শনিবার, ২৩ Jun ২০১৮, ১০:২২ পূর্বাহ্ন



আজ ভালুকা মুক্ত দিবস

আজ ভালুকা মুক্ত দিবস



সফিউল্লাহ আনসারী, ভালুকা (ময়মনসিংহ) # ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে চির স্বরণীয় হয়ে থাকা এক জনপদের নাম। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে সারা দেশের ন্যায় এখানেও প্রতিরোধ-প্রতিশোধে বিরত্বের দাবী নিয়ে সংগঠিত হয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধ। ১৯৭১ সালে জয়ের ধারাবহিকতায় ডিসেম্বরের ৮ তারিখ ভালুকা হানাদার মুক্ত হয়। শহীদদের স্মরণে ভালুকা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় স্থাপিত হয়েছে স্মৃতিসৌধ। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত স্থানসমুহ সংরক্ষণ করার দাবী করছেন, কিছু কাজ ইতমধ্যে বাস্তবায়িত হয়েছে ।

ময়মনসিংহ সদর দক্ষিণ ও ঢাকা সদর উত্তর (বর্তমান গাজীপুর জেলার শ্রীপুর) মুক্তিযুদ্ধে তৎকালিন ভালুকা থানা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আফসার উদ্দিন আহাম্মেদের নেতৃত্বে পরিচালিত হয় এ এলাকার যুদ্ধ। আফসার উদ্দিন আহাম্মেদ উপজেলার পারুলদিয়া গ্রামের আঃ হামিদের নিকট থেকে একটি রাইফের সংগ্রহ করে ১৭ এপ্রিল এ অঞ্চলে মুক্তিযুদ্ধ শুরু করেন। সামরিক বাহিনীর আদলে গঠন করা হয় ‘আফসার বাহিনী’। সাড়ে চার হাজার সদস্যের এ বিশাল বাহিনী ২ শত ৩৫ দিনের যুদ্ধ শেষে ৮ ডিসেম্বর ভালুকা পাক হানাদার বাহিনী মুক্ত করেন। ভালুকা-গফরগাঁও সড়কে উপজেলার ভাওয়ালিয়াবাজু ব্রীজ এলাকায় ২৫ জুন পাক সেনাদের সাথে প্রথম ৪৮ ঘন্টার সম্মুখ যুদ্ধ দিয়ে সুচনা হয় বীরত্বগাঁথা । আর শেষ যুদ্ধ হয়,ভালুকা মুক্ত হওয়ার ৬ দিন পর ১৪ ডিসেম্বর উপজেলার পাড়াগাঁও গ্রামে । প্রথম যুদ্ধে ১৯৫ জন পাকসেনা নিহত হওয়ার বিপরীতে আবদুল মান্নান নামে একজন বীরমুক্তিযোদ্ধা শাহাদাৎ বরন করেন। তিনিই ভালুকার প্রথম শহীদ । পাড়াগাঁও যুদ্ধে শহীদ হন বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ও মুন্নেছ আলী।

