,

জবি শিক্ষার্থী মিলনের সন্ধানের দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র সাদিকুল ইসলাম মিলন ৫৫ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। তার সন্ধানের দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলনে নেমেছেন শিক্ষার্থীরা। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে, তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। চেষ্টার কোনো ত্রুটি নেই।বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জানিয়েছে, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনারের কাছেও মিলনের সন্ধান চাইবে কর্তৃপক্ষ।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা ক্লাসরুমে তালা ঝুলিয়ে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভ শুরু করেন। পরে শিক্ষার্থীরা প্রধান ফটক পেরিয়ে রাস্তায় যেতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. নুর মোহাম্মদ ঘটনাস্থলে এসে শিক্ষার্থীদের প্রধান ফটক ছেড়ে দিতে বলেন। পরে শিক্ষার্থীরা সেখান থেকে সরে আসেন। এরপর প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নেন তারা। এ সময় প্রক্টর ড. নুর মোহাম্মদ উদ্যোগ নিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে সাতজনকে ডেকে নিয়ে নিখোঁজ মিলনের সন্ধানের বিষয়ে আলোচনা করেন।এর আগে গত বুধবার দুপুরে মিলনের সন্ধানের দাবিতে মানববন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা। তখন ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এর মধ্যে মিলনকে খুঁজে বের করে তার অবস্থান নিশ্চিত না করলে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনসহ কঠোর আন্দোলনের ঘোষণার দিয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা। দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি না দেখে আন্দোলনে নামেন তারা।গত ২৩ মে রাতে মোহাম্মদপুরের আদাবর থানার ৫ নম্বর সড়কের ৭ নম্বর বাড়ি  থেকে কয়েকজন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে মিলনকে তুলে নিয়ে যায়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজির পর না পেয়ে পরদিন মিলনের পরিবার আদাবর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে।এ বিষয়ে জবি প্রক্টর ড. নুর মোহাম্মাদ বলেন, মিলনকে উদ্ধারের বিষয়ে আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলন যৌক্তিক, তাদের সঙ্গে আমরাও একমত। মিলনের সন্ধানের জন্য মঙ্গলবার তার সহপাঠীদেরকে সঙ্গে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে  দেখা করবে। শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করলে প্রশাসনও সঙ্গে থাকবে। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

আরও অন্যান্য সংবাদ


Nobobarta on Twitter




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com