,

আগৈলঝাড়ায় দুই বংশের দেড়শ’ বছরের পুরোনো বিবাদ অবসান হওয়ায় এলাকায় আনন্দের বন্যা

অপূর্ব লাল সরকার, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) # আগৈলঝাড়ায় প্রবাবশালী দুই বংশের ১৭ একর সম্পত্তি নিয়ে দেড়শ’ বছরের পুরোনো বিবাদের অবসান হয়েছে। এ ঘটনায় ওই এলাকায় জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে আনন্দের বন্যা বইছে। জানা গেছে, উপজেলার বাটরা গ্রামের প্রভাবশালী সরকার বংশের নলিনী রঞ্জন সরকার ও কান্ডা বংশের সুরেন মন্ডলের সাথে ১৭ একর সম্পত্তি নিয়ে তাদের বাপ-দাদার আমল থেকে কমপক্ষে দেড়শ’ বছর যাবৎ মামলা-হামলা ও বিরোধ চলে আসছিল। সম্পত্তির বিরোধের কারণে এক বংশের লোক অন্য বংশের লোকের সাথে চলাফেরা বন্ধ করে কথাবার্তা পর্যন্ত বন্ধ করে রেখেছিল। তাদের কারণে এলাকায় সামাজিক সমস্যার কারণে অন্য বংশের লোকজনও ভুগছিলেন।

 

এঘটনায় এলাকায় অন্তত: ২৫বার সালিশ বৈঠক বসলেও তাতে কোন সুরাহা হয়নি। গতকাল শুক্রবার সকালে রাজিহার ইউপি চেয়ারম্যান ইলিয়াস তালুকদারের নেতৃত্বে বাটরা গোবিন্দ মন্দির প্রাঙ্গণে বিভিন্ন বয়সী দুইশতাধিক নারী-পুরুষের উপস্থিতিতে সাবেক শিক্ষক গণেশ চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে বিরোধ নিরসনে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন রাজিহার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বিজয় কৃষ্ণ রায়, বাকাল ইউপি চেয়ারম্যান বিপুল দাস, প্রবীণ ব্যক্তিত্ব ও শিক্ষক হরেকৃষ্ণ হালদার, সাবেক ইউপি সদস্য তরুণ হালদার, সাবেক ভিপি তমাল বাড়ৈ, তপন শীলসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিরা।

সভায় উভয় বংশের লোকজনকে সম্পত্তির মালিকানার স্বত্ত্ব বিবেচনা ও মানবিক বিবেচনায় বিভিন্ন দাগ থেকে বিরোধীয় সম্পত্তি সমান অংশে বন্টন করে দেয়া হয়। উপস্থিত নেতৃবৃন্দর সাথে উভয়পক্ষ একমত পোষণ করে আর সম্পত্তি নিয়ে কোন মামলা হামলা না করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। এঘটনায় ওই এলাকায় অন্যান্য বংশের মধ্যেও আনন্দের বন্যা বইছে।  

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

আরও অন্যান্য সংবাদ


Nobobarta on Twitter




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com