এ দুটি যুদ্ধ ছাড়াও ওই সময়ে ভালুকা উপজেলার সিডষ্টোরে (১৭ জুলাই), আঙ্গারগাড়া বাজারে (৪ আগষ্ট), ভায়াবহ ঘাটে (১৫ আগষ্ট), ভরাডোবায় (৪ সেপ্টেম্বর), ধামশুর গ্রামে (৭ সেপ্টেম্বর), পাইলাব বাকসী নদীর ব্রিজে (১০ সেপ্টেম্বর), নিঝুরী গ্রামে কুমারঘাট ও মুচার ঘাটে (১৫ সেপ্টেম্বর), বান্দিয়া গ্রামে (১৮ সেপ্টেম্বর),রাজৈ বাজারে (১৮ সেপ্টেম্বর), পনাশাইল বাজারে (১৯ সেপ্টেম্বর), বয়রার টেকে (২৫ সেপ্টেম্বর), বরাইদ গ্রামে (২১ সেপ্টেম্বর ও ১ অক্টোবর), বাজুয়াঝোড়ার খালে (১ অক্টোবর), তালাব গ্রামে (৩ অক্টোবর), বাঘেরপাড়া গ্রামে (৩ অক্টোম্বর), বিরুনিয়া গ্রামে (৫ অক্টোবর ), কুল্লাব গ্রামে (৮ অক্টোবর), চাঁনপুর গ্রামে (১০ অক্টোবর), মেদুয়ারী গ্রামে (১৩ অক্টোবর),ধলিয়া গ্রামে (২৫ অক্টোবর), পনাশাইল চুল্লার খালপাড়ে (২৭ অক্টোম্বর), রাজৈ গ্রামে (২ নভেম্বর), চান্দরাটি গ্রামে (১২ নভেম্বর), সাতেঙ্গা গ্রামে (১৬ নভেম্বর), ভান্ডাব গ্রামে (১৭ নভেম্বর), মামারিশপুর গ্রামে (২০ নভেম্বর), কাঁঠালী গ্রামে (২ ডিসেম্বর) ও বাশিল গ্রামে (৪ ডিসেম্বর), পাক সেনাদের সাথে যুদ্ধ হয়েছে।

এ ছাড়াও ভালুকা থানা আক্রমন ও পারুলদিয়া বাজারে পুলিশ আটক করে অস্ত্র ও গোলাবারুদ সংগ্রহ এবং বয়রার টেক, মল্লিকবাড়ি পাকসেনা ক্যা¤প ও ভালুকা পাকসেনাদের সদর দপ্তরে আক্রমন করে তাদের রসদ অস্ত্র ও গোলাবারুদ আটক করা হয়। যুদ্ধ পরিচালনা করা হতো আফসার বাহিনীর তৎকালিন সদর দপ্তর উপজেলার ডাকাতিয়া ঢালুয়া পাড়া থেকে। সদর দপ্তরের গোপন প্রশিক্ষণ ও চিকিৎসা কেন্দ্র ছাড়াও রাজৈ ইউনিয়নের খুর্দ্দ গ্রামের গভীর জঙ্গলে পইদ্যারটেক নামক স্থানে গড়ে তোলা হয়েছিল মুক্তিযোদ্ধা ট্রেুনিং সেন্টার। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় ভালুকায় মোট ৩২ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত বরন করেন।

যুদ্ধকালীন সময়ে আহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা দিতে ডাঃ রমজান আলী তরফদারের নেতৃত্বে ১২ জন ডাক্তার ও ৬ জন নার্সের সমন্বয়ে ‘আফছার ব্যাটালিয়ন হাসপাতাল’ নামে একটি ভ্রাম্যমান হাসপাতাল পরিচালিত হয়। যুদ্ধের খবরা খবর প্রচারে এস এ কালামের স¤পাদনায় ‘জাগ্রত বাংলা’ নামে একটি হস্তলিখিত পত্রিকা বের করা হতো। ইতমধ্যেই ভালুকা সদরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে নির্মিত হয়েছে স্মৃতি সৌধ । মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণের দাবী পুরণ হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন উপজেলা (সাবেক) কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মফিজুর রহমান।

বর্তমানে পদাধীকারে দায়ীত্বপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ কামাল জানান, ভালুকা মুক্ত দিবস উপলক্ষে ৮ডিসেম্বর ভালুকা কেন্দ্রীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন, র‌্যালি, আলোচনা সভা,মেজর আফসার উদ্দিন আহাম্মদ ও ভাষা সৈনিক মোস্তফা এম এ মতিনের কবর যিয়ারত করা হবে। এ সময় উপস্থিত থাকবেন মাননীয় সংসদ সদস্য ডা: এম আমান উল্লাহ, উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা,পৌর মেয়র ডা: মেজবাহ উদ্দিন কাইয়ুম, উপজেলার সকল ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলার সকল ইউপি চেয়ারম্যান, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডসহ সকল রাজনৈতিক, সামাজিক, পেশাজীবি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। দিনটি শুক্রবার হওয়ায় কর্মসুচি সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ কামাল ।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

Please Share This Post in Your Social Media








© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com