প্রধানমন্ত্রীর মিথ্যাচারে জনগণ প্রভাবিত হবে না : মির্জা ফখরুল - Nobobarta.com

প্রধানমন্ত্রীর মিথ্যাচারে জনগণ প্রভাবিত হবে না : মির্জা ফখরুল

সরকারের পায়ের নিচে মাটি নেই বলে বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করা হচ্ছে- অভিযোগ করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, ক্ষমতাসীনরা দুর্নীতি করে সেই অর্থ বিদেশে পাচার করছে। পত্র-পত্রিকায় এসেছে, সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংকে কত টাকা কার জমা আছে। আমেরিকার ফ্লোরিডায় কত টাকায় কত বাড়ি কেনা হয়েছে, কে কিনেছে। বেগমপাড়া নির্মিত হয়েছে কানাডাতে। মালয়েশিয়ায় সেকেন্ড হোম- কে কতটা বাড়ির মালিক হয়েছেন সেগুলো সব চলে আসছে। ওয়াশিংটন ডিসিতে বাড়ি-ঘর তৈরি হচ্ছে, কেনা হচ্ছে। নির্বাচনের আগে জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ফিরাতে সরকারপ্রধান বিএনপি নেতৃত্বের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছেন।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। বুধবার জাতীয় সংসদে দেয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের জবাব দিতেই এ সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। ‘ভুল’ নকশায় পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলন, দুর্নীতির জন্য সরকার এটা করছে। ফখরুল বলেন, একটা ভ্রান্ত ও ভুল ডিজাইনের উপরে পদ্মা সেতু নির্মিত হলে সেটা যে টিকবে না, তা উনি (খালেদা জিয়া) ভুল বলেননি। বরং তিনি সাচ্চা দেশপ্রেমিকের কাজ করেছেন। তোমরা এখনও এলার্ট হও, চেঞ্জ দ্য ডিজাইন এবং সেটা সঠিকভাবে নির্মাণ হতে হবে।

দুর্নীতির জন্যই সরকার এই প্রকল্প নিয়ে এগোচ্ছে দাবি করে তিনি বলেন, এখানে আট হাজার কোটি টাকার প্রজেক্টকে নিয়ে চলে গেছে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকার প্রজেক্টে। তিনি বলেন, এটা সত্য প্রমাণিত হয়েছে যে, পদ্মা সেতু একটা রং ডিজাইনের উপরে নির্মিত হচ্ছে। এটা আমাদের কথা নয়, এটা বিশেষজ্ঞদের কথা। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি (শেখ হাসিনা) শপথ নিয়েছেন যে- তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন, সত্য কথা বলবেন, মিথ্যা কথা বলবেন না। সংসদে দাঁড়িয়ে তিনি মিথ্যা কথা বলতে পারেন না। সারা জাতিকে বিভ্রান্ত করতে পারেন না। অথচ সংসদে তিনি এই মিথ্যাচার করছেন। সংসদে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য যেন গণতন্ত্রের ওপর বিষাক্ত তীর নিক্ষেপ। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যে তির্যক ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য রেখেছেন তা শুধু অনভিপ্রেত বা দুঃখজনকই নয়, বরং এটি রাজনৈতিক পরিবেশ এবং আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে মানুষের মধ্যে সন্দেহ ও সংশয় দানা বাঁধবে। এজন্য আরেকটি মানহানির মামলা হতে পারে, যদি আইন থাকে।

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তার পরিবারের বিদেশে সম্পদ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে সম্পূর্ণ মিথ্যাচার বলে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে ক্রমাগত মিথ্যার ধারাবর্ষণ করে ক্ষমতাসীনরা বাংলাদেশে এক বিধ্বংসী বিপজ্জনক অভিযানে নেমেছেন। প্রধানমন্ত্রীর কুৎসামূলক অপপ্রচারের এই বক্তব্য রাজনৈতিক বিভেদ-বিভাজনকে আরো প্রসারিত করবে।

সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, শামসুজ্জামান দুদু, নিতাই রায় চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা ফজলুল হক মিলন, শহিদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, মীর সরফত আলী সপু, এবিএম মোশাররফ হোসেন, নাজিমউদ্দিন আলম, আসাদুল করীম শাহিন, মুনির হোসেন, রফিক শিকদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ




টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com