডস ডনার ক্লাব অগ্রণী ভূমিকা রাখবে। অসহায় ও দুস্থ্য মানুষের জীবন রক্ষায় আমাদের প্রচেষ্টা অব্যহত রয়েছে।

এপ্রসঙ্গে বগুড়া-৪ (নন্দীগ্রাম-কাহালু) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম তানসেন বলেন, ফ্রেন্ডস ডনার ক্লাবের মাধ্যমে অসহায় ও দুস্থ্য মানুষের যাহায্যার্থে সেচ্ছাসেবী যুবকদের এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়। আমি তাদের অভিনন্দন জানাই। ব্যক্তিগত উদ্যোগে দীর্ঘ ৪বছর ধরে শতাধিক যুবক নিজেদের অর্থ খরচ করে অসহায় মানুষের কল্যাণে বিনামূল্য রক্তাদান করে মানুষের জীবন বাঁচিয়ে তুলছে। তাদেরকে উৎসাহিত করতে সমাজের বৃত্তবান ও সচেতন ব্যক্তিদের এগিয়ে আসতে হবে।
 

লাইক দিন

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Nobobarta on Twitter

© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com