,

লোকজ্ঞান ও বৈজ্ঞানিক জ্ঞান একই

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি: মাটির রুপ বা বৈশিষ্ট দেখেই একজন কৃষক বুঝতে পারে কোনটা কোন মাটি। সেই একই মাটি বৈজ্ঞানিকভাবে পরীক্ষা করা হলে কৃষকের সেই জ্ঞানের সাথে তা মিলে যায়। তাই তাদের জ্ঞান এবং বৈজ্ঞানিক জ্ঞান একই রকম। বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ভবনে ফোকলোর বিভাগের ১২০ নং কক্ষে ইন্ডিজিনাস নোলেজ এন্ড ডেভলপমেন্ট ইন বাংলাদেশ শীর্ষক সেমিনারে এসব কথা বলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় সোয়াসের গবেষণা সহকর্মী অধ্যাপক জহির উদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, শরীরকে ঠান্ডা করার জন্য কৃষক সকাল বেলা পান্তা ভাত খেয়ে তারপর কাজে বা হাল চাষ করতে যায়। যাতে সূর্য্যরে প্রখর তাপ তার শরীরে লাগলেও শরীর যেন তাড়াতাড়ি উত্তপ্ত না হয়। এগুলোই হচ্ছে দেশীয় জ্ঞান। অধ্যাপক জহির বলেন, কৃষক মনে করেন; ইশারা ইঙ্গিত, একশন এগুলোই নোলেজ (জ্ঞান)। তার জন্য কথার শুধু প্রয়োজন হবে তা নয়।

বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. আব্দুল্লাহ-আল-মামুনের সঞ্চালনায় সেমিনারে আরো বক্তব্য দেন, বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক আক্তার হোসেন। এছাড়াও সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন, সহযোগী অধ্যাপক জাহাঙ্গীর হোসেন, সহকারী অধ্যাপক ফারজানা রহমান, ড. উদয় সঙ্কর বিশ্বাস, ড. হাবিবুর রহমান, অধ্যাপক মোস্তফা তারিকুল আহসান, অধ্যাপক আবুল হাসান চৌধুরী, সমাজকর্ম বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক সাদেকুল আরেফিন মাতিন, প্রমুখ।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

আরও অন্যান্য সংবাদ


Nobobarta on Twitter




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com