শুক্রবার, ২৫ মে ২০১৮, ০১:৪৮ পূর্বাহ্ন

সেহরী ও ইফতার সময় :
আজ ২৪ মে বুধবার, রমজান- ৭, সেহরী : ৩-৪২ মিনিট, ইফতার : ৬-৪২ মিনিট, ডাউনলোড করে নিতে পারেন পুরো ফিচার- সেহরী ও ইফতার-এর সময়সূচী


রাজাপুর উপজেলা সাব রেজিষ্ট্রার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যর অভিযোগ!

রাজাপুর উপজেলা সাব রেজিষ্ট্রার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যর অভিযোগ!



রাজাপুর প্রতিনিধি # ঝালকাঠির রাজাপুরে দূর্নীতির মাধ্যমে দলিল করার অভিযোগ উঠেছে সাব রেজিষ্টার কর্মকর্তা ইয়াসমীন সিকদরের বিরুদ্ধে । গতকাল গালুয়া বাজারের স্থানীয় বাসিন্দা সৈয়দ কবির হোসেন সাংবাদিকদের কাছে লিখিত ভাবে এ অভিযোগ করেন। সৈয়দ কবির হোসেন অভিযোগ করে বলেন, গালুয়া বাজারের ১১৬৪, ১১৬৫ এস এ দাগের ২২৪,২২৫ খতিয়ানের ০৬ শতাংশ জমি দাতা মাসুদা বেগমের কাছ থেকে (সাব কবলা ) কেনার জন্য উক্ত জমির কাগজ পত্র দলিল লেখক মিনু হাওলাদারের কাছে দিলে তিনি দলিল প্রস্তুত করে সাথে ১০৮০০০/এক লক্ষ আট হাজার টাকার পে অর্ডার কেটে রাজাপুর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে জমাদেয়।

রাজাপুর সাব রেজিষ্ট্রি অফিস জমির দাতাকে স্বশরীরে উপস্থিত থেকে দলিলে সই করার জন্য বলা হয় । জমির দাতা গুরুতর অসুস্থ্য । তিনি শয্যাসয়ী, তিনি হাটা চলা করতে পারেননা এমনকি কথা বলতে এবং কিছু বললেও তিনি বুঝতে পারেন না । দাতার এমন অবস্থা শুনে রাজাপুর উপজেলা সাব রেজিষ্টার অফিস আমাকে মহামান্য কোর্ট থেকে অনুমতি আনতে বলেন এবং ২৯/১১/১৭ তারিখ পর্যন্ত সময় দেন । অথচ একই দিন দাতা মাসুদা বেগমের সেই জমি দলিল লেখক আবুল কালাম মিলনের যোগসাজসে কমিশনে না গিয়েও কমিশন দেখিয়ে অফিস সহকারী প্রশান্ত কুমার পাথর, মোহরার গোপাল চন্দ্র দাসসহ অন্যান্য কর্মচারীদের সহযোগীতায় ঘুষ দূর্নীতির মাধ্যমে অন্য গ্রহিতাকে দলিল করে দেয় রাজাপুর সাব রেজিষ্ট্রি কর্মকর্তা ইয়াসমিন সিকদার।

সরজমিনে দাতার বাড়িতে গিয়ে খোজঁ নিয়ে জানাজায়, দাতা মাসুদা বেগমের বাড়িতে রাজাপুর উপজেলা সাব রেজিষ্টার অফিসের কোন কর্মকর্তা এ বাড়িতে এখন পর্যন্ত আসেনি। দাতা মাসুদা বেগমের ছেলে বউ শাহজাদী বেগম বলেন , আমরা কমিশনে দলিল করাইনি এবং আমার শাশুরী মা অসুস্থ্য, শয্যাশয়ী তিনি সাব রেজিষ্ট্রার অফিসেও যায়নি।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

Please Share This Post in Your Social Media








© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com