,

স্বৈরাচার এরশাদও এত খারাপ ছিলেন না: ফখরুল

৯০ সালে যার বিরুদ্ধে ছাত্র গণ-অভ্যুত্থান হয়েছিল, সেই স্বৈরাচার এরশাদও এত খারাপ ছিলেন না। অন্তত তার সময় একটা নিয়ম সৌজন্যবোধ ছিল যে জনসমাবেশে বাধা না দেয়া। আপনি (বর্তমান প্রধানমন্ত্রী) এ কয়েক বছরের মধ্যে কতজন মেরেছেন, কত মায়ের বুক খালি করেছেন কতজন স্ত্রীর বুক খালি করেছেন, হিসেব করলে খুঁজে পাবেন না। কারাগারে রুদ্ধ আমাদের নেতাকর্মীরা বলে মন্তব্য করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ বুধবার বিকেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ মন্তব্য করেন। ৬ ডিসেম্বর গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে ’৯০র ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র-ঐক্য আলোচনা সভার আয়োজন করে। বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে বাংলাদেশের সামনে বিরাট বড় সংকট। এত বড় সংকট কখনো আসেনি। আমাদের অস্তিত্ব বিপন্ন প্রায়। স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বিপন্ন। মানুষের জীবনের নিরাপত্তা বিপন্ন। আমরা যদি সবাই ঐক্যবদ্ধ না হই তাহলে একসঙ্গে এ অপশাসন অপশক্তি দুঃশাসনকে পরাজিত করা যাবেনা তানাহলে আমাদের অস্তিত্ব থাকবে না।

তিনি বলেন, আমাদের সবারই এক কথা। আমরা সংঘাত সংঘর্ষ চাই না। আমারা আমাদের জনগণের মতামত প্রকাশের যে অধিকার তা চাই। এটা তো একটা গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। জনগণই রাষ্ট্রের মালিক। রাষ্ট্রের মালিক আপনারা না। সেই যায়গা থেকে আপনারা আমাদেরকে বঞ্চিত করছেন। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আপনারা জেনে গেছেন আপনাদের পায়ের নিচে মাটি নেই। জনগণের সমর্থন নেই। ভোট যদি হয় তাহলে আপনাদের অস্তিত্ব থাকবে না। বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দিন আলমের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খােকন, সমাজ কল্যাণবিষয়ক সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন প্রমুখ

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


Udoy Samaj

টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com