জাবির কর্মচারিকে ছাত্রলীগের মারধর

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জোবায়ের কামাল, জাবি প্রতিনিধি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন অফিসের এক কর্মচারিকে পিটিয়ে আহত করেছে শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। আহত কর্মীচারী হলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন শাখার সিনিয়র বাস কন্ডাক্টর মোক্তার হোসেন। তিনি বর্তমানে সাভারের একটি বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীরা বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) সন্ত্রাসীদের বিচার দাবি করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। বিশ^বিদ্যালয়ের কর্মচারী সমিতি ও কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত এ বিক্ষোভ মিছিল থেকে আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে বিচার দাবি করেন। এই সময়ের মধ্যে অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনা না হলে কঠোর আন্দোলনের যাওয়ার হুঁশিয়ারী দিয়েছেন তারা।

এদিকে বুধবার রাতে ক্যাম্পাসের বিশ মাইল মাঠ সংলগ্ন রাঙামাটি এলাকায় এ ঘটনা ঘটলেও কর্মচারীদের বিক্ষোভ মিছিলের পর বিষয়টি জানাজানি হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে ৪র্থ বর্ষের শাওন (আইআইটি), আরিফুল ইসলাম (বাংলা), সৈয়দ লায়েব (দর্শন), জুনায়েদ (একাউন্টিং) ও আসিফ (প্রত্নতত্ত্ব) ছাত্রলীগ কর্মী লস্কারকে মারধর শুরু করে। পরে মারধরের খবর শুনে তার বাবা মোক্তার হোসেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করলে তাকেও মারধর করা হয়।

মারধরের শিকার মুক্তার হোসেন বলেন, আমার ছেলেকে মারধরের কথা শুনে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে আমাকেও তারা মারধর করে। গুরুতর আহত হয়ে আমি এখন চিকিৎসাধীন আছি।

তিনি আরো বলেন, আমাকে মারধরের কথা শুনে আমার স্ত্রী এগিয়ে আসলে তাকেও লাঞ্ছিত করে। একই সাথে লোহার রড দিয়ে তার পায়ে আঘাত করে।

অভিযুক্ত রবিউল ইসলাম কর্মচারী মুক্তার হোসেনকে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, তার ছেলে মাদক বিক্রয় করছিল, তাই তাকে হাতেনাতে ধরে মারধর করা হয়েছে।

এ বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম আবু সুফিয়ান চঞ্চল মারধরের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মাদকের বনিবনার বিষয়টি ভিত্তিহীন। তবে লস্কর আগে থেকে মাদকের সাথে সম্পৃক্ততা রয়েছে। আর যারা ওখানে গিয়েছিলো তাদের সাথে তার আক্রমানন্ত্রক কোন কথাবার্তার কারনে মারধরের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।

লাইক দিন

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.